ম্যারাডোনা চুমু খেলেন ১৯৮৬ এর সেই রেফারিকে!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ফুটবলের কিংবদন্তি দিয়েগো ম্যারাডোনা চুমু খেলেন ১৯৮৬ এর সেই রেফারিকে। ১৯৮৬ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে হাত দিয়ে গোল করেন ম্যারাডোনা। সেই ম্যাচের রেফারি ছিলেন আলী বেনাকিউর।

Recipe kissed the referee of 1986

ফুটবলের কিংবদন্তি দিয়েগো ম্যারাডোনা চুমু খেলেন ১৯৮৬ এর সেই রেফারিকে। ১৯৮৬ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে হাত দিয়ে গোল করেন ম্যারাডোনা। সেই ম্যাচের রেফারি ছিলেন আলী বেনাকিউর। তিউনেশিয়ার রেফারি আলী বেনাকিউরের কথা বর্তমান প্রজন্মের কারোই জানার কথা নয়। কারণ হলো তখন হয়তো অনেকেরই জন্মও হয়নি। ইতিহাস ঘেটে হয়তো কেও কেও জেনেছেন। ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা উল্লেখযোগ্য ঘটনা ছিল ‘হ্যান্ড অব গড’ এর সঙ্গে সম্পৃক্ত তিউনেশিয়ার এই রেফারি আলী বেনাকিউর। ১৯৮৬ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচে হাত দিয়ে গোল করেছিলেন আর্জেন্টিনার ম্যারাডোনা। আর এই গোলকে সেসময় বৈধ গোল হিসেবে ঘোষণা করেছিলেন তিউনিস রেফারি আলী বেনাকিউর।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা যায়, দিয়েগো ম্যারাডোনা সম্প্রতি তিউনেশিয়ায় যান একটি বিজ্ঞাপনচিত্রে কাজের জন্য। সেই সুযোগ ম্যারাডোনা রেফারি আলীর সঙ্গে দেখাও করেছেন। তার সঙ্গে তিনি আলিঙ্গন করেছেন। তাকে চুমুও খেয়েছেন। আলীকে নিজের স্বাক্ষর করা একটি আর্জেন্টিনার জার্সিও উপহার দিয়েছেন ম্যারাডোনা। সেখানে ম্যারাডোনা লিখেছেন ‘আমার চিরদিনের বন্ধু আলীর জন্য’। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলীর সঙ্গে আলিঙ্গন করার ছবিও প্রকাশ করেছেন ম্যারাডোনা। আবার আলী বেনাকিউরও খালি হাতে ফেরাননি ম্যারাডোনাকে। তিনি ওই ম্যাচের অপর গোলরক্ষক পিটার শিলটন ও ম্যারাডোনার বাঁধানো ছবি উপহার দিয়েছেন আর্জেন্টিনার কিংবদন্তি ফুটবলার ম্যারাডোনাকে।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে আরও বলা হয়েছে যে, ফেসবুকে ম্যারাডোনা লিখেছেন, ‘আলী বেনাকিউরের সঙ্গে মিলিত হয়েছি। সে এক আবেগঘন মুহূর্ত বটে। আমি তাকে আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের একটি জার্সি উপহার দিয়েছি। তিনিও আমাকে ওই ম্যাচের একটি ছবি দিয়েছেন। যেটা তিনি তার ঘরে এতবছর স্বযত্নে রেখে দিয়েছিলেন।’

ওই গোলের বিষয়ে আলী বেনাকিউর বরাবরই একই কথা বলে এসেছেন। আর তা হলো, ‘আমি যে অবস্থানে ছিলাম তার চেয়ে অনেক ভালো অবস্থানে ছিলেন লাইন্সম্যান বোগদান ডচেভ। সে বিষয়টি ভালোভাবে লক্ষ্যও করেছে। যেটা আমার অবস্থান হতে অতোটা দেখা যায়নি। ফিফার নির্দেশনামতে, রেফারির সহকারী যদি ভালো অবস্থানে থাকে, সেক্ষেত্রে তার সিদ্ধান্ত প্রাধান্য পেয়ে থাকে। আমি ঠিক সেটাই করেছিলাম। আমার সহকারী পতাকা তোলেনি। আর তাই আমিও গোলটি বাতিল করিনি।’

উল্লেখ্য, ১৯৮৬ সালের ওই বিতর্কিত গোল নিয়ে এখনও আলোচনা হয়। যেহেতু রেফারি গোলটি বাতিল করেনি তাই সেটি গোল হিসেবে বিবেচিত হয়েছিল। আর ম্যারাডোনাও হাত দিয়ে গোল দেওয়া প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘ওটি আসলে ঈশ্বরের হাত ছিল!’

Advertisements
Loading...