খাওয়া-ঘুমানোর প্রয়োজন পড়ে না- এমন এক ‘রোবট বালিকা’র গল্প!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ এমন কথা শুনে যে কেও আশ্চর্য হতে পারেন কিন্তু ঘটনাটি আসলেও সত্য। খাওয়া-ঘুমানোর প্রয়োজন পড়ে না- এমন এক ‘রোবট বালিকা’র গল্প রয়েছে পাঠকদের জন্য।

robot Girl does not need to sleep-eating

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা গেছে, ৭ বছরের ওই ব্রিটিশ বালিকার নাম অলিভিয়া ফার্নওয়ার্থ। সে খাবার খায় না বললেই চলে। ঘুমের বেলাতেও প্রায় একই রকম। আরও একটি বিষয় হলো অলিভিয়ার শরীরে ব্যথাবোধও কম। স্বাস্থ্য পরীক্ষায় পুরোপুরি বিভ্রান্ত করে দেওয়া হয়েছে চিকিৎসকদের। তারা আশ্চর্য বলেই মনে করেন। আর তাই এই বালিকাকে চিকিৎসকরা বলেছেন, ‘রোবট বালিকা’।

অলিভিয়া বসবাস করেন মা-বাবা ও ভাইবোনের সঙ্গে ইংল্যান্ডের পশ্চিম ইয়র্কশায়ারের হাডার্সফিল্ড শহরে। সেখানেই ঘটে প্রথম আশ্চর্য হওয়ার মতো একটি ঘটনা। একটি গাড়ির ধাক্কা খাওয়া ও গাড়িতে কিছুদূর টেনে নিয়ে যাওয়ার পরও কোনো কান্না করেনি বা কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি সে। বিষয়টি তখনই চিকিৎসকদের নজরে চলে আসে। পারিবারিক সূত্রে বলা হয়, এই শিশু বালিকা তিনদিন, তিন রাত না ঘুমিয়েই কাটিয়ে দেয়। খাবার খায় একদমই কম। খুব সামান্য খাবার গ্রহণ করে সে।

যদিও চিকিৎসকরা অলিভিয়ার অস্বাভাবিকতাকে নতুন কিছু নয় বলে মনে করেন। চিকিৎসকদের মতে, ‘ক্রোমোজোম সিক্স মুছে যাওয়া’ নামক এক বিরল রোগের কারণে মানুষের মধ্যে এমন একটি অস্বাভাবিকতা দেখা যায়। তবে একই সঙ্গে তিন তিনটি অস্বাভাবিক ঘটনা এই প্রথম বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।

সংবাদ মাধ্যমকে অলিভিয়ার মা নিকি ট্রিপ্যাক (৩২) বলেছেন, তার এই মেয়ের মধ্যে বিপদ সম্পর্কে কোনো ধারণায় নেই। রাস্তায় গাড়িতে ধাক্কা লাগা ও গাড়িতে কিছুদূর টেনে নিয়ে যাওয়ার পরও তার কোনো অভিযোগ ছিল না। একটি গাড়ি বেশ কিছুদূর টেনে নিয়ে গিয়েছিল অলিভিয়াকে। ওই সময় নিকি ট্রিপ্যাক নিজে ও তার সন্তানরা চিৎকার করছিলেন। কিন্তু এমন অবস্থাতেও নির্বিকার ছিল অলিভিয়া। ভাবটা এমন যে কিছুই ঘটেনি এমনভাবে সে আবার ফিরে যায়। আর এতো বড় দুর্ঘটনায় তার ক্ষত হয় শুধুমাত্র হাত ও পায়ে।

চিকিৎসকদের মনে করছেন, ভয় পেয়ে বোকার মতো কিছু করে না বসার কারণেই গাড়ির আঘাত এবং টেনে নেওয়া সত্ত্বেও বেঁচে যায় অলিভিয়া।

অলিভিয়ার মা নিকি ট্রিপ্যাক বলেছেন, প্রথমদিকে অলিভিয়ার ৯ মাস বয়সের ঘুম না হওয়ার বিষয়টি চোখে পড়ে। আর ৪ বছর পর্যন্ত তার মাথায় স্বাভাবিকভাবে চুলই গজায়নি। আর এখন পর্যন্ত খুবই কম খাবার খায় সে। মাঝে-মধ্যে শুধু মাখনের স্যান্ডউইচ খেয়েই কাটিয়েছে সে। এখন মজেছে নুডলসে। মাঝে-মধ্যে নুডলস খেলেই দিন পার করে অলিভিয়া।

চিকিৎসকরা বলেছেন, এই রোগের চিকিৎসা নেই বললেই চলে। তাই অলিভিয়ার ভবিষ্যৎ নিয়ে মা-বাবার সঙ্গে উদ্বিগ্ন চিকিৎসকরাও।

Advertisements
Loading...