চাঁপাইনবাবগঞ্জের ঐতিহাসিক গৌড় সোনামসজিদ

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ শুভ সকাল। শুক্রবার, ২১ অক্টোবর ২০১৬ খৃস্টাব্দ, ৬ কার্তিক ১৪২৩ বঙ্গাব্দ, ১৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরি। দি ঢাকা টাইমস্ -এর পক্ষ থেকে সকলকে শুভ সকাল। আজ যাদের জন্মদিন তাদের সকলকে জানাই জন্মদিনের শুভেচ্ছা- শুভ জন্মদিন।

historical-gaur-sonamasjid

যে ছবিটি আপনারা দেখছেন সেটি চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ থানায় অবস্থিত ঐতিহাসিক গৌড় ছোট সোনামসজিদ।

ঐতিহাসিক গৌড় সোনামসজিদটি বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী এলাকা রাজশাহী বিভাগে অবস্থিত। চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ থানায় অবস্থিত এই মসজিদটি ঐতিহাসিক গৌড় ছোট সোনামসজিদ হিসেবে অধিক পরিচিত।

ধারণা করা হয়ে থাকে পনেরো শতাব্দিতে এই প্রাকৃতিক নিদর্শনটি তৈরি করা হয়েছিল। এই মসজিদে রয়েছে ১৫টি গুম্বুজ, ৪১টি কবর, মসজিদের পূর্ব দিকে রয়েছে মাঝারি আকারের একটি দিঘী। মসজিদের ভিতরে রয়েছে বিচারালয় নামক একটি স্থান। এক সময় এখানে বসে বিচার কার্য সম্পন্ন করা হতো।

ছোট ছোট পাথর ও পোড়ামাটির ফলক দিয়ে মসজিদের দেওয়াল নির্মিত হয়েছে। মসজিদের দেওয়াল জুড়ে রয়েছে কারুকার্য ও বিচিত্র রকমের নকশা। মজার ব্যাপার হলো এই মসজিদের পাশে ঘুমিয়ে রয়েছে ১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের বীরশ্রেষ্ঠ খেতাবপ্রাপ্ত বীরশ্রেষ্ঠ মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর ও তার সহচর একজন মুক্তিযোদ্ধা।

মসজিদটির আয়তন বর্গাকারের। এই সোনামসজিদকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠেছে সোনামসজিদ কলেজও। মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে গড়ে ওঠেছে একটি স্মৃতিসৌধ। এখানে প্রাচীন কালের নিদর্শন হিসাবে রয়েছে মসজিদ, মাদ্রাসা ও ওলী আল্লাহদের মাজার শরীফ। এদের মধ্যে দরশ বাড়ী মসজিদ, দরশবাড়ী মাদ্রাসা, খনিয়াদ দিঘী মসজিদ, ধানাই চক মসজিদ, বালিয়া দিঘী, তাহখানা মসজিদ, মক্তব, তাহখানা মাদ্রাসা বিশেষভাবে অন্যতম।

এখানে রয়েছে শাহ নেয়ামতুল্লাহ (রহ:) মাজার শরীফ। ধারণা করা হয়, তিনি ভারত বঙ্গে ইসলাম প্রচার করতে এসে এই সোনামসজিদে থেকে যান। দেশ-বিদেশ হতে প্রতিদিন পর্যটক এসে ভীড় জমায় এখানে। কারুকাজ করা নকশা, পাথর কেটে বিভিন্ন নকশা এবং পোড়া মাটির ফলক দেখে মুগ্ধ হয়ে নিজেকে বাঁধে ছবির ফ্রেমে। এই মসজিদকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠেছে অস্থায়ী লাইব্রেরী এবং ছবির ঘর। সব মিলিয়ে একটি ঐতিহাসিক মসজিদ এটি।

ছবি ও তথ্য সূত্র: http://doinikchoturdik.com এর সৌজন্যে।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...