পৃথিবীর সবথেকে ছোট এক হোটেলের গল্প!

সে এক অন্যরকম হোটেল। যার গল্প শুনলে আপনিও বিস্মিত না হয়ে পারবেন না

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ অনেক হোটেলের কথা আমরা শুনেছি। সেসব আলিসান হোটেলের কথা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিতও হয়েছে। কিন্তু আজ রয়েছে এক ব্যতিক্রমি হোটেলের গল্প। যে হোটেলকে বিশ্বের সবচেয়ে ছোট হোটেল বলা যাবে!

সে এক অন্যরকম হোটেল। যার গল্প শুনলে আপনিও বিস্মিত না হয়ে পারবেন না। জর্দানের এক বেদুঈন হলেন মোহাম্মদ আল মালহিম। তিনি আবু আলী ৬৪ বছর বয়সী মালহিম নামে সমধিক পরিচিত তার এলাকায়।

তবে বিচিত্র এই বিশ্বে তার আরও একটি পরিচয়ও রয়েছে। পৃথিবীর সবথেকে এক ছোট্ট হোটেলের মালিক তিনি! এমনটিই দাবি করেছেন আবু আলী ওরফে মালহিম।

মালহিম তার গাড়ির ইঞ্জিন বসে যাওয়ার পর নিজের গাড়িটাকেই হোটেল বানিয়ে ফেলেছেন। রাস্তার পাশে এই ‘গাড়ি হোটেল’ নিয়ে খদ্দেরের আশায় বসে থাকেন মালহিম। তার হোটেলটি বিশেষ নজর কাড়ার কারণে আয়-রোজগারও খুব একটা খারাপ হয় না। পর্যটকরা কৌতুহলী হয়ে আসেন তার গাড়ি হোটেলটিতে।

মালহিমের দাবি হলো, তার এই গাড়ির আবাস পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট হোটেল হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। তবে যে কেও তার এই হোটেলে থেকেই পাঁচ তারকা হোটেলের ছোঁয়া পাবেন!

আবু আলীর গাড়ি হোটেলে রয়েছে রঙিন বিছানার চাদর ও বালিশ। আরও রয়েছে স্থানীয় ঐহিত্যের এমব্রয়ডারির কাজ করা জিনিসপত্রও।

মালহিমের মেয়ের হাতে তৈরি আসবাবও রয়েছে এই হোটেলটিতে। পাশেই এক গুহায় হোটেল লবি তৈরির ইচ্ছা রয়েছে তার। সেই লবিতে তিনি চা-কফি ও জর্দানের ঐতিহ্যবাহী স্ন্যাকসের ব্যবস্থা রাখবেন বলে জানিয়েছেন সংবাদ মাধ্যমকে। তার হোটেলে এক সঙ্গে কেবল দু’জন অতিথি ঘুমাতে পারবেন। এক রাতের জন্য ভাড়া প্রায় ৬ হাজার টাকার মতো।

জানা গেছে, জর্ডানের মরুভূমিতে আল জাভা নামে যে গ্রামে তার বাড়ি, তার ঠিক কাছে রয়েছে ১২ শতকের এক প্রাচীন দুর্গ। তাই ওই এলাকায় পর্যটকদের সমাগমও ঘটে অনেক বেশি। তাই পর্যটকদের আকর্ষণ করেছে মালহিমের এই বিশেষ হোটেলটি।

Advertisements
Loading...