The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

জি-বাংলার সারেগামাপা’র মঞ্চে নজরুল সংগীত গেয়ে আবারও আলোচনায় নোবেল [ভিডিও]

‘তোকে স্যালুট না করে পারছি না’ -শ্রীকান্ত আচার্য

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভারতের জি-বাংলা চ্যানেলের জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো সারেগামাপা’র মঞ্চে নজরুল সংগীত গেয়ে আবারও আলোচনায় উঠে এলেন বাংলাদেশের মাঈনুল আহসান নোবেল।

জি-বাংলার সারেগামাপা’র মঞ্চে নজরুল সংগীত গেয়ে আবারও আলোচনায় নোবেল [ভিডিও] 1

ইতিপূর্বে জেমসের ‘বাবা’ গানটি গেয়ে পরিচিতি পেয়েছেন বাংলাদেশের মাঈনুল আহসান নোবেল। তিনি আরও গেয়েছেন আইয়ুব বাচ্চুর ‘সেই তুমি কেনো এতো অচেনা হলে’, মাইলসের ‘ফিরিয়ে দাও’সহ বাংলা-হিন্দি আরও অনেক গান এবং রবীন্দ্র সংগীত গেয়ে আলোচনায় উঠে আসেন। তুমুল জনপ্রিয় এইসব গানগুলো নতুন করে আবারও ভাইরাল হয়েছে নোবেলের কণ্ঠে।

বাংলাদেশের নোবেল যেনো কোলকাতার ‘সা রে গা মা পা’-তে এক গুণী প্রতিভা হিসেবে ধরা দিয়েছেন। তার গায়কী নিয়ে সমালোচনা হয়, তর্ক-বিতর্ক হয়েছে ব্যাপক। সেইসব নেতিবাচক মন্তব্যের আগুনে পুড়ে ছাই হয়েছে বারবার জন্ম নিচ্ছেন নোবেল নিজেই।

‘সা রে গা মা পা’র প্রতি পর্বে চ্যালেঞ্জ ও নিজেকে ছাড়িয়ে যাবার পিপাসার মহাসমুদ্র পাড়ি দিয়ে চলেছেন নোবেল। গানে গানে ভাসিয়ে দিচ্ছেন দুই বাংলার গণিত দর্শক-শ্রোতার মন। জয় করে নিচ্ছেন তুমুল জনপ্রিয় প্রতিযোগিতাটির বিচারকদের প্রশংসা ও প্রস্তুতি বাক্য। করপোরেট পপুলারিটি যাই হোক না কেনো, বর্তমানে নোবেল ‘সা রে গা মা পা’র আইকন।

নোবেল রবীন্দ্র সংগীত গেয়েও পেয়েছেন প্রশংসা। সেই ধারাবাহিকতায় এবার তিনি বাজিমাত করলেন বাংলাদেশের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের সংগ্রামী একটি গান গেয়ে।

গত পরশু (শনিবার) দিবাগত রাতে জি বাংলায় প্রচার হওয়া পর্বে নোবেল মঞ্চে হাজির হলেন সাদা পাজামা-পাঞ্জাবীর উপর ঘিয়ে রঙের কোট চাপিয়ে। মাথায় রয়েছে সাদা রঙের টুপি। কাজী নজরুল ইসলাম যে টুপি ব্যবহার করতেন, টিক সেই টুপি।

নোবেলের সঙ্গে মঞ্চে উঠে এলেন একদল বাদক। তাদের বাদ্যের তালে তালে নোবেল গেয়ে শোনান বিদ্রোহী কবির ‘কারার ওই লৌহ কপাট’ সংগ্রামী গানটি। নোবেলের সঙ্গে ছিলো কোরাসের সহশিল্পীরাও।

নোবেলের গান শুরু হলে এই সময় মঞ্চে উপস্থিত দর্শকরা উল্লাস ধ্বনিতে ফেটে পড়েন। বিচারকের আসনে বসা শ্রীকান্ত আচার্য, মোনালি ঠাকুর এবং শান্তুনু মৈত্রকেও দেখা যায় মাথা দুলিয়ে গানটি উপভোগ করতে। গান শেষে তারা নোবেলের গায়কীর ভূয়সী প্রশংসাও করেন।

নোবেলের গান শোনার পর মন্তব্য করতে গিয়ে ‘তোকে স্যালুট না করে পারছি না’ বলে মন্তব্য করেন অনুষ্ঠানের এক বিচারক শ্রীকান্ত আচার্য। তিনি ১৯৭১ এর বাংলাদেশের স্বাধীনতার কথাও স্মরণ করেন।

রাতে গানটি প্রচারের পর পরই মুহূর্তেই সেটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে যায়। জি বাংলার ফেসবুক পেজে গানটিতে লাইক এবং রিঅ্যাক্ট পড়েছে প্রায় লক্ষাধীক। ৫৫ হাজার জনের বেশি শেয়ার দেওয়া ভিডিওটি এ পর্যন্ত দেখেছেন ১৪ লাখের বেশি দর্শক।

প্রায় তিন হাজার মন্তব্য এসেছে। সেখানে প্রশংসার পাশাপাশি রয়েছে কিছু সমালোচনাও। অনেকেই নোবেলের উচ্চারণ, তালের গড়মিল নিয়েও মন্তব্য করেছেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের গোপালগঞ্জে জন্ম নেওয়া নোবেলের গানের সঙ্গে সখ্যতা খুব ছোটবেলা হতেই। কোনো গুরুর কাছে শিক্ষা না নিলেও ইতিপূর্বে বাংলালিংক নেক্সট টিউবার প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সেরা ছয়ে এসেছিলেন নোবেল।

দেখুন নোবেলের গানের ভিডিওটি

https://www.youtube.com/watch?v=RuJfgMBbuoI

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...