The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

নোবেলের তৃতীয় হওয়া নিয়ে যা বললেন জি বাংলার এক কর্মকর্তা

সম্প্রতি ওপার বাংলার জনপ্রিয় সঙ্গীত বিষয়ক রিয়েলিটি শো সারেগামাপাতে বাংলাদেশের নোবেল যৌথভাবে দ্বিতীয় রানার আপ হন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সম্প্রতি ওপার বাংলার জনপ্রিয় সঙ্গীত বিষয়ক রিয়েলিটি শো সারেগামাপাতে বাংলাদেশের নোবেল যৌথভাবে দ্বিতীয় রানার আপ হন। যা নিয়ে দুই বাংলাতেই ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে এবার মুখ খুললেন জি বাংলার এক কর্মকর্তা।

নোবেলের তৃতীয় হওয়া নিয়ে যা বললেন জি বাংলার এক কর্মকর্তা 1

বাংলাদেশের গায়ক মাইনুল আহসান নোবেলকে নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছে জি বাংলার কর্মকর্তা অরিন্দম মুখপাধ্যায়। তিনি ব্যাখা করেছেন নোবেল কেনো যৌথভাবে তৃতীয় হয়েছেন তা নিয়ে। তিনি লিখেছেন যে, নোবেলে হলেন প্রকৃতপক্ষে একজন মনোটোনাস গায়ক। তার গায়কি আসলে ভার্সেটাইল নয়। সে কারণেই নোবেল তৃতীয় হয়েছেন। তিনি লিখেন যে, একজন মোনোটোনাস গায়ককে নিয়ে চরম ফাস্ট্রেশান বাঙালি জনতার। সেই কারণেই অধিকাংশ রিয়েলিটি শোয়ে ডিসার্ভিংরা কখনও জেতে না।

যদি বিচারক না থেকে শুধুই পাবলিক ভোট থাকতো তাহলে নোবেল প্রথম হয়ে যেতো। যাই হোক অনেককেই দেখছি ওকে অরিজিৎ এর সঙ্গে তুলনা করছে। বলছি- আপনাদের কি মাথাটা একেবারেই গেছে? ভারতের এই প্রজন্মের অন্যতম ভার্সাটাইল গায়কের সঙ্গে একজন মোনোটোনাস একঘেয়ে গায়কের তুলনা করেছেন। পারলে গিয়ে বলিউড হাঙ্গামায় বেফিকরে রিলিজের সময় বিশাল, শেখরের ইন্টারভিউটা একবার চালিয়ে দেখুন।

একটি মেয়ে, দুজন অতিমানবীয় পুরুষ কণ্ঠের গান অন স্টেজ একাই ওতরাচ্ছে। এটাতে শক্ত কোনো ধারণা নেই বোধ হয় আপনাদের। সুদেশ ভোঁসলে ও এস পি মিলে একবার অনস্টেজ চতুরনার নামাতে পারেননি। তাল কেটে গেছিলো খুব সামান্য। পরে এডিটিং এ ঠিক করে দেওয়া হয় সেটি। তোশি, হরসিতর নাম নিশ্চয়ই জানেন। রাজস্থানের অতিব গরীব বাড়ির ছেলে সে। রাজ দ্যা মিস্ট্রির, তুঝ মে হ্যায় কুছ অ্যায়সি শুভাসা গানটা মনে আছে নিশ্চয়ই। ওটা তোশি ও তার ভাইয়ের সুর করা এবং তোশির গাওয়া।

মার্ডার ২, হালে দিল হরসিতের গাওয়া ও সুর। এরা কেওই কিন্তু প্রথম হয়নি। অনীক ধরের হিন্দী সারেগামাপায়ে পাকিস্তানের একটি ছেলেও ছিলো। আমানত আলী। সে অনেক বেশি ভার্সাটাইল। বলা যায় অসামান্য গায়কী। তখন কিন্তু কেও বলেননি কিছু। যেহেতু অনীক একজন বাঙালি। একটা গল্প বলে শেষ করি শুনুন, ফেম গুরুকেলে অরিজিৎ কিন্তু ৬ষ্ঠ হয়েছিলো।

কেকে, শঙ্কর মহাদেবণ, জাভেদ আখতার, সব জাজেস এক প্যানেলে। তাদের সামনে দাঁড়িয়ে বেরিয়ে যাওয়ার সময় বলে এসেছিলো, আপনারা যাকে খুশি তাকেই প্রথম করুন। তবে ট্যালেন্ট ওয়াইজ এখানে আমার ধারে কাছে কেও নেই। এই ছিলো তাঁর কনফিডেন্স লেভেল। পরবর্তীকালে শঙ্কর মহাদেবণ নিজে দেখা করে অ্যালবাম করিয়েছিলো ওকে দিয়ে। সুতরাং সকলেই অরিজিৎ সিং হয় না বা হতে পারে না।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...