The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

কাশ্মীরের জীবনযাত্রা স্থবির: পাক-ভারত আলোচনা চায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

জাতিসংঘ মহাসচিব বলেছেন, কাশ্মীরের মানচিত্র বদলের কোনো সুযোগ নেই

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ কাশ্মীর ইস্যুতে মোদির ভাষণের পরও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে পুরো কাশ্মীর অঞ্চলে। কারফিউয়ের কারণে এক স্থবিরতা নেমে এসেছে সেখানকার জনজীবনে।

কাশ্মীরের জীবনযাত্রা স্থবির: পাক-ভারত আলোচনা চায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র 1

কাশ্মীর ইস্যুতে মোদির ভাষণের পরও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে পুরো কাশ্মীর অঞ্চলে। কারফিউয়ের কারণে এক স্থবিরতা নেমে এসেছে সেখানকার জনজীবনে।

এই অবস্থায় পাকিস্তান এবং ভারতের মধ্যে আলোচনা চায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘ মহাসচিব বলেছেন, কাশ্মীরের মানচিত্র বদলের কোনো সুযোগ নেই।

বর্তমানে ভারত শাসিত কাশ্মীরে প্রায় গৃহবন্দী হয়ে পড়েছে সেখানকার মানুষ। অলিগলি হতে মূল সড়ক সবই রয়েছে সেনাদের দখলে। এক কথায় স্থবির জনজীবন। অন্য রাজ্য হতে কাশ্মীরে যাওয়া অনেক গরিব দিনমজুরও পড়েছেন চরম বিপাকে।

এক দিনমজুর বলছেন, ‘কারফিউর কারণে এখানে এখন এক যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে। স্থানীয়রা আমাদেরকে কাশ্মীর ছাড়ার হুমকি দিয়েছেন। কীভাবে সেখানে যাবো কিছুই বুঝতে পারছি না। কয়েকদিন ধরেই না খেয়ে রয়েছি।’

গত বৃহস্পতিবার রাতে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে সাফাই গেয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি দিয়েছেন নানা আশ্বাস।

নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, সম্মিলিতভাবেই কাশ্মীর হতে সন্ত্রাস এবং বিচ্ছিন্নতাবাদের মুলোৎপাটন করা হবে। উন্নয়নের মধ্যদিয়ে পুরো বিশ্বের কাছেই আকর্ষণীয় করতে চাই এই ভূস্বর্গকে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই আবারও রাজ্যের মর্যাদা ফিরতে পারে।

অপরদিকে রাজৌরি সেক্টরে পাক-ভারত সীমান্তরক্ষীদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধও হয়েছে। মোদির সিদ্ধান্তকে আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন- কড়া ভাষায় বলছে পাকিস্তান।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশি বলেছেন, ‘পরিস্থিতি এমন অবস্থা যে প্রতিটি ঘরের দরজাতেই সেনা মোতায়েন করেছে ভারত। পুরো কাশ্মীর যেনো এক কারাগারে পরিণত হয়েছে। আমাদের শঙ্কা পুলওয়ামা স্টাইলে নতুন নাটক সাজাতে পারেন মোদি সরকার।’

এদিকে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর বলছে, এই ইস্যুতে পাক-ভারত মধ্যকার আলোচনাকে স্বাগত জানাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। জাতিসংঘ মহাসচিব সতর্ক করে বলেছেন, নিরাপত্তা পরিষদের রেজ্যুলেশন এবং শিমলা চুক্তি অনুযায়ী কাশ্মীরের মানচিত্র পরিবর্তনের এখতিয়ার কারও নেই।

জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিকও বলেছেন, কাশ্মীরে অতিরিক্ত বলপ্রয়োগের বিষয়ে উদ্বিগ্ন রয়েছেন মহাসচিব। কাশ্মীরে মর্যাদা ক্ষুণ্ন হয় এমন কর্মকাণ্ড হতে বিরত থাকতে পাক-ভারত দুপক্ষকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

শান্তি এবং স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্য সব পক্ষকে সংযত আচরণের আহ্বান জানিয়েছে ওয়াশিংটন। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র মর্গান অর্টাগাস বলেছেন, কাশ্মীর ইস্যুতে পাক-ভারত দুদেশেকেই সরাসরি আলোচনাকে স্বাগত জানাই আমরা।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...