The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

আসছে শীত ফাটবে ঠোট: আপনি কী করবেন?

শীতের সময় বাতাসে আর্দ্রতার পরিমাণ সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে যার ফলে আমাদের ঠোটের ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায় কয়েকগুণ

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আমাদের সমগ্র মুখমন্ডলের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করার সবথেকে আকর্ষিত অংশগুলো আমাদের ঠোট। আমাদের এই ঠোট দ্বারা প্রদর্শিত হয় সুন্দর হাসি যা থেকে আপনার মুখ হয়ে ওঠে হাসিময় এবং ফুটে ওঠে আপনার মুখের আসল সৌন্দর্য।

আসছে শীত ফাটবে ঠোট: আপনি কী করবেন? 1

আমাদের এই মহা মূল্যবান ঠোটকে রক্ষা করার ক্ষেত্রে আমরা ব্যবহার করে থাকি হাজার প্রসাধনী এবং পাশাপাশি নিয়ে থাকে নানারকম পদক্ষেপ যাতে একটু সুন্দর হয়ে ওঠে আমাদের ঠোট পাশাপাশি আমাদের মুখমন্ডল। আসছে শীতে ঠোঁটে নিতে হবে একটু বেশি যত্ন কারণ শীতের সময় বাতাসে আর্দ্রতার পরিমাণ সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে যার ফলে আমাদের ঠোটের ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায় কয়েকগুণ। সে ক্ষেত্রে আমাদের ঠোঁটকে দিতে হবে একটু এক্সট্রা কেয়ার। শীতকালে ঠোঁট ফাটার সমস্যা থেকে শুরু করে ঠোঁটে নানা ধরণের সমস্যা দেখা দেয়। ঠিক একই ভাবে আসছে শীতে আমাদের ঠোঁট পড়তে পারে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে। অতএব আসছে শীতে আমাদের ঠোঁটকে সুন্দর মনমুগ্ধকর করার লক্ষ্যেই আজকের এই আলোচনা।

শীত যেন ওই আসলো বলে এমন অবস্থাতে শুরু হয়ে গিয়েছে হিমেল হাওয়া, বইছে ঠান্ডা বাতা্‌ লাগছে শীতের আমেজ আসছে শীত। চারপাশে চলছে শীতের আগমনের ইশারা। শীতের মধ্যে অনেকেরই ঠোঁট ফাটার ভয় কাজ করে। ঠোঁট ফাটলে অনেক কষ্ট হয় এবং দেখতেও খুবই খারাপ দেখায়। ফাটা ঠোঁট নিয়ে অনেকেই বাইরে বেরোতে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েন। ফাটা ঠোঁটে লিপস্টিক দিল তা যেন আরও খারাপ দেখায় সে ক্ষেত্রে অনেকেই ঠোঁটের যত্ন নেয়ার নানাবিধ কৌশল অবলম্বন করে থাকেন। শীতকালে ঠোঁটের যত্ন একটু বেশি নিতে হয় কারণ শীতে প্রচন্ড ঠোঁট ফাটে ও আমাদের ঠোঁটে নানান রকম সমস্যা দেখা দেয়।

ঠোঁট ফাটার নানাবিধ কারণ গুলোর মধ্যে একটি অন্যতম কারণ হলো রুক্ষতা। তাই ঠোঁটের রুক্ষতা দূর করার মাধ্যমে আমরা আমাদের ঠোঁটের প্রকৃত যত্ন নিতে পারি। ঠোঁটের রুক্ষতা নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষেত্রে ক্রিম বা ভ্যাসলিন ব্যবহার ব্যবহার করা যেতে পারে যাতে আমাদের ঠোঁট শুকিয়ে যাওয়ার আগেই ক্রিম বা ভ্যাসলিন ব্যবহার করা যায় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে । ভ্যাসলিন ব্যবহার করার সময় তা ধাপে ধাপে ব্যবহার করা ভালো যেমন রাতে ঘুমানোর সময় ভ্যাসলিন ব্যবহার করা যেতে পারে এবং সকালে ঘুম থেকে উঠে তা মুছে ফেলতে হবে। রাতে ভ্যাসলিন লাগিয়ে সকালে তা তুলে ফেললে ঠোঁটের মরা চামড়া উঠে যায়।

অনেক ক্ষেত্রে মেয়েরা বাইরে বের হওয়ার আগে লিপস্টিক ব্যবহার করে থাকেন তবে ঠোঁট ফাটা থাকলে সেই লিপস্টিকের রঙ হয়ে যেতে পারে ফ্যকাশে। সে ক্ষেত্রে অবশ্য লিপস্টিক লাগানোর আগে সামান্য প্রস্তুতি নিতে হবে যাতে করে লিপস্টিক দীর্ঘস্থায়ী হয় এবং সুন্দর হয়ে ওঠে। সে ক্ষেত্রে লিপস্টিক লাগানর আগে ঠোটে সামান্য ভ্যাসলিন ব্যবহার করা জেতে পারে। আমাদের মাঝে জাদের ত্বক তৈলাক্ত তারা ভ্যাসলিন এর পরিবর্তে পাউডার ব্যবহার করতে হবে। একবার লিপস্টিক ব্যবহার করে সামান্য পাউডার দিয়ে পুনরায় আবার লিপস্টিক লাগাতে হবে এতে করে আমাদের ঠোটের সুরক্ষা বজায় থাকে।

এছাড়া আমাদের মধ্যে যারা নিয়মিত শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত জায়গায় কাজ করেন তাদের জন্য ভ্যাসলিন খুবই জরুরী। এয়ার কন্ডিশনার আবহাওয়া তে আমাদের ঠোঁটের রুক্ষতা বৃদ্ধি পায়। লিপস্টিক এর ক্ষেত্রে উজ্জ্বল রং ব্যবহার করা বা চকচক রং ব্যবহার করা খুবই উপযোগী এই শীত মৌসুমে। চকচক রঙের লিপস্টিক ব্যবহারের ফলে আমাদের ঠোট দেখাবে উজ্জ্বল এবং ফাটা জনিত সমস্যা গুলো ঢেকে যাবে খুব সহজে।

শরীরের কাপড় সাথে ম্যাচ করে চকচকে রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করা যেতে পারে এতে করে আমাদের ফ্যাশন বজায় থাকবে এবং ঠোঁটের রুক্ষতা ও ফাটা জনিত সমস্যা দেখা যাবে না। লিপস্টিক ব্যবহার করার ক্ষেত্রে আমাদের অবশ্যই মশ্চারাইজার যুক্ত লিপস্টিক ব্যবহার করতে হবে যাতে করে আমাদের ঠোঁট নরম কোমল ও সুন্দর দেখায়। মশ্চারাইজার এর ফলে আমাদের ঠোট পানি হারায় এবং ঠোঁট হয়ে ওঠে শুষ্ক। তাই আমাদের ঠোটের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে ময়েশ্চারাইজারযুক্ত লিপস্টিকের বিকল্প নেই।

Loading...