আপনি যেভাবে আপনার মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়াতে পারেন

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক॥ অফিসে কাজ বা অন্য কোন কাজ করতে করতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন? ভাবছেন, মাথায় আর কিছু ধরছে না? অসুবিধে নেই। আমরা আপনাকে জানাব কিভাবে আপনার মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়াতে পারবেন এবং কিভাবে মস্তিষ্ক সজীব ও সতেজ রাখতে পারবেন। জানতে বিস্তারিত পড়ুন…


mind-power-3

কাজে সামান্য বিরতি নিনঃ কাজ করতে করতে মনে হচ্ছে আপনার মাথায় আর কোন কিছুই আসছেনা? ঠিক আছে তবে এবার একটু বিরতি নিন। এবং মূল কাজের বাইরে অন্য কিছুতে মনোযোগ দেয়ার চেষ্টা করুন। আপনি যখনই কাজ করতে করতে ক্লান্ত বোধ করবেন তখন ল্যাপটপ অথবা মোবাইল থেকে একটু দূরে গিয়ে ফ্রেশ বাতাসে নিশ্বাস নিন দেখবেন অনেকটা হালকা লাগছে, এরপর আবার নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করুন।

কালো চকলেট খেতে পারেনঃ কাজ করতে করতে নিজেকে দুর্বল মনে হলে সামান্য কালো চকলেট খেতে পারেন। চকলেটে রয়েছে “ফ্লাভোনয়েড”। ফ্লাভোনয়েড হচ্ছে একধরণের মস্তিষ্কের ক্ষমতাবর্ধক কেমিক্যাল যা আপনার মস্তিষ্কে নতুন নিউরন কোষ তৈরিতে ভূমিকা রাখে। এছাড়া ফ্লাভোনয়েড আপনার মস্তিষ্কে রক্ত সরবরাহ বাড়ায়।

সুন্দর কোন ছবি দেখুনঃ ছোট শিশু অথবা সুন্দর কোন প্রাণী দেখে কি আপনার ভালো লাগে? তবে তাদের ছবি দেখুন। সুন্দর ছবি দেখার ফলে আপনার মন প্রফুল্ল হয়ে উঠবে এবং আপনি কাজে নতুন উদ্যম পাবেন।

চুইং গাম চিবানঃ বিশেষজ্ঞরা বলেন চুইং গান চিবানোর ফলে আপনার মুখের ব্যাকটেরিয়া কমে এবং আপনার মুখের পেশীর গঠন সুন্দর হয়, তাছারা চুইং গাম চিবানোর ফলে আপনার সচেতনতা বাড়ে। মিন্ট ফ্লেবারের চুইং গাম দুর্বলতা কমায়।

গান শুনুন অথবা গাওয়ার চেষ্টা করুনঃ গান মানুষের রিলাক্সের একটা বিরাট নির্মল বিনোদন। আপনি যদি কাজ করতে করতে বিরক্ত হয়ে পড়েন তবে গান শুতে পারেন অথবা আপনি নিজেই গান গাইতে পারেন এতে করে আপনার মস্তিষ্ক অনেকটা সতেজ হয়ে যাবে।

ভিডিও গেম খেলুনঃ মানুষ একই ধরণের কাজ করতে করতে অনেকটা একঘেয়ে জীবনে হতাশ হয়ে যায়। জীবনে একটু বিনোদন পেতে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ হচ্ছে আপনি ভিডিও গেমস খেলতে পারেন। ভিডিও গেম খেলার ফলে আপনার মস্তিষ্ক অনেকটা রিলাক্স ও শার্প হবে আপনি নতুন উদ্যমে কাজ করতে পারবেন। সাইবার থেরাপি ও টেলিমেডিসিন এর বার্ষিক প্রতিবেদন ২০০৯-এ দেয়া তথ্য অনুযায়ী দুশ্চিন্তা এবং বিষন্নতায় ভোগা গেমারদের মানসিক অবস্থার উন্নতিতে ভিডিও গেম গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ভিডিও গেমের কাল্পনিক শত্রু ঘায়েল করে মানসিক প্রশান্তি অনুভব করেন গেমাররা।

আলোচনা করুন অথবা আড্ডা দিনঃ বিশেষজ্ঞরা বলেছেন আপনি যখন কোন বিশেষ বিষয়ে নিয়ে অথবা বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিবেন এর পর আপনার মস্তিষ্ক অনেক আংশে রিলাক্স হয়ে যায়, ফলে এর পর আপনি রিলাক্স মনে আপনার কাজ করতে পারবেন। মানুষের ঈশ্বর প্রদত্ত একে অপরের সাথে যোগাযোগের ক্ষমতা রয়েছে যা আপনি ব্যাবহার করার মাধ্যমে নিজেকে অনেকটা রিলাক্স করতে পারেন। আপনার যত বেশী সামাজিক যোগাযোগ থাকবে আপনি মানসিক ভাবে ততো বেশী মানুষের সাথে নিজের সমস্যা সমূহ শেয়ার করার মাধ্যমে অনেকটা হালকা ও মানসিক প্রশান্তিতে থাকতে পারবেন।

সূত্রঃ দি টাইমস অফ ইন্ডিয়া

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...