The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

এক দম্পতি রেস্তোরাঁ কর্মীকে নিসান গাড়ি উপহার দিলেন!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আসলে ভাগ্যের লিখন কেও খণ্ডাতে পারে না তা আবারও প্রমাণ হলো। এক মহিলা ওয়েটার প্রতিদিন প্রায় সাড়ে বাইশ’ কিলোমিটার রাস্তা হেঁটে রেস্তোরাঁর কাজে যোগদান করতেন। এই কাহিনী শুনে ওই রেস্তোরাঁয় খেতে আসা এক দম্পতি তাকে একটি নতুন নিসান গাড়ি উপহার দিলেন।

এক দম্পতি রেস্তোরাঁ কর্মীকে নিসান গাড়ি উপহার দিলেন! 1

আসলে ভাগ্যের লিখন কেও খণ্ডাতে পারে না তা আবারও প্রমাণ হলো। এক মহিলা ওয়েটার প্রতিদিন প্রায় সাড়ে বাইশ’ কিলোমিটার রাস্তা হেঁটে রেস্তোরাঁর কাজে যোগদান করতেন। এই কাহিনী শুনে ওই রেস্তোরাঁয় খেতে আসা এক দম্পতি তাকে একটি নতুন নিসান গাড়ি উপহার দিলেন।

এদিকে ওই গাড়িটি হাতে পেয়ে মহিলা ওয়েটার তো বেজায় খুশি। এমন একটি ঘটনা ঘটেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে। এখানকার গালভেস্টনে রেস্তোরাঁ চেন ডেনিসের একটি শাখায় কাজ করেন অ্যাড্রিয়ানা এডওয়ার্ড নামে একজন কর্মী। প্রতিদিন বাড়ি হতে তাঁর কর্মস্থলে আসতে সময় লাগত প্রায় পাঁচ ঘণ্টা! কারণ ওই সাড়ে বাইশ’ কিলোমিটার রাস্তা তিনি হেঁটে হেঁটেই আসতেন।

অ্যাড্রিয়ানা এভাবে কষ্টের মাধ্যমে অর্থ সঞ্চয় করছিলেন। সেই অর্থে তিনি একটি গাড়ি কিনবেন বলে ঠিকও করেছিলেন। গাড়ি কেনার পয়সা জোগাড় না হলেও এখন আর তাঁকে হেঁটে আসতে হয় না। কারণ হলো ক্রেতা দম্পতির কল্যাণে গাড়িতে চড়েই ওই রেস্তোরাঁর কাজে আসতে পারছেন তিনি। তবে ক্রেতা দম্পতি তাঁদের পরিচয় গোপন রাখার শর্ত দিয়েছেন বলে তাঁদের পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

সম্প্রতি ওই দম্পতি রেস্তোরাঁয় খেতে যান। সেখানে তাঁরা অ্যাড্রিয়ানানের এই হেঁটে আসার কাহিনী জানতে পারেন। হেঁটে আসার কথা তাঁদের মানবিকতায় ব্যাপক নাড়া দেয়। তারপরই তাঁরা ঠিক করেন অ্যাড্রিয়ানাকে একটি গাড়ি উপহার দিবেন। সেই মতো তাঁরা ব্রড স্ট্রিটে ক্ল্যাসিক গ্যালভেস্টোন অটো গ্রুপে হাজির হন। সেখান থেকে ‘২০১১ নিসান সেন্ট্রা’ নামের একটি গাড়ি কিনে কয়েক ঘণ্টা পরে ওই রেস্তোরাঁয় আবার ফিরে আসেন। নতুন ওই গাড়ির চাবি তুলে দেন রেস্তোরাঁ কর্মী অ্যাড্রিয়ানার হাতে। গাড়ির চাবি পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে যান রেস্তোরাঁ কর্মী অ্যাড্রিয়ানা।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে অ্যাড্রিয়ানা এক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, আগে যে রাস্তা আসতে তার পাঁচ ঘণ্টা সময় লাগতো এখন সেই রাস্তা তিনি আধা ঘণ্টার মধ্যেই পার হচ্ছেন। এই ঘটনার পর অ্যাড্রিয়ানা-সহ রেস্তোরাঁর সবাই ওই দম্পতিকে অসংখ্য ধন্যবাদও জানিয়েছেন।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...