The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সৃজিতের সঙ্গে বিয়ের পর নাম পাল্টে ফেললেন মিথিলা

ইনস্টাগ্রামে নতুন স্বামীর সঙ্গে হাস্যেজ্জ্বল একটি ছবি পোষ্ট করে তাতে লিখেছেন, ‘মিসেস রশিদ মুখার্জি’

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ অনেক জল্পনার অবসান ঘটিয়ে বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা ও কোলকাতার চিত্র পরিচালক সৃজিত মুখার্জির। এখন তিনি ‘মিসেস রশিদ মুখার্জি’।

সৃজিতের সঙ্গে বিয়ের পর নাম পাল্টে ফেললেন মিথিলা 1

বিয়ের পরপরই যেনো একেবারেই পাল্টে গেলেন বাংলাদেশী এই অভিনেত্রী মিথিলা। গান, অভিনয় ও মডেলিংর মাধ্যমে পরিচিতি পাওয়া ব্যক্তিত্ব এখন পশ্চিমবঙ্গের বউ। এই বউ হতে গিয়ে পাল্টে ফেলেছেন পূর্বের রাফিয়াথ রশিদ মিথিলা নামটি। গত ৬ ডিসেম্বর কোলকাতার চিত্র পরিচালক সৃজিত মুখার্জিকে বিয়ে করার পর সামাজিক মাধ্যমে নিজের নতুন নাম প্রকাশও করেছেন।

ইনস্টাগ্রামে নতুন স্বামীর সঙ্গে হাস্যেজ্জ্বল একটি ছবি পোষ্ট করে তাতে লিখেছেন, ‘মিসেস রশিদ মুখার্জি’। ক্যাপশনে লিখেছেন ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস রশিদ মুখার্জি।’

বিয়ের পর এই নাম পাল্টে ফেলে ভক্তদের ব্যাপক সমালোচনার শিকার হয়েছেন এই অভিনেত্রী। অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন যে বিয়েটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার, তবে নাম পাল্টানোটা কি খুব বেশি জরুরি বিষয় ছিলো?

এই বিষয়ে মিথিলা অবশ্য এখনও কোনও প্রতিক্রিয়া দেখাননি। মিথিলা চলে গেছেন সুইজারল্যান্ডের জেনেভায়। সেখানে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডির রেজিস্ট্রেশন করবেন তিনি। পাশাপাশি একটু বেড়ানোর পরিকল্পনাও রয়েছে এই নতুন দম্পতির। সব মিলিয়ে সেখানে তারা থাকবেন এক সপ্তাহের মতো। নাম পাল্টানোর ব্যাপারে কে কি ভাবলো, বা না ভাবলো, সেদিকে আপাতত কোনও মনোযোগই নেই মিথিলার।

খুব ছোটবেলা থেকেই মেধাবী মিথিলা রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে। ব্রাক ইউনিভার্সিটি হতে আর্লি চাইল্ডহুড ডেভলপমেন্ট-এ দ্বিতীয় স্নাতকোত্ত সম্পন্ন করেন মিথিলা।

পড়াশোনার পাশাপাশি কত্থক, মণিপুরী ও ভরতনাট্যমের প্রশিক্ষণও নিয়েছেন এই অভিনেত্রী। নজরুলগীতির সুগায়িকা মিথিলার অন্যতম শখই হলো- ছবি আঁকা ও অভিনয় করা। শিশুশিল্পী হিসেবেও অভিনয় করেছেন পিপলস থিয়েটার গ্রুপে। ২০০২ সালে শুরু হয় তার মডেলিং ক্যারিয়ার। তারপর বাংলাদেশের বেশ কিছু প্রথম সারির সংস্থার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডার হন মিথিলা।

মডেলিং করা অবস্থাতেই আসে অভিনয়ের সুযোগ। মিথিলার অভিনয়ে হাতেখড়ি মিউজিক অ্যালবামের মাধ্যমে। তারপর টেলিফিল্ম ও নাটকে অভিনয় করেন। মিথিলার অভিনীত টেলিফিল্মগুলি বেশ জনপ্রিয় হয় সেই সময়।

তবে এই পরিচয় অভিনেত্রী-মডেল-গায়িকার পাশাপাশি মিথিলা একজন সমাজকর্মীও বটে। মিথিলা ব্রাক ইন্টারন্যাশনাল-এর আর্লি চাইল্ডহুড ডেভলপমেন্ট প্রোগাম-এর প্রধান। গত ১১ বছর ধরে মিথিলা এই বিষয় নিয়েই কাজ করছেন। এশিয়া এবং আফ্রিকার বহু দেশে তিনি শিশুদের উন্নয়ন এবং বিকাশ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশেও তিনি নারী ও শিশু অধিকার আন্দোলনের অন্যতম একজন মুখ।

উল্লেখ্য, দেশের জনপ্রিয় অভিনেতা ও গায়ক তাহসানের সঙ্গে মিথিলার প্রথম বিয়ে হয়। তারপর তাদের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...