The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ইরানের সাংসদের ট্রাম্পের মাথার দাম নির্ধারণ!

পুরো বিশ্ব জুড়ে যেনো যুদ্ধাতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। বিশ্ব ব্যাপি তৃতীয় বিশ্ব যুদ্ধের আশংকা দানা বেধে উঠেছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যা করার জন্য পুরস্কার ঘোষণা করলো ইরানের এক আইনপ্রণেতা। যে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যা করবে তাকে ৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (৩০ লাখ) অর্থ পুরস্কার দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

ইরানের সাংসদের ট্রাম্পের মাথার দাম নির্ধারণ! 1

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যা করার জন্য পুরস্কার ঘোষণা করলো ইরানের এক আইনপ্রণেতা। যে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যা করবে তাকে ৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (৩০ লাখ) অর্থ পুরস্কার দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

সংবাদ মাধ্যমের এক খবরে জানা যায়, ইরানের পার্লামেন্টে ট্রাম্পের মাথার দাম নির্ধারণ করে সাংসদ আহমদ হামজাহ বলেন, যে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যা করবে তাকে ৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (৩০ লাখ) অর্থ পুরস্কার দেওয়া হবে।

গতকাল (মঙ্গলবার) ইরানের পার্লামেন্টের অধিবেশন চলাকালে এমন বিস্ফোরক ঘোষণা দিয়েছেন আহমদ হামজাহ। দেশটির কারমান প্রদেশের সাংসদ আহমদ হামজেহ বলেছেন, যে ট্রাম্পকে হত্যা করবে তার হাতে আমরা এই পরিমাণ নগদ অর্থ তুলে দেবো।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা যায়, ইরানের রাজধানী তেহেরানের দক্ষিণে কারমান প্রদেশের অবস্থান। ইরানের জেনারেল কাসেম সোলাইমানির জন্মস্থান এই প্রদেশেই। প্রদেশটির সাংসদ আহমদ হামজেহ আরও বলেছেন, আজ যদি আমাদের পারমাণবিক অস্ত্র থাকতো তাহলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হুমকির হাত থেকে রক্ষা পেতাম। আমাদের এখন উচিৎ দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রের উৎপাদন চালিয়ে যাওয়া। যে ক্ষেপণাস্ত্রগুলো মূলত যুদ্ধক্ষেত্র ওয়ারহেড বহন করতে পারবে। এটি আমাদের খুব স্বাভাবিক অধিকার।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিরস্ত্রীকরণবিষয়ক দূত রবার্ট উড এই ধরনের পুরস্কার ঘোষণাকে ‘হাস্যকর’ বলে তা উড়িয়ে দিয়েছেন। তবে ইতিপূর্বেও ইরানের শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নিহত হওয়ার পর প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মাথার বিনিময়ে ৮০ মিলিয়ন ডলারের পুরস্কার ঘোষণা করা হয়।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক হামলায় ইরানের কুদস বাহিনীর ক্ষমতাধর জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যা করা হয়। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশেই সোলাইমানিকে হত্যা করা হয়। এই হত্যাকাণ্ডের পর ইরান এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে নতুন করে ব্যাপক উত্তেজনা শুরু হয়েছে। পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করা হচ্ছে বার বার। এই ঘটনার জেরে পুরো বিশ্ব জুড়ে যেনো যুদ্ধাতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। বিশ্ব ব্যাপি তৃতীয় বিশ্ব যুদ্ধের আশংকা দানা বেধে উঠেছে।

Loading...