The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

স্মার্টফোন এবার নগ্ন সেলফি তুলতে দেবে না!

সেলফির যুগ আসার পর যার যেমন খুশি সেভাবে সেলফি তুলে তা পোস্ট করা হয়। যে কারণে সমাজে নানা রকম অশান্তি সৃষ্টি হয়

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সেলফির যুগ আসার পর যার যেমন খুশি সেভাবে সেলফি তুলে তা পোস্ট করা হয়। যে কারণে সমাজে নানা রকম অশান্তি সৃষ্টি হয়। তবে এবার সেটি বোধহয় আর হচ্ছে না। স্মার্টফোন এবার নগ্ন সেলফি তুলতে দেবে না!

স্মার্টফোন এবার নগ্ন সেলফি তুলতে দেবে না! 1

সেলফির যুগ আসার পর যার যেমন খুশি সেভাবে সেলফি তুলে তা পোস্ট করা হয়। যে কারণে সমাজে নানা রকম অশান্তি সৃষ্টি হয়। তবে এবার সেটি বোধহয় আর হচ্ছে না। স্মার্টফোন এবার নগ্ন সেলফি তুলতে দেবে না!

স্মার্টফোন এবার ব্যবহারকারীদের নিরাপদ রাখতে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই নগ্ন সেলফি তুলতে বাধা দেবে। ছবি তোলার সময় কেও নগ্ন হলেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যাবে স্মার্টফোনের ক্যামেরাটি! অশ্লীল ছবিও সংরক্ষণ করা যাবে না স্মার্টফোনটিতে!

শুধু তাই নয়, অভিভাবকরাও দূর থেকে স্মার্টফোনটির বিভিন্ন কার্যক্রম সম্পর্কে খুব সহজেই জানতে পারবেন। সে জন্য স্মার্টফোনটিতে নতুন করে কোনো অ্যাপ কিংবা এক্সটেনশন ইনস্টল করার প্রয়োজন পড়বে না।

শিশু-কিশোরদের জন্য ‘টোন ই২০’ মডেলের একটি স্মার্টফোনটি তৈরি করেছে জাপানের টোন মোবাইল কোম্পানি। প্রতিষ্ঠানটির তৈরি নতুন অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন ‘ই২০’তেই ব্যবহার করা হয়েছে এই ‘নগ্ন সেলফিরোধী’ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা।

প্রতিষ্ঠানটির দাবি হলো, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে অশ্লীল ছবি শনাক্ত করে সেগুলো ব্লক করতে পারে এই স্মার্টফোনটি। অশ্লীল ছবি তুলতে বাধা দেওয়ার পাশাপাশি অভিভাবকদের কাছেও সতর্কবার্তা পাঠাবে এই নতুন স্মার্টফোনটি।

টোনের তৈরি ‘ই২০’ মডেলের স্মার্টফোনটি মূলত ‘বাজেট ফোন’ বা সাশ্রয়ী দামের ফোন বলা যায়। ৬.২৬ ইঞ্চি পর্দার স্মার্টফোনটিতে রয়েছে ‘ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ’ ও ‘স্মার্টফোন সুরক্ষা’ ফিচারও।

স্মার্টফোনটির অ্যালগরিদম যদি বুঝতে পারে এরকম ধরনের কোনো সেলফি তোলা হচ্ছে, তাহলে ওই ছবি গ্যালারিতে সেভ করতেই দেবে না স্মার্টফোনটি। জাপানের তরুণ সমাজের কথা মাথায় রেখেই তৈরি করা হয়েছে এমন একটি স্মার্টফোন। চাইলে ই২০ স্মার্টফোনটিকে সংযুক্ত করে নেওয়া যাবে অন্য ফোনের সঙ্গে। এতে করে এই ধরনের কোনো ছবি তোলার চেষ্টা করা হলে খুব সহজেই অভিভাবক কিংবা বাবা-মাকে সঙ্গে সঙ্গে সতর্ক করা সম্ভব হবে।

উল্লেখ্য যে, ছবির কনটেন্ট বুঝতে পারে এমন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি সাধারণত ফেইসবুক এবং গুগলের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যবহার করে থাকে। নিজেদের প্ল্যাটফর্ম হতে অবৈধ কনটেন্ট সরিয়ে দিতেই এই ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করে থাকে বড় মাপের এইসব প্রতিষ্ঠানগুলো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...