The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

করোনা আক্রান্তের পরামর্শ: ‘অসামাজিক’ হয়ে যান

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ওই ব্যক্তির নাম কেভিন হ্যারিস

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের দাপটে কাঁপছে সারা বিশ্ব। এই ভাইরাসের ছোবল হতে বাঁচতে নানা ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হলেও কাজ হচ্ছে না। তাই এক করোনা রোগী বলেছেন, ‘অসামাজিক’ হয়ে যান! করোনা হতে বাঁচতে প্রস্তুতির অংশ হিসেবে সাধারণ মানুষের জন্য এক সতর্কবার্তা দিয়েছেন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত জনৈক রোগী।

করোনা আক্রান্তের পরামর্শ: ‘অসামাজিক’ হয়ে যান 1

প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের দাপটে কাঁপছে সারা বিশ্ব। এই ভাইরাসের ছোবল হতে বাঁচতে নানা ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হলেও কাজ হচ্ছে না। তাই এক করোনা রোগী বলেছেন, ‘অসামাজিক’ হয়ে যান! করোনা হতে বাঁচতে প্রস্তুতির অংশ হিসেবে সাধারণ মানুষের জন্য এক সতর্কবার্তা দিয়েছেন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত জনৈক রোগী।

ভারতীয় একটি গণমাধ্যমের খবরে বলা হয় যে, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ওই ব্যক্তির নাম কেভিন হ্যারিস (৫৫)। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সি অঙ্গরাজ্যের ডোভার শহরের ওয়ারেন এলাকার মাপ্সি হেলথ সেন্ট জোসেফ হাসপাতালে তার চিকিৎসা করা হচ্ছে।

গত শুক্রবার রাতে হাসপাতালের বেড হতে ফেসবুক লাইভ করেন হ্যারিস। সেখানে তিনি জানিয়েছেন, ২ মার্চ হতে তার উপসর্গ দেখা দেয়। তখন খুব সামান্য কাশি ছিল। এরপরই শুরু হয়ে যায় গা-হাত-পায়ে ব্যাথা এবং জ্বর। তবে গলা ভাঙা বা সর্দি কিছুই ছিল না তার। তিনি ভাবছিলেন ফ্লু হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ‘রাতে কাশি হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত আমার কোনো উপসর্গই ছিল না। সেই ছিলো প্রথম লক্ষণ। এর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই অবস্থা খুব খারাপ হতে থাকে। সকালে ঘুম ভাঙার সময় শুধু মনে হচ্ছিল আমি যেনো মরে যাচ্ছি।’

হার্ট অ্যাটাক হয়েছে বলে মনে হয়েছিল হ্যারিসের। ৮ মার্চ এক বন্ধু তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে দেন। ১১ মার্চ তার করোনা ভাইরাস ধরা পড়ে। ওহিয়োতে তিনি পঞ্চম ব্যক্তি যিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত।

হ্যারিস মানুষকে সতর্ক করে ‘সামাজিক দূরত্ব’ বজায় রাখার জন্য জোর দিতে বলেছেন। তিনি বলেছেন, ‘জনসমাগমে মোটেও যাবেন না। কারও সঙ্গে হ্যান্ডশেক করবেন না। এমনকি আলিঙ্গন করবেন না। ঘন ঘন হাত ধুয়ে ফেলুন। শিশুদেরও মোটেও চুম্বন করবেন না। চারপাশে কয়েক হাজার মানুষ এই ভাইরাসটি বহন করছে। তারা হয়তো নিজেরাও তা জানেন না। মানুষের অন্যান্য লোকেদের থেকে দূরে থাকা দরকার। তিনি বলেছেন “সামাজিক দূরত্ব” রাখতে, আমি বলছি প্রয়োজনে “অসামাজিক” হয়ে যান।’

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...