The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সালমা দুধ ও রান্না করা খাবার বিতরণ করছেন

করোনায় বাইরে বের হতে না পারায় ফুরিয়ে গেছে অনেকের ঘরের খাবার

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসে কাঁপছে পুরো বিশ্ব। বাংলাদেশের মানুষও ভাইরাসের কারণে এখন গৃহবন্দি। দিনমজুররা পড়েছেন মহা বিপদে।

সালমা দুধ ও রান্না করা খাবার বিতরণ করছেন 1

করোনায় বাইরে বের হতে না পারায় ফুরিয়ে গেছে অনেকের ঘরের খাবার। এমন দুর্দিনে সেই সব দু:স্থ মানুষদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছে সরকার ও সাধারণ মানুষও। বেসরকারি ও ব্যক্তি উদ্যোগেও সহায়তা কার্যক্রম এগিয়ে চলেছে। এগিয়ে এসেছেন বিনোদন জগতের তারকারাও।

অসচ্ছল মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী মৌসুমী আক্তার সালমা। অ্যাডভোকেট স্বামী সানাউল্লাহ নূর সাগরকে নিয়ে মানবসেবা করতে সাফিয়া ফাউন্ডেশনও গড়েছেন গায়িকা। নিয়মিত সুবিধা বঞ্চিত মানুষদের জন্য কাজ করে থাকে এই ফাউন্ডেশনটি।

ইতিমধ্যে রাজধানীর হাজারীবাগ এবং জিগাতলা এলাকার ২০০ পরিবারের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেছেন এই দম্পতি। শহরের ভাসমান মানুষদের জন্য রান্না করা খাবার বিতরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সাফিয়া ফাউন্ডেশন। যাদের কোনো ঘরবাড়ি নাই, রাস্তার পাশে ঘুমাই তাদের এইসব রান্না করা খাবার দেবে এই ফাউন্ডেশন।

এই বিষয়ে সালমা বলেছেন, ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকার গৃহহীন অসহায় মানুষদের মধ্যে রান্না করা খাবার বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেছি। প্রতিদিন পথের অন্তত ৫০ জন লোকের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হবে। রবিবার বিকেল হতে এই কার্যক্রম শুরু করছি। কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে যতোদিন করোনা পরিস্থিতি থাকে।’

রান্না করা খাবারের পাশাপাশি অসচ্ছল পরিবারের শিশুদের জন্য নিয়মিত দুধ বিতরণেরও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে সাফিয়া ফাউন্ডেশন। ৩/৪ দিনের মধ্যেই এই কার্যক্রম শুরু করবেন বলে জানিয়েছেন সালমা।

তিনি আরও জানিয়েছেন, বাড়ির শিশুদের জন্য দুধের প্রয়োজন হলে তাৎক্ষণাত নক করতে হবে সাফিয়া ফাউন্ডেশনের পেজে। যারাই নক করবেন, তাদের বাড়িতে দুধ পৌঁছে দেওয়া হবে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...