The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

৮ এপ্রিল দেখা যাবে ‘সুপার পিঙ্ক মুন’

পৃথিবী এবং চাঁদের মধ্যবর্তী গড় দূরত্ব ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৪০০ কিলোমিটার

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ চলতি বছরের বৃহত্তম গোলাপি চাঁদ (যাকে বলা হয় সুপার পিঙ্ক মুন) দেখা যাবে এপ্রিল মাসেই। ৮ এপ্রিল বাংলাদেশ সময় ৮টা ৩৫ মিনিটে দেখা যাবে এই নান্দনিক দৃশ্যটি।

৮ এপ্রিল দেখা যাবে ‘সুপার পিঙ্ক মুন’ 1

আমরা অনেকেই জানি পৃথিবী এবং চাঁদের মধ্যবর্তী গড় দূরত্ব ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৪০০ কিলোমিটার। তবে এদিন চাঁদের গোলাপি আভা দেখা যাবে পৃথিবী হতে ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৯০৭ কিলোমিটার দূর হতে। অর্থাৎ ওইদিন পৃথিবী হতে চাঁদের দূরত্ব ২৭ হাজার ৪৯৩ কিলোমিটার কমে যাবে।

চাঁদ দেখতে যারা ভালোবাসেন, তাদের জন্য এই সুপারমুন একটি বিশেষ উপহার। চলতি বছরের উজ্জ্বলতম ও বৃহত্তম পূর্ণিমা হতে চলেছে এটি। এপ্রিলের এই সুপারমুনকে ডাকা হচ্ছে গোলাপি চাঁদ নামেই।

সুপারমুন আসলে কী

সুপারমুনের (supermoon) কক্ষপথ পৃথিবীর অত্যন্ত নিকটতম। আমাদের গ্রহ হতে এই নিকটতম দূরত্বের কারণেই চাঁদকে অনেক বড় ও উজ্জ্বল দেখায়। এই মাসের সুপার পিঙ্ক মুন আমাদের গ্রহ হতে ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৯০৭ কিলোমিটার দূরে থাকছে।

তবে পূর্ণিমা হলেও যে সুপারমুন হবে, তা অবশ্য নয়। কারণ চাঁদ পৃথিবীর চারপাশে একটি উপবৃত্তাকার কক্ষপথে ঘরে থাকে। আমাদের গ্রহ হতে আরও অনেক দূরে থাকলেও পূর্ণিমার পূর্ণ চাঁদ দেখা যেতে পারে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিডিয়া ওয়েবসাইট সিনেট-এর একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী জানা যায়, ৮ এপ্রিলের সুপারমুন এই বছরের সবচেয়ে বড় এবং উজ্জ্বলতম একটি সুপারমুন হবে।

একে গোলাপি চাঁদ বলার কারণ কী?

পূর্ণিমার চাঁদের নামকরণের বিষয়টি সাধারণত আমেরিকান অঞ্চল ও ঋতুগুলোর ওপর নির্ভর করে থাকে। প্রতিবেদনের তথ্যানুযায়ী জানা যায়, ‘গোলাপি চাঁদ’ নামটি গোলাপি ফুলের (Phlox subulata) নামের ওপর ভিত্তি করে দেওয়া হয়েছে। এই ফুল উত্তর আমেরিকার পূর্ব দিকে বসন্তকালে ফোটে ও এটি মোটেও চাঁদের মতো রঙ নয়। পুরো গোলাকার চাঁদকে স্প্রাউটিং গ্রাস মুন, এগ মুন ও ফিশ মুন নামেও ডাকা হয়ে থাকে।

২০২০ সালের শেষ সুপারমুন কখন দেখা যায়

২০২০ সালের শেষ সুপারমুন ৯ মার্চ হতে ১১ মার্চের মধ্যে দেখা গিয়েছিল। মার্চের ওই সুপারমুনকে ডাকা হয় ‘সুপার ওয়ার্ম মুন (Worm Moon)’ নামে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...