The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

লকডাউনে প্রেমিককে বিয়ের জন্য ৬০ কি.মি পথ পাড়ি দিলেন তরুণী!

বিয়ের প্রস্তাব দেওয়ার পরও সে সম্পর্ক নিয়ে বেঁকে বসেছিল উভয় পরিবারই

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ লুকিয়ে বিয়ে করাতে কারও সায় ছিল না। একে অপরের ভালোবাসার কথা তাই পরিবারকে জানিয়েছিলেন তারা। তবে তাতেও কাজ হয়নি। তাই লকডাউনে প্রেমিককে বিয়ের জন্য ৬০ কি.মি পথ পাড়ি দিলেন তরুণী!

লকডাউনে প্রেমিককে বিয়ের জন্য ৬০ কি.মি পথ পাড়ি দিলেন তরুণী! 1

বিয়ের প্রস্তাব দেওয়ার পরও সে সম্পর্ক নিয়ে বেঁকে বসেছিল উভয় পরিবারই। যে কারণে বাধ্য হয়েই পালিয়ে বিয়ের দিন ক্ষণ প্রায় যখন নিশ্চিত হয়েছে, ঠিক তখনই আরও বড় বাধা এসে উপস্থিত হলো সামনে। সারা দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণা করে দিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

তাহলে উপায় কী? এতোদিন নিরুপায় হয়েই ঘরবন্দি ছিলেন ওই দুই প্রেমিক-প্রেমিকা, ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের কৃষ্ণা জেলার হনুমান জাংশনের চিতিকলা ভবানী ও তার ঠিক পাশের গ্রামের তরুণ সাই পুণ্যায়া। এদিকে লকডাউনের মেয়াদও আবার বাড়াতে পারে, তাই বাধ্য হয়েই ৬০ কিলোমিটার পথ হেঁটে প্রেমিকের কাছে গিয়ে গত বৃহস্পতিবার বিয়েটা সেরে ফেললেন চিতিকলা।

তবে তাতেও তাদের ভালোবাসার হ্যাপি এন্ডিং হয়নি। সূত্রের খবর হলো, মেয়েকে বাড়িতে দেখতে না পেয়ে থানায় নিখোঁ’জ ডায়েরি করেন চিতিকলার পরিবার। তারা যখন বাড়ির মেয়ের কান্ডের কথা জানতে পারেন, নবদম্পতিকে রীতিমতো হুমকি দিতেও শুরু করে বলে অভিযো’গ চিতিকলা ও পুণ্যায়ার। নিরাপত্তা চেয়ে আপাতত পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন নবদম্পতি।

পুলিশ সূত্রের খবর, চিতিকলা ও পুণ্যায়ার দীর্ঘ ৪ বছরের সম্পর্ক। সম্প্রতি তারা তাদের সম্পর্কের কথা বাড়িতে জানিয়েছেন। তবে দুই বাড়ি হতেই কেও সেটি মানতে চাননি। যে কারণে তারা পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করবেন বলে স্থির করেছিলেন। তবে লকডাউন শুরু হয়ে যাওয়ায় সে উপায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো। এখন লকডাউনের মেয়াদ আরও বাড়তে পারে এই আশঙ্কা করেই দুজনেই চটজলদি বিয়ে করে নেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

এলাকার রাস্তায় কোনও যানবাহন নেই। তাই বাধ্য হয়েই ৬০ কিলোমিটার পথ হেঁটে প্রেমিকের কাছে পৌঁছান চিতিকলা। অন্ধ্রপ্রদেশ পুলিশ জানিয়েছে যে, দুজনেই সাবালক, তাই পরিবারের অভিযোগের বিরুদ্ধে কোনও আইনি ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব নয়। উভয় পরিবারকে থানায় ডেকে কাউন্সেলিং করা হয় এবং বিষয়টি মেনে নেওয়া কথা বলা হয়।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...