The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ইতালিতে ত্রাণ নিয়ে মাফিয়ারাও এগিয়ে এসেছে!

এমন এক পরিস্থিতিতে চমকে দেওয়ার মতো দাবি করেছেন ইতালির মাফিয়া বিশেষজ্ঞ ও লেখক রবার্তো স্যাভিয়ানো

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতি করোনায় বিধ্বস্ত ইউরোপের দেশ ইতালি। দেশটির প্রায় দেড় লক্ষ মানুষ করোনায় আক্রান্ত। মৃতের সংখ্যা প্রায় ১৯ হাজার। ইতালিতে ত্রাণ নিয়ে এবার মাফিয়ারাও এগিয়ে এসেছে!

ইতালিতে ত্রাণ নিয়ে মাফিয়ারাও এগিয়ে এসেছে! 1

করোনার দাপটে কার্যত স্তব্ধ হয়ে পড়েছে ইতালির অর্থনীতি। কাজ হারিয়েছেন দেশটির বহু মানুষ, সমাজের সবথেকে দরিদ্ররা অভুক্ত থাকছেন।

এমন এক পরিস্থিতিতে চমকে দেওয়ার মতো দাবি করেছেন ইতালির মাফিয়া বিশেষজ্ঞ ও লেখক রবার্তো স্যাভিয়ানো। তার দাবি হলো, কঠিন সময়ে ইতালির গরিব মানুষের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছে দেশটির বিভিন্ন মাফিয়া গোষ্ঠীগুলো। খাবারের পাশাপাশি মানুষের কাছে দৈনন্দিন প্রয়োজনের জরুরি সামগ্রীও পৌঁছে দিচ্ছে ওইসব মাফিয়া দলগুলো।

প্রাথমিকভাবে মাফিয়া গোষ্ঠীগুলোর এই কাজের পেছনে মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে বলে মনে হওয়াটা খুব স্বাভাবিক। তবে মাফিয়া বিরোধী লেখক হিসেবে পরিচিত স্যাভিয়ানোর দাবি করেছেন, এর পেছনে হয়তো অন্য কৌশল রয়েছে মাফিয়া গোষ্ঠীগুলোর। বিপদের সময়ে গরিব মানুষের সহায় হয়ে আসলে পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে গোটা ইতালিতে নিজেদের আধিপত্য আরও বাড়িয়ে নিতে চাইছেন মাফিয়া গোষ্ঠিগুলো। এমন কী মাফিয়া গোষ্ঠীগুলোর নির্দেশে দক্ষিণ ইতালির রাজধানী নেপলসে সুদের কারবারিরা বিনা সুদে মানুষকে ঋণ দিচ্ছে বলেও দাবি এই মাফিয়া বিশেষজ্ঞর।

শুধুমাত্র তাই নয়, আরও একটি বিষয়েও সতর্ক করেছেন ইতালির এই মাফিয়া বিশেষজ্ঞ। তার দাবি হলো, অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের ধাক্কায় ইতালির বহু ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানই বর্তমানে বেসামাল। ইউরোপের অন্যান্য দেশগুলো হতে সাহায্য না করলে খুব শীঘ্রই টাকা ঢেলে এই ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো ও মাফিয়া সংগঠনগুলো নিজেদের কব্জায় নিয়ে নেবে বলেই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন মাফিয়া বিশেষজ্ঞ রবার্তো।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...