The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

বাবাকে রোগী সাজিয়ে লক’ডাউনে অ্যাম্বুলেন্সে বিয়ে!

এমন একটি ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের মুজফ্‌ফরনগরে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ লকডাউন চলা অবস্থাতেও দুনিয়ায় ঘটছে নানা ঘটনা। যেমন ঘটলো বিয়ের ঘটনা। বাবাকে রোগী সাজিয়ে লক’ডাউনে অ্যাম্বুলেন্সে বিয়ের ঘটনা ঘটেছে!

বাবাকে রোগী সাজিয়ে লক’ডাউনে অ্যাম্বুলেন্সে বিয়ে! 1

এমন একটি ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের মুজফ্‌ফরনগরে। আহমেদ নামে এক মুসলিম যুবক (২৬) বাবাকে রোগী সাজিয়ে উত্তরপ্রদেশ থেকে দিল্লি গিয়েছিলেন বিয়ে করার জন্য।

দিল্লির এক তরুণীর সঙ্গে বিয়ের কথা হয় তার। লক’ডাউনের মধ্যে সকলেই ভেবেছিলেন বিয়ে বাতিল করবেন। তবে পাত্র ফেঁদে বসলো অভিনব এক পরিকল্পনা।

আহমেদ ভাড়া করেছিলো একটি অ্যাম্বুলেন্স। রোগী সাজিয়ে বাবাকে তুলে নিলেন তিনি সেই অ্যাম্বুলেন্সে। লক’ডাউন অগ্রাহ্য করে পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে উত্তরপ্রদেশ হতে দিল্লি পৌঁছে গেলেন তিনি। চার হাত এক হলো তাদের। তারপরই ওই অ্যাম্বুলেন্সে চড়ে বাবা এবং নববধূকে নিয়ে বাড়ি ফিরে আসলেন আহমেদ।

পুলিশের চোখে ধুলো দিলেও বিয়ের ব্যাপারটি প্রতিবেশীদের কাছে ঢাকা দিতে পারেনি ওই যুবক। খাতৌলি করোনার হটস্পট হিসাবে চিহ্নিত। তার উপর আবার দিল্লি হতে তরুণীকে বিয়ে করে বাড়িতে নিয়ে এসেছেন যুবক। তাই করোনা সংক্রমণের আশঙ্কায় কাঁটা এলাকার প্রায় সকলে।

প্রতিবেশীদের দাবি, এর আগেও অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে লক’ডাউনের মধ্যে দিল্লি পাড়ির চেষ্টা করেছিল এই যুবক। তবে সেবার তার পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়ে যায়। এবার ঠিকই তার বিয়ে হলো।

তবে শেষ পর্যন্ত আইনের হাতে ধরা পড়লো যুবক। প্রতিবেশীরা পুলিশকে গোটা ঘটনাটি জানিয়ে দেয়। পুলিশ খবর পাওয়ামাত্রই ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। সঙ্গে ছিলেন বেশ কয়েকজন স্বাস্থ্যকর্মীও। তারা ওই যুবকের পরিবারের সকলের এবং নববধূর করোনা পরীক্ষা করানো হয়।

সংবাদ প্রতিদিন এর এক খবরে বলা হয়েছে, এখনও কারও রিপোর্ট হাতে এসে পৌঁছায়নি। পুলিশ ওই অ্যাম্বুলেন্স চালকের বিরুদ্ধেও ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮ ধারায় মামলা দায়ের করেছে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...