The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

বিপজ্জনক ও নতুন পর্যায়ে করোনা- ডব্লিউএইচও

গত বৃহস্পতিবার একদিনে বিশ্বে কোভিড-১৯ পজিটিভ হিসেবে শনাক্তের সংখ্যা ছিল দেড় লাখ

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বৈশ্বিক মহামারি প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের বিস্তার আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, বিপজ্জনক ও নতুন পর্যায়ে এসেছে করোনা।

বিপজ্জনক ও নতুন পর্যায়ে করোনা- ডব্লিউএইচও 1

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) জানিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার একদিনে বিশ্বে কোভিড-১৯ পজিটিভ হিসেবে শনাক্তের সংখ্যা ছিল দেড় লাখ। ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব শুরুর পর একদিনে বিশ্বের এতো মানুষ সংক্রমিত হিসেবে শনাক্ত হতে দেখা যায়নি।

ডব্লিউএইচও মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গ্যাব্রিয়েসুস শুক্রবার এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য দিয়ে বলেছেন, ‘গোটা বিশ্ব এখন একটি নতুন ও বিপজ্জনক পর্যায়ে রয়েছে করোনা। গত একদিনে যে দেড় লাখ মানুষ শনাক্ত হয়েছে তাদের মধ্যে প্রায় অর্ধেক হলো আমেরিকা অঞ্চলের।’

তেদ্রোস আধানম গ্যাব্রিয়েসুস আরও বলেন, ‘ভাইরাসটি এখনও দ্রততারভাবে বিস্তার ঘটিয়ে চলেছে, এটি এখনও প্রাণঘাতি ও বেশিরভাগ মানুষ এখনও সংক্রমণ সংবেদনশীল অর্থাৎ অনেকের দেহেই এই ভাইরাসটির সংক্রমণের আশঙ্কা রয়ে গেছে। আমেরিকা ছাড়াও সর্বোচ্চ সংক্রমণের তালিকায় আরও রয়েছে দক্ষিণ এশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্য।’

তেদ্রোস আধানম গ্যাব্রিয়েসুস সতর্ক করে দিয়ে বলেন যে,‘ ঘরে থাকতে থাকতে অনেক মানুষ বিরক্ত হয়ে গেছেন হয়তোবা। এ কারণেই অনেক দেশ তাদের স্বাভাবিক কার্যক্রমে ফিরতে চাইছে। তবে ভাইরাসটি এখনও দ্রুত বিস্তার ছড়াচ্ছে ও সামাজিক দূরত্ব, মাস্ক পরিধান এবং হাত ধোঁয়ার বিষয়গুলো এখনও খুবই জরুরি একটি বিষয়।’

উল্লেখ্য, চীন সরকারের দাবি অনুযায়ী গত ডিসেম্বরের শুরুতে উহানে প্রাদুর্ভাব ঘটে করোনার। তারপর বিশ্বের সব দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে এই মহামারি। ইতিমধ্যেই ৮৫ লাখের মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে সাড়ে ৪ লাখের বেশি এখন বেঁচে নেই। তবে সুস্থ হয়েছেন ৪৫ লাখেরও বেশি মানুষ।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...