শিশুদের ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করবেন যেভাবে

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক॥ আপনি কি জানেন, কেবল মাত্র ভারতে প্রতিবছর ডায়াবেটিসের কারণে ১২,০০০ শিশুর মৃত্যু হয়! এই নীরব ঘাতক প্রতি ১০ সেকেন্ডে প্রাণ হরণ করছে একজন মানুষের। নবজাতক থেকে শুরু করে যেকোনো বয়সের শিশুর ডায়াবেটিস হতে পারে। শিশুকে ডায়াবেটিসের হাত থেকে রক্ষা করতে প্রয়োজন কিছু ক্ষেত্রে বিশেষ সচেতনতা।


147316745_1_600x450_1374560164

শিশুদেরকে দুই ধরণের ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হতে দেখা যায়। টাইপ-১ ডায়াবেটিসটাইপ-২ ডায়াবেটিস।

টাইপ-১ ডায়াবেটিসে  অগ্ন্যাশয়ের যে কোষগুলো ইনসুলিন তৈরি করে সেগুলো ধ্বংস হয়ে যায়। পরিণতিতে ইনসুলিন লক্ষণ হয় অতি সামান্য, অনেক সময় হয়ই না। বেঁচে থাকার জন্য এসব রোগীকে অবশ্যই নিতে হয় ইনসুলিন ইনজেকশন অথবা ইনসুলিন পাম্প। আজকাল শ্বাসের মাধ্যমে ইনসুলিন গ্রহণের চেষ্টা চলছে| এ ধরনের ডায়াবেটিসের অন্য নাম ‘তরুণ-বহুমূত্র’, বেশি হয় শিশু ও কম বয়সীদের। টাইপ-১ ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে শিশুই বেশি তাদেরকে ইনসুলিন দিয়ে বাঁচিয়ে রাখতে হয়।

টাইপ-২ ডায়াবেটিসের  মূলে রয়েছে ‘ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্স’| যাদের টাইপ-২ ডায়াবেটিস হয় তাদের যে সামান্য ইনসুলিন উৎপন্ন হয়, সেই ইনসুলিন শরীরে ব্যবহার করতে ব্যর্থ হয়। একে মোকাবিলা করার প্রথম ধাপ হলো ঠিকমতো খাওয়া ও ব্যায়াম করা এবং নিয়ন্ত্রিত জীবন যাপন করা| আবার অনেক সময় এর জন্য প্রয়োজন হয় মুখে খাবার ওষুধ, এমনকি ইনসুলিন ইনজেকশনও নিতে হয়। বিশ্বজুড়ে যে ২৪৮ মিলিয়ন ডায়াবেটিসের রোগী রয়েছে তাদের ৯০ শতাংশের বেশি হলো টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত।

Screenshot_9

শিশুরও টাইপ-২ ডায়াবেটিস  হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, যদি শিশু অতিরিক্ত ওজনের হয়। যেসকল শিশু শারীরিক পরিশ্রম নেই এমন খেলা খেলে, যারা বেশী সময় বসে বসে টিভি দেখে বা ভিডিও গেম খেলে তাঁদেরও টাইপ-২ ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া যেসকল শিশুর পারিবারিক সদস্যদের যেমন পিতা, মাতা অথবা অন্য কারও টাইপ-২ ডায়াবেটিস  রয়েছে তারাও টাইপ-২ ডায়াবেটিস  ঝুঁকিতে থাকে।

Screenshot_8

বর্তমান যুগে বেশীরভাগ শিশু বাইরে খেলাধুলার থেকে ঘরে বসে টিভি দেখে অথবা ভিডিও গেম খেলে কিংবা চিপসের প্যাকেট হাতে সময় কাটাতে বেশী স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। স্বাস্থ্যকর ঘরে বানানো খাবার এখন শিশুরা খেতে চায়না, ঘরের খাবারের বদলে তারা এখন ফাস্ট ফুড বার্গার, পিজা, এসবে বেশী স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছে। বর্তমানে আরেকটি বিষয় উল্লেখ যোগ্য, আধুনিক শিশুদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যবস্থায় ভয়াবহ ভাবে চাপ তৈরি করা হচ্ছে। ফলে তারা বাইরের শরীরচর্চা বিষয়ক খেলা ধুলায় সময় দিতে পারছেনা অথবা খুব সামান্য সময় তারা খেলার জন্য পাচ্ছে। এসব কারণে বর্তমানে শিশুরা ডায়াবেটিসের ঝুঁকিতে রয়েছে।

Screenshot_10

শিশুর ডায়াবেটিস হওয়ার লক্ষন সমূহঃ আপনার শিশুর ডায়াবেটিস হয়েছে কিনা বুঝতে হলে শিশুর যেসকল বিষয়ের প্রতি চোখ রাখবেন তা হচ্ছে, শিশু ঘন ঘন মূত্র ত্যাগ করছে, ঘন ঘন শিশুর পানির তৃষ্ণা পাচ্ছে, শিশুর খাবার গ্রহণের প্রবণতা বেড়ে গেলে, রাতের বেলায় শিশুর বহুমূত্র হলে, শিশুর ঘাড় ও বগলের নিচে কালো দাগ দেখা দিলে, শিশুর ঝাপসা দৃষ্টি হলে, এবং স্কুলে অমনোযোগী হলে বা অলস ভাব দেখালে।

Screenshot_11

আপনার যা করণীয়ঃ আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে আপনার শিশু যেন বয়সের তুলনায় অতিরিক্ত ওজনের না হয়। আপনাকে অবশ্যই শিশুর খেলাধুলার প্রতি যত্ন দিতে হবে, শিশুকে খেলাধুলার প্রতি আগ্রহী করে তুলুন। শিশুকে ফাস্ট ফুড খাওয়াবেন না। শিশুকে স্বাস্থ্যকর খাবার খেতে আগ্রহী করে তুলুন। শিশু কখন খাবে কখন খাবেনা সে বিষয়ে একটি তালিকা তৈরি করুন।

‘শিশুরা যে কোন বয়সে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হতে পারে, আসুন, ডায়াবেটিসের ছোবল থেকে শিশুদের রক্ষা করি।“

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...