The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

করোনায় চলচ্চিত্রের দুর্দিন নিয়ে ফেরদৌস

ফেরদৌস বলেছেন, আমাদের এই অঙ্গনের প্রতি একটু নজর দেওয়া দরকার

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে চলচ্চিত্র ও বিনোদন কর্মীরা বড় ধরনের সমস্যা এবং দুঃসময়ের মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস।

করোনায় চলচ্চিত্রের দুর্দিন নিয়ে ফেরদৌস 1

গত ২১ জুন ‘জিডিপিতে স্টার্টআপের অবদান বিষয়ক বাজেট আলোচনা’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনায় তিনি এই কথা বলেছেন। ভেঞ্চার ক্যাপিটাল অ্যান্ড প্রাইভেট ইক্যুইটি অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ভিসিপিয়াব) ও ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরাম (সিএমজেএফ) যৌথভাবে এই আলোচনার আয়োজন করেছিলো।

এফএনএস মিডিয়া লিমিটেডের চেয়ারম্যান ফেরদৌস বলেছেন, আমাদের এই অঙ্গনের প্রতি একটু নজর দেওয়া দরকার। আমাদেরকে আমাদের মন্ত্রণালয়ের পক্ষ হতে অনেক সহায়তা করা হচ্ছে, তবে এটি সাময়িক। আমাদের যে সমস্যা, সেই সমস্যা সাময়িক না।

তিনি আরও বলেন, উৎসবগুলো হতে আমরা চলচ্চিত্রের বড় অর্থ পেয়ে থাকি। বাংলাদেশের দুটো ঈদ আমাদের বড় উৎসব। সে দুটো উৎসব এবার পড়ে যাচ্ছে করানোর মধ্যে। এছাড়াও একের পর এক বড় বড়, পয়লা বৈশাখ থেকে শুরু করে নানা দিবসগুলোও পড়ে গেছে। সুতরাং আমাদের যারা প্রডিউসার (প্রযোজক) তারা অনেক টাকা লগ্নি করেও রেখেছেন, তারা সবাই একটা দুঃসময়ের মধ্য দিয়ে দিন পার করছেন।

দুই বাংলার জনপ্রিয় এই নায়ক আরও বলেন, যদিও কিছুদিন হলো শুটিং শুরু হয়েছে। নাটকেরও স্বল্প পরিসরে শুটিং হচ্ছে। তবে চলচ্চিত্রের যে বিশাল আয়োজন করে শুটিং করা সেটি করা সম্ভব হচ্ছে না। চলচ্চিত্রের শুটিংও যদি করা হয়, সেই সিনেমাগুলো তাহলে দেখানো হবে কোথায়? গত তিন মাস ধরে সিনেমা হলগুলোও বন্ধ। যে কারণে বড় একটা সমস্যার মধ্যে দিয়ে আমরা সময় পার করছি।

প্রধানমন্ত্রীর কথা উল্লেখ করে ফেরদৌস বলেন, প্রধানমন্ত্রী সব সময় আমাদের পাশেই থাকেন। আমাদের অনুদানের জন্য ঝুঁকির বাজেট বাড়িয়ে দিয়েছেন। আমাদের নানা ধরনের সহযোগিতার কাজ করে যাচ্ছেন সব সময়। আমি আশাবাদী যে আমরা সবাই মিলে একত্রিত হলে আমরা এই সমস্যা হতে একদিন বেরিয়ে আসতে পারবো।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...