The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

চীনের ওপর ক্ষোভে পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করলেন অভিনেতা জিৎ

চীনের সঙ্গে সীমান্তে সাম্প্রতিক ঘটে যাওয়া ঘটনার কারণে ভারতের বিনোদন তারকারাও প্রতিবাদ করছেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ লাদাখ সীমান্তে চীনের কাছে হেস্তনেস্ত হয়েছে ভারত। সেনা কর্মকর্তাসহ বহু সেনা সদস্য নিহত হন ওই ঘটনায়। তাই রাগে-ক্ষোভে চীনের ‘পুরস্কার’ প্রত্যাখ্যান করলেন কোলকাতার অভিনেতা জিৎ।

চীনের ওপর ক্ষোভে পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করলেন অভিনেতা জিৎ 1

চীনের সঙ্গে সীমান্তে সাম্প্রতিক ঘটে যাওয়া ঘটনার কারণে ভারতের বিনোদন তারকারাও প্রতিবাদ করছেন যার যার অবস্থান থেকে। এবার এর প্রতিবাদ করলেন টলিউড অভিনেতা জিৎ। একটি পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের স্পনসর হিসেবে যুক্ত রয়েছে চীনা সংস্থা, ঠিক সেই কারণেই দেশের সম্মানে পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করলেন অভিনেতা জিৎ। সীমান্তে গিয়ে লড়তে না পারলেও নিজের দেশের জন্য এইটুকু ত্যাগ করেছেন এই অভিনেতা!

কয়েকটি আগেই চীনা অ্যাপ টিকটককে নিষিদ্ধ করা নিয়ে কথা বলেছিলেন অভিনেত্রী সাংসদ নুসরত জাহান। সেইসঙ্গে তৃণমূলের যুবশক্তির রাজ্য কো-অর্ডিনেটর তথা অভিনেতা সোহম চক্রবর্তীরও মন্তব্য ছিল এমন, “অ্যাপ ব্যান করলে তো আর নিহতরা ফিরে আসবেন না!” তবে সেদিক থেকে একেবারে উলটো পথে হেঁটেই অভিনব সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলেন টলিউড সুপারস্টার জিৎ মদনানি। সংস্থার নামোল্লেখ না করেই পুরস্কার প্রত্যাখ্যানের কথা জানিয়েছেন এই অভিনেতা। সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করে জিৎ জানিয়েছেন যে, সংশ্লিষ্ট সংস্থার দেওয়া ওই পুরস্কার তিনি গ্রহণ করতে পারবেন না!

অভিনেতা জিতের মন্তব্য হলো, “যে সমস্ত দর্শকরা আমাকে ভোট দিয়েছেন, যারা আমাকে ভালোবাসেন, তাদের অসংখ্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। পুরস্কার পেতে কার না ভালো লাগে বলুন! পরিবারের সদস্যরা, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব সকলেই খুশি হয়। বিশেষ করে বাড়ির বাচ্চারা ট্রফি দেখলেই আনন্দ পান। তবে এই পরিস্থিতিতে সংশ্লিষ্ট সংস্থার দেওয়া ওই পুরস্কার গ্রহণ করতে কিছুতেই আমার মন সায় দিচ্ছে না!”

আপত্তিটা ঠিক কোন কারণে? সে সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে এই অভিনেতা জানান, “অনেকেই হয়তো জানেন না এই পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের সঙ্গে একটি চীনা কোম্পানি যুক্ত রয়েছে। ব্যক্তিগতভাবে কারও সঙ্গে আমার কোনও সমস্যা নেই। তবে এই মুহূর্তে আমাদের দেশের সঙ্গে চীনের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক মোটেও ভালো নয়। চীনের আগ্রাসী মনোভাবের জন্যই শহিদ হতে হয়েছে আমাদের দেশের জওয়ানদের। এমতাবস্থায় কোনও ভাবেই আমি এই পুরস্কার নিতে পারবো না। সীমান্তে গিয়ে লড়াই না করতে পারলেও নিজের দেশের জন্য এটুকু তো করাই যায়। আর তাই আমি পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করলাম।”

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...