The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মোদিকে রাহুলের কটাক্ষ: ভারতকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ

গত মঙ্গলবার আইএমএফ তার পূর্বাভাসে বলেছে যে, চলতি বছরে ভারতের জিডিপি ১০.৩ শতাংশ সংকুচিত হবে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) পূর্বাভাস দিয়েছে যে, আগামী দিনে ভারতের মাথাপিছু জিডিপি বাংলাদেশের চেয়েও কম হতে পারে! এমন কথা জানার পর মোদিকে রাহুল কটাক্ষ করে বলেছেন ভারতকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

মোদিকে রাহুলের কটাক্ষ: ভারতকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ 1

গত মঙ্গলবার আইএমএফ তার পূর্বাভাসে বলেছে যে, চলতি বছরে ভারতের জিডিপি ১০.৩ শতাংশ সংকুচিত হবে। এ বছরে মাথাপিছু জিডিপি ভারতের চেয়েও বেশি হবে প্রতিবেশী বাংলাদেশের। আইএমএফ অনুমান করছে যে ২০২০ সালে ভারতে মাথাপিছু জিডিপি দাঁড়াবে ১৮৭৭ মার্কিন ডলার। অপরদিকে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি ৪ শতাংশ হতে বেড়ে হবে ১৮৮৮ ডলার।

তবে আইএমএফ আরও বলেছে যে, আগামী বছর আবার ঘুরে দাঁড়াবে ভারতীয় অর্থনীতি। আর্থিক বৃদ্ধির হার ৮.৮ শতাংশও হতে পারে। এমনকি চীনের সম্ভাব্য জিডিপি বৃদ্ধির হারকেও ছাপিয়ে যেতে পারে ভারত। একইভাবে বিশ্ব অর্থনীতি চলতি বছর ৪.৪ শতাংশ হারে সংকুচিত হবে এবং আগামী বছর ৫.২ শতাংশ হারে বাড়বে বলেও জানানো হয়।

এদিকে বাংলাদেশের কাছে ভারতের এই পিছিয়ে পড়ার আশঙ্কার খবর সামনে আসতেই কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকারের ভ্রান্ত নীতিকেই দায়ী করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। গতকাল (বুধবার) টুইট করে রাহুল লেখেন যে, ‘গত ৬ বছরের বিজেপির বিদ্বেষমূলক জাতীয়তাবাদী সংস্কৃতির অভূতপূর্ব সাফল্যই হলো এটা যে, বাংলাদেশ ভারতকেও ছাপিয়ে যেতে চলেছে।’ এই সম্পর্কিত একটি গ্রাফও টুইট করেছেন রাহুল।

এদিকে কেন্দ্রকে নিশানা করতেও ছাড়েননি পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতাসীন দল তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যনার্জির ভাতিজা অভিষেক ব্যানার্জি। গতকাল (বুধবার) কটাক্ষের সুরে তিনি টুইট করে লিখেছেন যে, ভারতীয় অর্থনীতি একেবারে ভেঙে পড়েছে। এমনকি বাংলাদেশও মাথাপিছু জিডিপিতে আমাদেরকে ছাড়িয়ে যেতে চলেছে। এটা তাদের (বাংলাদেশ) পুনরুত্থান নয়, বরং আমাদের (ভারত) বিশাল পতন বলা যায। আর এটিই হলো নরেন্দ্র মোদিজির ৫ ট্রিলিয়নের স্বপ্ন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...