The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ডিম ব্যবহার করে চুলের যত্ন নিন

ডিমে রয়েছে প্রোটিন, যা চুলের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে থাকে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সবাই চান ঘন কালো ও মসৃণ চুল। তবে শীতে মাথার ত্বক রুক্ষ হয়ে যায়। এই সময় খুশকিও বাড়ে। তাছাড়া চুল পড়ার প্রবণতা রয়েছে অনেকের। তবে এই সমস্যা হতে মুক্তির উপায়ও রয়েছে। ব্যবহার করতে পারেন ডিমের প্যাক।

জীবনধারা ও স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাই এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে যে, দ্রুত চুল লম্বা করার অব্যর্থ ওষুধই হলো ডিম। ডিমে রয়েছে প্রোটিন, যা চুলের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে থাকে। মাথার ত্বকের পুষ্টি বাড়িয়ে নতুন চুল গজাতেও সাহায্য করে ডিম। চুল ঘন করতে ডিমের অবদান রয়েছে অনেক। ডিমের কুসুমের মধ্যে থাকা বায়োটিন চুলকে হাইড্রেট রাখতেও সাহায্য করে। প্রাকৃতিকভাবে চুলকে ময়েশ্চারাইজও করে।

ডিম, দুধ এবং মধুর প্যাক

আপনার চুল মজবুত করার জন্য দুধ ব্যবহার করতে পারেন। কারণ এটি খুব উপকারী। দুধে থাকা প্রোটিন চুল মজবুত করে থাকে। চুলে পুষ্টিও জোগায়। অপরদিকে মধু চুলকে ময়েশ্চারাইজ করে। একটি পাত্রে ২টি ডিম, ২ চামচ মধু এবং ২ টেবিল চামচ দুধ নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। তারপর চুলে লাগিয়ে ৩০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে। এই নিয়মে সপ্তাহে অন্তত দুদিন এটি করতে পারেন।

ডিম এবং অলিভ অয়েলের প্যাক

একটি পাত্রে ২টি ডিম ও ২ টেবিল চামচ এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল নিতে হবে। দুটি উপকরণ খুব ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। চুলে ও স্ক্যাল্পে লাগিয়ে ৪৫ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। এরপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ভালো করে ধুয়ে ফেলতে হবে।

ডিম এবং দইয়ের প্যাক

ডিমের সঙ্গে দই মিশিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। তারপর চুলের গোড়ায় খুব ভালোভাবে প্যাকটি লাগিয়ে নিন। ৩০ মিনিট রাখার পর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ভালো করে ধুয়ে নিন।

তবে আপনাকে মনে রাখতে হবে, ডিম দিয়ে তৈরি প্যাক ব্যবহারের পর সব সময় ঠাণ্ডা পানি দিয়ে চুল ধুয়ে নিবেন। কারণ গরম বা হালকা গরম পানি কখনও ব্যবহার করবেন না, কারণ এতে আরও ক্ষতি হতে পারে।

ডিম, মধু এবং লেবুর প্যাক

মধু ও লেবু ও ডিম এক সঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এরপর প্যাকটি লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। এরপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ভালো করে ধুয়ে নিন। সবচেয়ে ভালো ফল পেতে পারেন প্যাক লাগানোর আগের দিন রাতে চুলে হালকা গরম তেল ম্যাসাজ করে নিলে।

 

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...