The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ঘুরে আসুন চট্টগ্রামের কুমারীকুন্ড

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আপনি যদি সময় কাটাতে চান তাহলে চলে যান চট্টগ্রামের কুমারীকুন্ড। এক প্রাকৃতিক নৈসর্গ পাবেন এই কুমারীকুন্ড থেকে।

ঘুরে আসুন চট্টগ্রামের কুমারীকুন্ড 1

এটি চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুন্ড সবুজ পাহাড়ে ঘেরা এক পৌরাণিক অঞ্চল। পাহাড়ের খাঁজে খাঁজে লুকিয়ে রয়েছে প্রকৃতির অনন্য বিস্ময় ছোট বড় অসংখ্য ছড়া এবং ঝর্ণা। পাহাড়ের রহস্যময় আবহে পূর্ণ এই স্থাননি, ঠিক তেমনি এক ছড়ায় প্রাচীন এক মন্দিরের ধ্বংসাবশেষের সন্ধানও পাওয়া যায়, যা কুমারীকুন্ড নামেই পরিচিত। প্রাচীনকালে হিন্দুরা উষ্ণ প্রস্রবণ কিংবা হট স্প্রিংকে খুবই পবিত্র মনে করতেন। সীতাকুন্ডে অবস্থিত লবণাক্ষকুন্ড এবং অগ্নিকুন্ডের মতো বুদবুদ আকারে নির্গত গ্যাসে জালানো অগ্নিকুন্ডকে ঘিরে নির্মিত মন্দিরের সঙ্গে কুমারীকুন্ডের মিলও রয়েছে। কালের আবহে এটির মূল তীর্থ স্থান প্রায় ১০ কিলোমিটার সরে গেছে। মাটি চাপা পড়ে গেছে পুরনো ইটের তৈরি নানা কাঠামো।

এই কুমারীকুন্ডকে পাথর দিয়ে বাঁধানো ৮/১০ ফুট গভীর স্বচ্ছ নীল পানির কূপ কিংবা এটিকে চৌবাচ্চা বলা যায়। পরিষ্কার নীল পানির নীচ থেকে বিরতিহীনভাবে নির্গত হচ্ছে গ্যাসের বুদবুদ। অদ্ভুদ আকারের নানা পাথর মন্দিরের চারপাশের দেওয়ালের জায়গা দখল করে নিয়েছে। সময়ের গহীনে লোকচক্ষুর আড়ালে হারিয়ে যাওয়া কুমারীকুন্ড বর্তমানে অ্যাডভ্যাঞ্চার প্রিয় পর্যটকদের নিকট একটি আকর্ষণীয় স্থান হিসেবে পরিগণিত হয়েছে।

রাজধানী ঢাকার সায়েদাবাদ, ফকিরাপুল এবং মহাখালি বাস স্ট্যান্ড হতে চট্রগ্রাম গামী এস আলম, শ্যামলি, ইউনিক, সৌদিয়া, হানিফ, ঈগল, এনা ইত্যাদি পরিবহনের বাসে আপনি সীতাকুন্ড যেতে পারবেন। ট্রেনে চড়ে যেতে চাইলে ঢাকা থেকে সীতাকুণ্ড যেতে চট্টগ্রামগামী আন্তঃনগর ট্রেনে উঠে ফেনী স্টেশনে গিয়ে নামতে হবে। তারপর রিক্সা/অটো দিয়ে ফেনী মহিপাল বাস স্ট্যান্ড এসে সেখান থেকে লোকাল বাসে করে সীতাকুন্ড যেতে পারবেন। তারপর সীতাকুন্ডের কুমিরা পৌঁছে স্থানীয়বাসীন্দাদের সাহায্য নিয়ে কুমারীকুন্ড যেতে পারবেন।

সীতাকুণ্ডে থাকার জন্য বেশ কয়েকটি হোটেল রয়েছে। যার মধ্যে হোটেল সৌদিয়া, সাইমুন আবাসিক উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও সীতাকুণ্ডে টেলি-কমিউনিকেশনের অধীনস্থ একটি ডাকবাংলোও রয়েছে। অনুমতি নিয়ে সেখানে থাকা যেতে পারে। আরও ভালমানের আবাসিক হোটেলে থাকতে চাইলে আপনাকে চট্টগ্রাম অলংকার মোড়, স্টেশন রোড, নিউমার্কেট ও জিইসি মোড়ে অবস্থিত হোটেলগুলোতে উঠতে হবে।

সীতাকুন্ডের অন্যান্য দর্শনীয় স্থানের মধ্যে রয়েছে সীতাকুণ্ড ইকো পার্ক, গুলিয়াখালি বীচ, চন্দ্রনাথ পাহাড়, বাঁশবাড়িয়া বীচ, নাপিত্তাছড়া ঝর্ণাসহ বিভিন্ন স্থান।

তথ্যসূত্র: https://vromonguide.com

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...