The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

redporn sex videos porn movies black cock girl in blue bikini blowjobs in pov and wanks off.

হঠাৎ মাছ-মাংস খাওয়া ছেড়ে দিলে অজান্তেই বিপদ হতে পারে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ এক গবেষণায় দেখা যায়, যারা নিরামিষ বা ভিগান জাতীয় খাবার খেয়ে থাকেন, তাদের হাড় ক্ষয়ে যাওয়ার সমস্যা বাড়তে পারে। তাহলে এই হাড়ের ক্ষয় এড়াবেন কীভাবে?

হঠাৎ মাছ-মাংস খাওয়া ছেড়ে দিলে অজান্তেই বিপদ হতে পারে 1

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের হাড়ের ক্ষয়ও বাড়ে। হাড়ের ক্ষয় প্রতিরোধ করতে হলে খাওয়া-দাওয়ার প্রতি বাড়তি নজর দিতে হবে। হাড়ের প্রধান উপাদান ক্যালশিয়াম এবং ফসফরাস। তাছাড়াও এতে রয়েছে নানা ধরনের খনিজ পদার্থ। বয়স বাড়লে হাড়ের ক্যালশিয়ামসহ অন্যান্য উপাদানের ঘাটতি দেখা দেয়। তখন হাড় ভঙ্গুর হয়ে যায়। যে কারণে সামান্য চোট বা আঘাতে হাড় ভেঙে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে। আর তখন অস্টিয়োপোরসিসের সমস্যায় ভুগতে হয় বেশির ভাগ মানুষকে।

মহিলাদের ক্ষেত্রে ঋতুবন্ধের পর শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোনের অভাব দেখা দেয়। তাই হাড়ের ক্যালশিয়াম শোষণের ক্ষমতাও তখন কমতে থাকে। হাড় ক্ষয়ে যাওয়ার এটিই মূল কারণ। তাই মহিলাদের ক্ষেত্রে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকিও তখন বাড়ে।

সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা যায়, যারা নিরামিষ কিংবা ভিগান খাবার খান, পর্যাপ্ত পুষ্টির ঘাটতির কারণে তাদের ক্ষেত্রে হাড় ক্ষয়ে যাওয়ার সমস্যা আরও বাড়ে। সাম্প্রতিক সময় অনেকেই মাছ-মাংস খাওয়া ছেড়ে দিয়ে ভিগান বা নিরামিষ খাবার খাওয়ার দিকেই ঝুঁকছেন। তাদের দাবি, এতে করে স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। তবে গবেষণা বলছে অন্য কথা।

লিডস বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ৩৫ হতে ৬৯ বছর বয়সি ২৬,৩১৮ জন মহিলাদের নিয়ে সমীক্ষা করেন। সমীক্ষায় দেখা যায়, তাদের মধ্যে এক তৃতীয়াংশ নিরামিষাশী মহিলাদের নিতম্বের হাড়ে চিড় ধরেছে।

পুষ্টিবিদরা মনে করেন, যারা নিরামিষ ভোজী, তাদেরকে খাদ্যতালিকার উপর বিশেষ নজর দিতে হবে। শরীরে ক্যালশিয়াম, ভিটামিন-ডি এবং ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের ঘাটতি যাতে না হয়, সেদিকে নজর দিতে হবে!

ডায়েট

অনেকেরই মনে করেন, হাড়ের জন্য কিছু বাজারচলতি ক্যালশিয়ামের বড়ি খেলেই হাড়ের অনেকটা যত্ন নেওয়া হয়ে যায়- এমনটি কিন্তু নয়। ক্যালশিয়ামের ওষুধ দীর্ঘ দিন খেলে কিডনিতে অতিরিক্ত ক্যালশিয়াম গিয়ে মজুত হতে থাকে, তাই সেটি জমে পাথরও হতে পারে। তাই ওষুধে ভরসা না করে খাবার-দাবারেই আস্থা রাখতে হবে। হাড় সুস্থ রাখতে
হলে ক্যালশিয়াম, ভিটামিন কে, ভিটামিন সি, ভিটামিন ডি, বোরন, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস, স্ট্রনটিয়াম, পটাশিয়াম-যুক্ত খাবার খাওয়া প্রয়োজন। দুগ্ধজাত খাবার থেকে শরীর অনেকটা ক্যালশিয়াম পেতে পারে। তাই দুধ, চিজ, ছানা, মাখন, দই অবশ্যই আপনার ডায়েটে রাখতে হবে। ল্যাকটোজে সমস্যা থাকলে সরাসরি দুধ না খেয়ে ছানা বা চিজ খেতে পারেন। আর যারা ভিগান, তাদের ডায়েটে বেশি করে পালং শাক, সর্ষে শাক, ঢেঁড়শ রাখুন। আরও খাদ্যতালিকায় রাখুন সোয়াবিন, বাদাম ইত্যাদি।

শরীরচর্চা

পেশির শক্তি বাড়ে এমন কিছু ব্যায়াম এ ক্ষেত্রে খুবই উপযুক্ত। হাঁটুর সমস্যা ইতিমধ্যেই শুরু না হলে দৌড়, হাঁটাহাঁটি, স্কিপিংয়ের মতো শরীরচর্চা প্রতিদিনই করতে হবে। সাঁতার কিংবা নাচ দুই-ই ভালো ব্যায়াম।

রোদ পোহানো

আর যারা অস্টিওপোরোসিসের সমস্যায় ভুগছেন, তাদের প্রতিদিন অন্তত ২০ মিনিট রোদ পোহানো দরকার। সূর্যের আলো প্রবেশ করলে শরীরে ভিটামিন ডি এর মাত্রা বেড়ে যায়। কারণ হলো অস্টিওপোরোসিসের রোগীদের ক্ষেত্রে ভিটামিন ডি অত্যন্ত জরুরি। তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকার চেষ্টা করি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের কাপড়ের মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...
sex không che
mms desi
wwwxxx