নাসার মহাকাশ যান উৎক্ষেপণের সময় দেখা মিলল উড়ন্ত ব্যাঙের

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ মহাকাশ গবেষনা সংস্থা নাসার মানুষ্যবিহীন মহাকাশ যান LADEE উৎক্ষেপণ এর সময় ক্যামেরায় ধরে পড়েছে একটি উড়ন্ত ব্যাঙের। মহাকাশ যানটি উড্ডয়ন এর ঠিক পর পরই ব্যাঙটিকে ধূয়ার মধ্যে ভাসমান অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়।


flying frog

শিরোনাম শুনে খটকা লাগলেও ঘটনাটি কিন্তু মিথ্যা না। মহাকাশ যান উৎক্ষেপণ এর সময় সত্যি সত্যিই ক্যামেরাতে ছবি উঠেছিল ভাসমান ব্যাঙের। তাই বলে কি প্রাণী জগতে উড়ন্ত ব্যাঙ এর অস্তিত্ব আছে? প্রাণী জগতে উড়ন্ত ব্যাঙ এর অস্তিত্ব না থাকলেও মহাকাশ যান উৎক্ষেপণের সময় নাসার স্থাপিত তিনটি ক্যামেরা এমনভাবে স্থাপন করা হয়েছিল যার একটিতে এরকম দূর্লভ দৃশ্যটি ধারণ করল।

প্রকৃতপক্ষে মহাকাশ যান ভূপৃষ্ঠ থেকে যাত্রা শুরুর সময় প্রচন্ড বেগে গ্যাস নির্গত করে যা মহাকাশ যানটিকে পৃথিবীর আকর্ষণ বল কাটিয়ে শূণ্যে উঠতে সহায়তা করে। এসময় ব্যাঙটি আশপাশে থাকার কারণে নির্গত গ্যাস এর চাপে এটি শূণ্যে উঠে আসে। আর দৃশ্যত মনে হয়েছিল ব্যাঙটি উড়ছে বা ভাসছে। ধারণকৃত ছবিতে দেখা যায় ব্যাঙটি মুক্ত অবস্থায় হাত পা ছড়িয়ে যেন শূণ্যে ভাসছে। নাসার ইন্সটাগ্রামে ছবিটি প্রকাশ করা হয়েছে।

নাসার ফটো টিম ব্যাঙটি যে সত্যিকারের তা নিশ্চিত করেছে। বর্তমানে ব্যাঙটির কি অবস্থা তা জানা যায় নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, ব্যাঙটি মারাত্মকভাবে আহত হতে পারে। এমনকি মারাও যেতে পারে। নাসা কর্তৃপক্ষ আশা করছে ব্যাঙটি বেঁচে আছে। বন্য প্রাণী বিষয়ে নাসা সব সময়ই যত্নশীল।

উল্লেখ্য, চাঁদের দিগন্ত রেখায় অপ্রত্যাশিত আলোক দ্যুতির রহস্য তদন্ত করতে নাসা প্রেরণ করেছে নতুন মহাকাশ যান LADEE। ভার্জিনিয়ার ওয়াল্লপস ফ্লাইট ফ্যাসিলিটি থেকে এটি উৎক্ষেপণ করা হয়। ওয়াল্লপস এর আশপাশের বেশিরভাগ এলাকা বন্য প্রাণীদের আবাসন এর জন্য দেয়া হয়েছে। এ ঘটনার ফলে প্রশ্ন উঠে এসেছে মহাকাশ যান উৎক্ষেপণে বন্য প্রাণীরা নিরাপদ কিনা। যদিও নাসার উৎক্ষেপণ অঞ্চল, রাস্তা এবং সামান্য কিছু এলাকা ছাড়া অধিকাংশ অঞ্চলই বন্য অবস্থায় আছে। যা বন্য প্রাণীদের আবাসন এর জন্য চমৎকার একটি জায়গা।

তথ্যসূত্র: এবিসি নিউজ

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...