The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ব্রাজিল ফুটবল বিশ্বকাপের সেরা প্লে মেকার যারা

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ এবারের বিশ্বকাপের প্রায় প্রতিটি দলেই রয়েছে বিশ্ব মাতানো সব ফুটবল তারকারা যাদের দিকেই মূলত সকলের দৃষ্টি আটকে থাকবে। তারা কারা? চলুন জেনে নেয়া যাক।


99_dimension-x3_Fotor_Collage

ফুটবল একটি দলীয় খেলা হলেও মাঝে মাঝে কিছু ব্যক্তিগত পারফরমেন্স ও অভিজ্ঞতাই একটি দলকে প্রতিপক্ষ থেকে আলাদা করে রাখে। এবারের আসরে জ্বলে উঠতে পারে অনেক নতুন মুখ। নিজেদের পরিণত করতে পারে নতুন তারকায়।

অস্কার (ব্রাজিল)

oscar-landscape-512x348

বিশ্বকাপ শুরুর আগে থেকেই অস্কারে চোখ ছিলো সবার। অস্কার-নেইমারের ধাঁধানো যুগলবন্দি দিয়েই ব্রাজিলের সাফল্য আসবে অনেকেই মনে করেন। ব্রাজিলের বিশ্বকাপ ভাগ্য এবার অনেকটাই অস্কারের এসিস্ট এবং ডিব্লিং এর উপর নির্ভর করছে। অস্কারের যেমন ড্রিবল, তেমনই গতি, তেমন পাসিং-পজেশন-কাউন্টার অ্যাটাক। অস্কারের মাঝে ব্রাজিলের কাকার ছায়াই অনেকটা দেখা যায়, পারফেক্ট স্কিমার। প্রয়োজনে গোলটাও করে আসতে পারে।

আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা (স্পেন)

Andres_Iniesta_(8)

আধুনিক ফুটবলের সবচেয়ে পরিপূর্ণ মিডফিল্ডার আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। দ্রুত গতি আর পায়ের কারুকাজের জন্য প্রতিপক্ষ তাকে নাম দিয়েছে হ্যাপি ফিট। তবে স্প্যানিয়ার্ডদের কাছে তিনি সবসময়েই ডন আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা। ২০১০ বিশ্বকাপে ইনিয়েস্তা একাই গোল করে স্পেনকে শিরোপা এনে দিয়েছিলেন। তার পাসিং, প্ল্যানিং আর গেম রিডং বিশ্বের যে কোন ফুটবলারের থেকে যোজন দূরত্বে এগিয়ে। প্রয়োজনের সময় স্পেনের হয়ে গোলও করেন ইনিয়েস্তা। খেলেন ফলস নাইন পজিশনে। ৯৬ ম্যাচে তার সংগ্রহ ১২ গোল।

রবিন ফন পার্সি (নেদারল্যান্ড)

xlat842-322-2013-220433-high-jpg

স্ট্রাইকার হিসেবে ফন পার্সির গোলের সংখ্যা কমই বলতে হবে। তবে লা লিগার ক্লাব অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের হয়ে দারুণ আলো ছড়িয়েছেন কস্তা। ৩৫ টি লা লিগার ম্যাচে তার গোল ২৭টি। জাতীয় দলে ২০০৫ সাল থেকে খেলছেন ফন পার্সি। এ পর্যন্ত ডাচদের হয়ে ৮৪ ম্যাচ খেলেছেন তিনি; গোল করেছেন ৪৩টি। এই তারকাকে দেখা যাবে এবারের বিশ্বকাপ মাতাতে।

নেইমার (ব্রাজিল)

Neymar+

এবার ব্রাজিলীয়দের তুরুপের তাস বলা হচ্ছে নেইমারকে। নেইমারের পায়েই কনফেডারেশান কাপের মত বিশ্বকাপও ঘরে রেখে দিতে চায় ব্রাজিল। নেইমারের স্কিল নান্দনিকতা নিয়ে কোন প্রশ্ন নেই ফুটবল বিশ্লেষকদের। ‘নেইমার একজন স্টার… ও একটা খেলা খুলে দিতে পারে। ও-কে বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় বলে মনে করা হয় কেননা ঐ খেতাব ওর প্রাপ্য।” ওদিকে নেইমার স্বীকার করেছেন যে বিশ্বকাপ যত এগিয়ে আসছে, ‘‘ততই আমার স্নায়ুগুলো প্রকাশ পাচ্ছে আর আমার পেটে প্রজাপতি পাখা নাড়ছে।”

লিওনেল মেসি (আর্জেন্টিনা)

---art_messi-20121017155419682760-620x349

ছোটখাটো মানুষটি, হাল্কা-পল্কা প্লেয়ার, এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপ না জিতলেও তিনি জিতে নিয়েছেন বিশ্ব ফুটবলের সেরা খেলোয়াড়ের খেতাব, অনেকেই তাকে বলে থাকেন ভিনগ্রহের খেলোয়াড়। মেসির নামে বদনাম আছে যে তিনি বার্সেলোনার হয়ে যত ভালোই খেলুন না কেন, দেশের জন্য তাঁর পার্ফর্মেন্স অত্যন্ত সাদামাটা। এবারের বিশ্বকাপ তাই মেসির জন্য বদনাম কাটানর বিশ্বকাপ। সব কিছু ঠিক থাকলে এই বিশ্বকাপে সেরা খেলোয়াড় হতে পারে মেসিই।

ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (পুর্তগাল)

Czech Republic v Portugal - Quarter Final: UEFA EURO 2012

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। কমপ্লিট ফুটবলার। ফিফার হিসেবে এ গ্রহের এক নম্বর ফুটবলার। ফুটবল বিশ্ব অধীর আগ্রহে তাকিয়ে আছে তার দিকে। বিশ্বকাপ প্লে-অফ ম্যাচে সর্বশেষ সুইডেনের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করেন তিনি ও ক্লাব ফুটবলে রিয়ালের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জেতেন বর্তমান ব্যালন ডি’অরজয়ী এ স্টাইকার। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে তিনি তার ৩০০তম ক্লাব গোল পূরণ করেন। ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে তিনি তার ক্যারিয়ারের ৪০০তম গোল করেন। রোনালদো পর্তুগাল জাতীয় দলের হয়ে খেলেন, যাদের হয়ে ২০০৩ সালের আগস্টে কাজাখস্তানের বিরুদ্ধে তার অভিষেক ঘটে। তিনি জাতীয় দলের হয়ে ১০০ এর অধিক ম্যাচ খেলেছেন এবং যৌথভাবে পর্তুগালের হয়ে সর্বোচ্চ গোলের অধিকারী। সব কিছু ঠিক থাকলে ফুটবল বিশ্ব এবার রোনালদো ম্যাজিক দেখার অপেক্ষায়।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...