এবার ভুয়া ডিমের সন্ধ্যান!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ ভুয়া পণ্যে বাজার সয়লাব হওয়ার খবর আমরা মাঝে মধ্যেই পড়ে থাকি। তবে এবার বাজারে আসছে এক নতুন ভুয়া আইটেম ‘ভুয়া ডিম’, কৃত্রিমভাবে তৈরি এসব ডিম তৈরি করছে চায়না। এমন উদ্বেগজনক খবর পাওয়া গেছে ইন্টারনেট সূত্রে।

Fols Egg

ইন্টারনেটের একটি জার্নালে বরাতে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, কৃত্রিমভাবে তৈরি করা হচ্ছে এসব ভুয়া ডিম। এসব ডিম দেখলে একেবারে আসল ডিমের মতই দেখা যাবে। তবে এই ডিমের ভেতরে কুসুম থেকে যা কিছু রয়েছে সবই কৃত্রিমভাবে তৈরি এবং তা ভুয়া। এই ডিম নাকি তৈরি করছে চীন। এটি বাংলাদেশ বা অন্য কোথাও বাজারজাত করা হচ্ছে কিনা তা অবশ্য জানা যায়নি।

E-1

ওই তথ্যে বলা হয়, এই ডিম তৈরিতে ব্যবহার হচ্ছে- সোডিয়াম এসিড, সিরিস আঠা, পানি, সোডিয়াম ব্যানজোটো, কার্বোক্সিম্যানথল, সেলুলোজ, ক্যালসিয়াম কারবাইড, লাইজিন, বিশেষ ধরনের খাদ্য রং, ক্যালসিয়াম ক্লোরাইড, প্যারাফিন মোম, জিপ্সাম পাউডার, ফিটকিরি ইত্যাদি মেশানো হয়। ডিমের কুসুম তৈরিতে ব্যবহার করা হয় লেবুর রঙ হলুদ গুঁড়া মেশানো হয়। এরপর এগুলো মিশিয়ে ডিম আকৃতির একটি প্লাস্টিক সাঁচে ঢেলে তথাকথিত ‘ম্যাজিক জল’, যা ক্যালসিয়াম ক্লোরাইড মিশিয়ে তৈরি করা হয় ডিম।

E-2

চীনের গুয়াংডো প্রদেশে এই নকল ডিম তৈরি হচ্ছে। যা চীনের অন্যান্য শহরে নাকি বাজারজাত করা হচ্ছে। পাইকারি একটি ডিমের দাম ধরা হয়েছে ০.১৫ ইউয়ান (ডলারের হিসাবে ০.০৩)।

এদিকে ইতিমধ্যে চীনের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন গবেষক এই ডিম সম্পর্কে সতর্ক বার্তা দিয়েছেন। তিনি মনে করেন, এই ডিম দীর্ঘকালীন খেলে স্মৃতিভ্রমসহ নানা শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে।

E-3

যদিও বাংলাদেশে এই ডিমের কোন খোঁজ এখনও পাওয়া যায়নি। তবে যেহেতু বাংলাদেশের মানুষ কম পয়সায় জিনিসপত্র ক্রয়ে অভ্যস্ত সেহেতু এটি যে কোন সময় বাংলাদেশের মার্কেটেও প্রবেশ করতে পারে। এ বিষয়ে সকলকে সজাগ থাকতে হবে।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...