The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

এক ভাসমান আজব গ্রামের কাহিনী! [ভিডিও]

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভাসমান এয়ারপোর্টের কাহিনী আপনাদের বলেছি। কিন্তু আজ রয়েছে এক ভাসমান আজব গ্রামের কাহিনী।

a Village strange tale of floating

আজব ভাসমান এই গ্রামের নাম সান্তাদু। এই গ্রামটি চীনের নিঙদে শহর হতে ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। গ্রামটি পুরোপুরি ভাসমান। গ্রামটি এমন এক জায়গা অবস্থিত যেখানে কেও ডাঙায় পা দেয় না। সেখানকার বাসিন্দারা কখনও ডাঙায় পা দেননি।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় চীনের ফুজিয়ান প্রদেশের এই গ্রামটি জাপানি বোমার আঘাতে তছনছ হয়ে গিয়েছিল। গোদের ওপর বিষফোঁড়ার মতোই পানির তোড়ে ভেসে গিয়েছিল গ্রাম। কিন্তু জীবন এক অদ্ভুত। সৃষ্টিও অবাক করার মতো। ধ্বংসের মধ্যেও তৈরি হলো আশ্চর্য এক গ্রাম। যেটি শুধুই ভেসে থাকে পানির ওপর!

a Village strange tale of floating-2

সেই যুদ্ধের পর বাঁশ তারপর ফেলে দেওয়া প্লাস্টিক ইত্যাদি দিয়ে নতুন গ্রাম গড়লেন বাসিন্দারা। গ্রামে কাঠের তৈরি অনেক বাড়ি রয়েছে। এখানে রয়েছে রেস্তোরাঁ। আবার একটা থানাও রয়েছে সেখানে। এসবকিছুই শুধু ভেসে থাকে। কাঠের বাড়িগুলোর মধ্যে এমনভাবে প্লাস্টিক ব্যবহার করা হয়েছে, যাতে ভেসে থাকাটা খুব সহজ হয়।

এই গ্রামের মূল জীবিকা হলো মাছ ধরা। সবই সৃস্টির লিলা বলা হয়া, কারণ প্রকৃতিও একেবারে ঢেলে দিয়েছে এই গ্রামকে। চিংড়ি, কুচো চিংড়ি, গলদা চিংড়ি হতে শুরু করে নানা ধরনের মাছ রয়েছে এই গ্রামের পানির নীচে। এখান থেকেই পাওয়া যায় চীনের সেরা সেরা ‘সি ফুড’। এখানকার বাসিন্দারা দিনভর মাছ ধরে বেড়ান, আর রাতে চলে ভাসমান গ্রামে নানা উত্‍সব। আর তখন দূর হতে ভারী অদ্ভূত দেখায় এই গ্রামটিকে। মনে হয় যেনো প্রতিকূলতাকে পাশ কাটিয়ে আলোয় ভেসে চলে উত্‍সব। তবে মাঝে মধ্যেই প্রকৃতির রোষানলে মানুষকে পড়তে হয়। কিন্তু তার মোকাবেলা করেই বেঁচে থাকতে হয় এই এলাকার মানুষগুলোকে। ঠিক সেভাবেই বেঁচে রয়েছে সান্তাদু গ্রাম। আর গ্রামের মানুষগুলো বেঁচে রয়েছে ভেসে থেকেই। এভাবেই চলেছে ভাসমান আজব এই গ্রাম ও গ্রামের মানুষদের জীবন ও জীবিকা।

দেখুন ভিডিও

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...