শক্তিশালী কয়েকটি ভয়াবহ ভূমিকম্প সম্পর্কে জানুন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রতিবছর বিশ্বের কোথাও না কোথাও ঘটছে শক্তিশালী ভূমিকম্প। এসব ভূমিকম্প বিশ্ববাসীকে চমকে দিয়েছে। শক্তিশালী কয়েকটি ভয়াবহ ভূমিকম্প সম্পর্কে এই প্রতিবেদন।

powerful earthquake

সর্বশেষ ভূমিকম্পটি হয়েছে আফগানিস্তান, পাকিস্তান এবং ভারতে। ৭.৫ মাত্রার একটি ভূমিকম্প আঘাত হানে। বাংলাদেশেও মৃদু অনুভূত হয় এই ভূ-কম্পন। এই ভূমিকম্পটির উৎপত্তিস্থল ছিল আফগানিস্তানের হিন্দুকুশ অঞ্চলে।

powerful earthquake-2

যে কারণে আফগানিস্তান ও পার্শ্ববর্তী বিশেষ করে পাকিস্তানে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি এবং প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। এ দুটি দেশে এ পর্যন্ত নিহত হয়েছে অন্তত ৩০০।

FILE PHOTO OF KOBE QUAKE...KOB51:KOBE,JAPAN,16JAN00 - FILE PHOTO 18JAN95 - A giant crane pulls crushed cars out of  debris in Kobe, western Japan, in this January 1995 file photo following the 7.2-magnitude earthquake turned over an expressway.  The earthquake killed at least 6,430 people. Kobe has repaired much of the physical damage caused by the devastating quake five years ago, but many emotional scars after the disaster have yet to be healed.     cf/pb/Kimimasa Mayama   REUTERS

পৃথিবীতে বিভিন্ন সময় যেসব ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে সেইসব তথ্য নিয়ে রচিত হয়েছে এই প্রতিবেদনটি।

নেপাল

২৫ এপ্রিল ২০১৫: নেপালে ৭.৮ মাত্রার ভূমিকম্পে কমপক্ষে ৮,৯০০ মানুষ প্রাণ দেন, ক্ষতিগ্রস্ত হয় ৫ লাখ ঘরবাড়ি। একই বছরের মে মাসে সেখানে ৭.৩ মাত্রার ভূমিকম্পেও বহু মানুষের প্রাণহানি ঘটে। ১৯৮৮ সালের ২০ আগস্ট নেপালে ৬.৮ মাত্রার ভূমিকম্পে ৭২১ জনের প্রাণহানি ঘটে।

powerful earthquake-4

ইরান

১১ আগস্ট ২০১২: এদিন ইরানের তাবরিজ শহরে ৬.৩ ও ৬.৪ মাত্রার জোড়া ভূমিকম্পে অন্তত ৩০৬ জন নিহত এবং তিন হাজারেরও বেশি মানুষ আহত হন। ২০০৩ সালের ২৬ ডিসেম্বর ৬.৭ মাত্রার ভূমিকম্পে ইরানের বাম শহরে কমপক্ষে ৩১ হাজার ৮৮৪ মানুষ প্রাণ দেয়, আহত হয় অন্তত ১৮ হাজার মানুষ।

epaselect epa04721416 Motorcyclists use both sides of a wide crack in the Koteshwor-Suryabinayak Highway caused by the earthquake in the  Bhaktapur area near Kathmandu, Nepal on 26 April, 2015  -- twenty four hours after a devastating quake which so far has taken the lives of at least 2,400.  EPA/Hemanta Shrestha

জাপান

১১ মার্চ ২০১১: জাপানে ৯ মাত্রার ভূমিকম্প এবং ভূমিকম্প সৃষ্ট সুনামিতে ১৮,৯০০ মানুষ মারা যান। এতে করে ফুকুশিমা দাইচি আনবিক প্ল্যাটও ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

powerful earthquake-7

তুরস্ক

২০১১ সালের ২৩ অক্টোবর: তুরস্কের পূর্বাঞ্চলে ৭.২ মাত্রার ভূমিকম্পে ৬ শতাধিক মানুষ নিহত হয়, আহত হয় ৪ হাজারের বেশি মানুষ।

powerful earthquake-6

হাইতি

১২ জানুয়ারি ২০১০: এদিন হাইতিতে ৭ মাত্রার ভূমিকম্পে আড়াই হতে ৩ লাখ মানুষের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে।

চীন

১৪ এপ্রিল ২০১০: চীনের কুইনঘাই প্রদেশে এদিন ৬.৯ মাত্রার ভূমিকম্পে ৩ হাজার মানুষ নিহত এবং বহু মানুষ নিখোঁজ হয়। ২০০৮ সালের ১২ মে চীনের সিচুয়ান প্রদেশেও ৮ মাত্রার ভূমিকম্পে ৮৭ হাজারের বেশি মানুষ নিহত ও নিখোঁজ হয়।

ইন্দোনেশীয়া

২৭ মে ২০০৬: ইন্দোনেশীয়ায় এদিন শক্তিশালী এক ভূমিকম্পে ৬ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি ঘটে, গৃহহীন হয় ১৫ লাখ মানুষ, বহু আহত হয়। ২০০৫ সালের ২৮ মার্চ ইন্দোনেশীয়ার সুমাত্রায় অপর একটি শক্তিশালী ভূমিকম্পে ৯০০ মানুষের প্রাণহানি ঘটে। ২০০৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর এক শক্তিশালী ভূমিকম্প এবং তার কারণে সৃষ্ট সুনামিতে ইন্দোনেশীয়াসহ ভারত মহাসাগরের কাছাকাছি অঞ্চলে ২ লাখ ২০ হাজার মানুষের প্রাণহানি হয়।

কাশ্মির

৮ অক্টোবর ২০০৫: ভারত শাসিত কাশ্মিরে ৭.৬ মাত্রার ভূমিকম্পে ৭৫ হাজারেরও বেশি মানুষ প্রাণ দেয়, গৃহহীন হয় অন্তত ৩৫ লাখ মানুষ।

ভারত

২৬ জানুয়ারি ২০০১: ভারতের গুজরাটে ৭.৭ মাত্রার ভূমিকম্পে ২৫ হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারায়, আহত হয় অন্তত ১ লাখ ৬৬ হাজার মানুষ। ১৯৯৩ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৬.৩ মাত্রার ভূমিকম্পে ভারতের মহারাষ্ট্রে ৭ হাজার ৬০১ জন মানুষ প্রাণ হারায়। ১৯৯১ সালের ২০ অক্টোবর ভারতের উত্তর প্রদেশে ৬.৬ মাত্রার ভূমিকম্পে ৭৬৮ জন মারা যায়, বহু ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...