ভূতের সঙ্গে সম্পর্কের দাবি মহিলার! বিজ্ঞানের ভাষায় ‘স্পেকট্রোফিলিয়া’

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভূতের সঙ্গে সম্পর্কের দাবি করেছেন এক মহিলা! বিজ্ঞানের ভাষায় যেটিকে বলা হয় ‘স্পেকট্রোফিলিয়া’। প্রায় চমকে দিয়েছেন সিয়াম জেমসন নামে ওই মহিলা।

science & ghost woman

সাধারণত সিনেমাতে যেমন ঘটে, প্রায় তেমনই দাবি করেছেন ওই মহিলা। উত্তর লন্ডনের বাসিন্দা সিয়ামের দাবি হলো, তার এক অশরীরী (ভূত) পার্টনার রয়েছে, যে নিজে হতেই বুঝতে পেরেছে সিয়ামের শরীরী চাহিদা!

ওই মহিলা সিয়ামের দাবি, ওই অশরীরী নাকি রীতিমতো হ্যান্ডসাম। ঘণ্টাখানেক ধরে তারা শারীরিক খেলায় মেতেছিলেন। এমনকী সিয়াম এ-ও বলছেন যে, রবার্ট নামে ওই ব্যক্তি ১০০ বছর আগে মারা গেছেন।

সে যতোই বলুক না কেনো যুক্তির নিক্তিতে সিয়ামের দাবি মেনে নেওয়া অসম্ভব ব্যাপার। তবে সিয়াম ছাড়াও অনেক মহিলাকে এর আগেও এমন দাবি করতে শোনা গেছে।

বিজ্ঞানে এর ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে। এ ধরণের সমস্যাকে বলা হয় ‘স্পেকট্রোফিলিয়া’। অর্থাৎ, ভূতেদের প্রতি দেহগত আকর্ষণ। সিয়ামের দাবি প্রকাশ্যে আসতেই সুর মিলিয়েছেন অ্যামেথিস্ট রেলম নামে অপর এক মহিলা। তিনি দাবি করেছেন যে, অশরীরী পার্টনারের সঙ্গে তার মানসিক বন্ধন রীতিমতো দৃঢ়। অ্যামেথিস্টের দাবি হলো, তার ফিয়াসেঁ তাদের দু’জনকে একসঙ্গে দেখে ফেলার কারণে তার বিয়ে ভেঙে যায়। অতঃপর ওই অশরীরীর সঙ্গে ৩ বছরের সম্পর্ক তার!

একই ধরনের দাবি করেছেন ৫২ বছরের অ্যান এলিজাবেথ। তিনি বলেছেন যে, তার একাধিক সম্পর্ক ভেঙেছে। প্রতিবারই সম্পর্ক ভাঙার পরে কোনও অশরীরী এসে তাকে তৃপ্ত করেছে।

এ বিষয়ে মনোবিদরা বলছেন, ঘুমিয়ে পড়ার পরে শরীরের মাংসপেশী শিথিল হয়ে পড়ে। আর তাই অনেক ক্ষেত্রেই ওই অবস্থায় মস্তিষ্ক জেগে ওঠে। যে কারণে এই সময়ে মনে হতে পারে যে, কেও গায়ে হাত দিচ্ছে বা ঘাড়ের কাছে নিঃশ্বাস ফেলছে।

Advertisements
Loading...