ঘুমানোর সময় স্মার্টফোন ব্যবহারে অন্ধত্ব বরণের সম্ভাবনা!

Young woman lying on side in bed operating smartphone

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সারাদিন স্মার্টফোন ব্যবহার করুন বা না করুন, রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে কিছুটা সময় স্মার্টফোন চালাবেন না তা কি কখনও হয়? তবে সাবধান এ কারণে আপনি অন্ধত্ব বরণ করতে পারেন!

Young woman lying on side in bed operating smartphone

সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বিশেষজ্ঞরা বলেছেন ব্যাপারটি খুব একটা ভালো কিছু নয়। বিছানায় শুয়ে শুয়ে অন্ধকারে স্মার্টফোন ব্যবহারের কারণে অস্থায়ীভাবে অন্ধ হয়ে যেতে পারেন আপনি!

সম্প্রতি এমন ধরনের রোগে আক্রান্ত দু’জনকে পাওয়া গেছে বলে দাবি করা হয়েছে। এরমধ্যে একজন ২২ বছর বয়সী এক নারী রাতে তার ডান চোখে দেখতে সমস্যার কথা জানিয়েছেন। এক বছর ধরে বেশ কয়েকবার এই সমস্যা হয় বলে জানিয়েছেন তিনি। কিন্তু তার বাম চোখে রাতে কোনো সমস্যাই হতো না। আর দিনের বেলায় দু’টি চোখেই কোনো সমস্যা হতো না তার।

৪০ বছর বয়সী অপর এক নারী সূর্যোদয়ের আগে ঘুম হতে জাগার পর এক চোখে দেখতে না বলে জানান। এই সমস্যা ১৫ মিনিট ধরে স্থায়ী হয় বলে জানিয়েছেন তিনি। প্রায় ৬ মাস ধরে তিনি এই সমস্যায় ভুগছেন।

চিকিৎসকরা দেখতে পান সমস্যার উৎপত্তি হয়েছে মূলত তাদের ঘুমাতে যাওয়ার আগে কয়েক মিনিটের জন্য স্মার্ট ফোনের দিকে এক নাগাড়ে তাকিয়ে থাকার অভ্যাস থেকেই।

চিকিৎসকরা জানান, বালিশে শুয়ে ফোনের দিকে চেয়ে থাকার কারণে ভুক্তভোগী দু’জনেরই অপর চোখটি বালিশের সঙ্গে লেগে বন্ধ হয়ে থাকতো। সে কারণে যে চোখটি বালিশে লেগে বন্ধ হয়ে থাকতো সেটি অন্ধকারের সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে যায়। অপর চোখটি স্মার্টফোনের দিকে তাকিয়ে থাকতে থাকতে আলোর সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে। স্মার্টফোনটি যখন বন্ধ হয়ে যেতো তখন আলোতে অভ্যস্ত হওয়া চোখটি কিছুক্ষণের জন্য ‘অন্ধ’ হয়ে যেতো। এরপর যখন সাময়িক অন্ধ চোখটি ফের অন্ধকারের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতো তখন সেটি আবার স্বাভাবিক হয়ে আসতো।

এরপর ওই রোগীদের ওপর একটি পরীক্ষা চালান চিকিৎসকরা। দু’জনকেই তাদের ফোনের দিকে একবার একসঙ্গে দু’টি চোখ ব্যবহার করে ও আরেকবার এক চোখ দিয়ে তাকানোর কথা বলা হয়। এরপর ওই দুই রোগী জানান, একসঙ্গে দুই চোখ ব্যবহার করে তাকানোর পর হতে তাদের আর কোনো সমস্যা হয়নি।

সে কারণে প্রাথমিকভাবে চিকিৎসকরা নিশ্চিত হয়েছেন, স্মার্টফোন ব্যবহারের কারণেই তাদের এমন সমস্যা সৃ্ষ্টি হয়েছিল। এতএব শোবার সময় স্মার্টফোন ব্যবহার থেকে যতোটা সম্ভব বিরত থাকায় ভালো।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...