৯শ’ কিমির মধ্যে ঘূর্ণিঝড় ‘মহাসেন’ ঃ সন্ধ্যায় আঘাত হানতে পারে

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ ধেয়ে আসা ঘূর্ণিঝড় ‘মহাসেন’ গতিপথ পরিবর্তন না হলে আজ বুধবার সন্ধ্যা নাগাদ বাংলাদেশের মেঘনা অববাহিকা চাঁদপুরসহ কক্সবাজারের উখিয়া উপকূলে আঘাত হানতে পারে। ‘মহাসেন’ উপকূল থেকে ৯শ’ কিলোমিটারের মধ্যে চলে এসেছে বলে আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্র সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছে।

cyclone mahasen-0

তবে পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর এবং তৎসংলগ্ন পূর্ব মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় স্থির অবস্থায় রয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা যায়, বুধবার আবহাওয়ার বিশেষ বুলেটিনে (ক্রমিক নম্বর-২৩) বলা হয়, ‘মহাসেন’ সকাল ৬টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ১০ কিমি দক্ষিণপশ্চিম, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৯৪৫ কিমি দক্ষিণপশ্চিম এবং মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৮৯৫ কিমি দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিমি’র মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিমি, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ঘণ্টায় ৮৮ কিমি পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকট সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও মংলা সমুদ্র বন্দর সমূহকে চার নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

এছাড়া উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার এবং সমুদ্রগামী জাহাজসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়। আবহাওয়াবিদরা বলছেন, আজকের (বুধবার) মধ্যে জানা যাবে ঘূর্ণিঝড় কোথায়-কিভাবে হানবে। তবে উপকূলে আঘাত হানার আশঙ্কা রয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক মো. শাহ আলম সংবাদ মাধ্যমকে গতকাল বলেন, “ঘূর্ণিঝড় উপকূলের ৪০০ কিলোমিটারের মধ্যে চলে এলে স্থাপিত ডপলার রাডার সঙ্কেত দেবে কোথায়-কখন-কিভাবে আঘাত হানবে। বুধবার বিষয়টি স্পষ্ট হবে।”

অপরদিকে ঘূর্ণিঝড় মহাসেন মোকাবিলায় সরকার জোর প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। উপকূলীয় এলাকার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। শুকনো খাবার তৈরি রয়েছে। স্কুল-কলেজসহ সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে আশ্রয় কেন্দ্র করার ব্যাপারে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। মেডিক্যাল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে। দুর্যোগ মোকাবিলায় সব রকম সরকারি ব্যবস্থাপনা রয়েছে।

মহাসেনের প্রভাবে ইতিমধ্যে দেশের অনেক জায়গায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিসহ ঝড়ো হাওয়া বইতে শুরু করেছে। স্থানীয় লোকজন নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যেতে শুরু করেছে। গতকাল মঙ্গলবার জরুরিভিত্তিতে আন্তঃমন্ত্রণালয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটির সভা ডাকা হয়। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী এতে সভাপতিত্ব করেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মুখ্য সচিব, পিএসওসহ ২৯ মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিব এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এ সভায় উপস্থিত ছিলেন। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, গত শনিবার উপকূল থেকে এক হাজার ৮০০ কিলোমিটার দূরে নিম্নচাপ সৃষ্টির পর এক’শ কিলোমিটার এগিয়ে তা ঘূর্ণিঝড় ‘মহাসেনে’ রূপ নেয়। যা এখন ৯শ’ কিলোমিটারের মধ্যে এসেছে। ৪শ’ কিলোমিটারের মধ্যে এলেই পুরোপুরিভাবে জানা যাবে কোথায় এবং কি গতিতে এটি আঘাত হানবে।

মহাসেন সংক্রান্ত তথ্যের জন্য কন্ট্রোল রুম

এদিকে তথ্য বিবরণীর এক খবরে জানান হয়, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘মহাসেন’ সংক্রান্ত তথ্যের জন্য তথ্য অধিদফতরে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। কন্ট্রোল রুমের টেলিফোন নম্বরসমূহ হচ্ছে: ৯৫১৪৯৮৮, ৯৫১২২৪৬, ৯৫৪০০১৯, ফ্যাক্স: ৯৫৪০০২৬, ৯৫৪০৪৯৮, ৯৫৪০৫৫৩ ই-মেইল: piddhaka@gmail.com, piddhaka@yahoo.com এবং ওয়েবসাইট:www.bdpressinform.org

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...