The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সৌরমণ্ডলে দৈত্যাকার নক্ষত্র! সূর্য ধ্বংসের আভাস?

সৌরজগত নিয়ে বিজ্ঞানীদের জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই। বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন সময় নানা গবেষণা করে আসছেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বিজ্ঞানীরা সৌরমণ্ডলে দৈত্যাকার নক্ষত্রের সন্ধান পেয়েছেন! এতে করে সূর্য ধ্বংসের আভাস পাওয়া যাচ্ছে বলে সতর্ক করা হয়েছে।

সৌরমণ্ডলে দৈত্যাকার নক্ষত্র! সূর্য ধ্বংসের আভাস? 1

সৌরজগত নিয়ে বিজ্ঞানীদের জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই। বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন সময় নানা গবেষণা করে আসছেন। সেই গবেষণাতেই একেক এক সময় উঠে এসেছে এক এক ধরনের তত্ত্ব। তারই ধারাবাহিকতায় এবার সামনে উঠে এলো নতুন এক তথ্য।

ইউরোপিয়ান স্পেস অবজারভেটরির একটি লম্বা টেলিস্কোপে সম্প্রতি একটি অদ্ভুত দৃশ্য ধরা পরেছে। সৌরমণ্ডল হতে কিছুটা দূরে রয়েছে একটি লাল রংয়ের দৈত্যাকার নক্ষত্র। সেই নক্ষত্রটিই ধ্বংস করে দিতে পারে সূর্যসহ গোটা সৌরমণ্ডলকেই।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, সেই নক্ষত্রটির হতেই বাবল বেরোচ্ছে। সেই বাবলেই ধ্বংস হতে পারে পৃথিবী। ওই নক্ষত্রটির ভিতরে রয়েছে জ্বলন্ত লাভা। আরও রয়েছে অগ্নিকণা। সেই লাভা হতেই ধীরে ধীরে অত্যাধিক পরিমাণে গরম হয়ে যাচ্ছে নক্ষত্রটি। যে কারণে নক্ষত্রটির আয়তন ধীরে ধীরে বাড়ছে। আয়তন বাড়ার কারণে নক্ষত্রটি আগের তুলনায় অনেক বেশি সরু হয়ে যাচ্ছে। পূর্বের থেকে কয়েক শো গুণ আয়তনে বেড়ে গেছে নক্ষত্রটি। যে কারণে লাল দৈত্যাকার নক্ষত্রটির মধ্যে অগ্নিকণার সঙ্গে মিলিত হচ্ছে জলীয় বাষ্প। যে কারণে উষ্ণতার তারতম্যে তৈরি হচ্ছে বাবল। আয়তন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ওই লাল দৈত্যাকার নক্ষত্রটির ঘনত্ব কমছে।

বিজ্ঞানীরা আরও বলেছেন, নক্ষত্রটি হাইড্রোজেনে পরিপূর্ণ থাকে। সে কারণে উষ্ণতার তারতম্যের জেরে অত্যাধিক পরিমাণে বেড়ে যাবে এই নক্ষত্রের তাপমাত্রা। যার প্রভাব পড়তে পারে সৌরমণ্ডলের উপরেও। তবে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, আতঙ্কিত হওয়ার মতো পরিস্থিতি এখনও সৃষ্টি হয়নি।

Loading...