The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

কুখ্যাত গোয়ান্তানামো কারাগার আবার চালু করবেন ট্রাম্প!

ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, আমেরিকা শক্তিশালী, আমেরিকার জনগণও শক্তিশালী

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কুখ্যাত গোয়ান্তানামো কারাগার আবার চালু করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন। প্রতিরক্ষামন্ত্রী ম্যাটিসকে দেওয়া এক নির্দেশনায় স্বাক্ষর করেছেন বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প।

কুখ্যাত গোয়ান্তানামো কারাগার আবার চালু করবেন ট্রাম্প! 1

সেই কুখ্যাত গোয়ান্তানামো কারাগার আবারও চালু করা এবং তা যুক্তরাষ্ট্রের শত্রু দিয়ে ভর্তি করার ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। প্রথম স্টেট ইউনিয়ন ভাষণে ট্রাম্প বলেছেন, শুধুমাত্র যুদ্ধক্ষেত্রে দেখার জন্য আমরা বোকার মতো আইএস নেতা বাগদাদীসহ শত শত ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসীকে ছেড়ে দিয়েছি। তাই আজ আমি আরেকটি প্রতিশ্রুতি রক্ষা করছি। সেটি হলো, আমি প্রতিরক্ষামন্ত্রী ম্যাটিসকে দেওয়া এক নির্দেশনায় স্বাক্ষরও করেছি।

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে বারাক ওবামা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের দ্বিতীয় দিনে কুখ্যাত গুয়ানতানামো বে কারাগার বন্ধের জন্য লিখিত আদেশ দিয়েছিলেন। ওবামা বলেছিলেন যে, কারাগারটির স্থাপন, পরিচালনা সবই অসাংবিধানিক। কাজেই যতো দ্রুত সম্ভব এর কার্যক্রম বন্ধ করতে হবে। তবে দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এসে ওবামা তা করেননি।

ডোনাল্ড ট্রাম্প আরও বলেন, আমাদের সামরিক আটক নীতি পুন:পরীক্ষা করার জন্য এবং গুয়ান্তানামো বেতে আমাদের কারাগার খোলা রাখার জন্য আপনাদেরকে ধন্যবাদ। ট্রাম্প এই ঘোষণা দেওয়ার সময় রিপাবলিকান কংগ্রেস সদস্যরা তা স্বাগত জানিয়ে হাততালিও দেন!

তার আগে বক্তব্যের শুরুতে আমেরিকান মহত্ত্ব’কে সামনে টেনে আনেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। আমেরিকাকে শক্তিশালী নাগরিকদের সমন্বয়ে গঠিত শক্তিশালী এক দেশ আখ্যা দিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলতে চেয়েছেন যে, স্বপ্ন-সম্ভাবনায় বিশ্বের অন্য কোনও দেশ আমেরিকার মতো নয়। ভাষণে ট্রাম্পের নির্বাচনি প্রচারণার সময়ের ‘মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন’ ধারণার আভাস দেওয়া হয়।

ভাষণের শুরুতেই ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ‘সব সময়ের জন্য যা বাস্তব, গত বছর বিশ্ব তাই দেখেছে। বিশ্ব জেনেছে, পৃথিবীর অন্য কোনও দেশের মানুষ আমেরিকানদের মতো নির্ভীক-সাহসী ও নিজের প্রতি আস্থাশীল নয়। পাহাড় দেখলেই সেটায় উঠে পড়তে আমরা দেরি করি না। একটা সীমান্ত দেখলে আমরা সেটা পেরিয়ে যেতে ভয় পাই না। যেখানেই আশা থাকে, সেখানেই আমরা কব্জা করে ফেলি। সুতরাং আমেরিকা শক্তিশালী, আমেরিকার জনগণও শক্তিশালী।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...