The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

কিভাবে অনলাইনে নিজের গোপনীয়তা বজায় রাখবেন

অনলাইন প্রাইভেন্সি সম্পর্কে জ্ঞানের অভাবে প্রতিনিয়ত আমাদের অনেক তথ্য হাতিয়ে নিচ্ছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সবাই চাই অনলাইনে নিজের গোপনীয়তা বজায় রাখতে কিন্তু নিজেদের কিছু ভুল এবং অনলাইন প্রাইভেন্সি সম্পর্কে জ্ঞানের অভাবে প্রতিনিয়ত আমাদের অনেক তথ্য হাতিয়ে নিচ্ছে বিভিন্ন ওয়েবসাইট।

কিভাবে তথ্য হাতিয়ে নিচ্ছে?

১। ধরুন আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে আপনি কোন গেমস খেলেন বা বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠানে অংশ নেন। এক্ষেত্রে আপনার অনেক তথ্য তারা সংগ্রহ করে রাখে।

২। অনেক ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট সাইন আপ করার সময় আপনাকে ফেসবুক দিয়ে সাইন আপ করতে বলা হয়। এক্ষেত্রে আপনিও সহজে সাইন আপ করার জন্য ফেসবুকের মাধ্যমেই সাইন আপ করে থাকনে। ঠিক তখনই সেই ওয়েবসাইটটি আপনার ফেসবুকের অনেক তথ্য সংগ্রহ করে থাকে।

৩। বিভিন্ন সোস্যাল সাইট বা ওয়েব সাইট ভিজিট করার সময় আপনাকে কিছু ম্যাসেজ শো করবে এবং আপনার অনেক তথ্য তারা দেখার জন্য আপনার কাছে অনুমতি চাইবে। এক্ষেত্রে আপনি অনুমতি দিলেই তারা ইচ্ছে মত আপনার বিভিন্ন তথ্য দেখতে বা হাতিয়ে নিতে পারবে।

৪। এমন অনেক থার্ড পার্টি রয়েছে যারা বিভিন্ন মাধ্যমে আপনি অনলাইনে কি সার্চ করছেন, কোন ওয়েবসাইট ভিজিট করছেন ইত্যাদি তথ্য হাতিয়ে নিতে পারে।

কিভাবে গোপনীতা বজায় রাখবেনঃ

যদি আপনি থার্ড পার্টি অ্যাপসকে আপনার ওপর নজরদারি করতে দিতে না চান তাহলে আপনি স্মার্টফোনের সেটিং পরিবর্তনের মাধ্যমে আপনার গোপনীয়তা রক্ষা করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে যা করতে হবে
১। Android ফোনের জন্য Settings > Apps > App permissions > Location.
অথবা iPhone এর জন্য Settings > Privacy > Location Services > manage location access on a per-app basis. অপশন থেকে প্রাইভেন্সি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।

২। ফেসবুকে দেওয়া কোন লিঙ্কে প্রবেশ করতে হলে সেই লিঙ্কটা কপি করে নিউ ট্যাবে পেজটি ওপেন করুন।

৩। কোন ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট করার সময় ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করবেন না। স্বাভাবিক ভাবে তথ্য লিখে সাইন আপ করবেন।

৪। বিভিন্ন ওয়েবসাইট বা অ্যাপস ব্যবহার করার সময় আপনার কাছে যে সকল অনুমতি চাওয়া হবে তা ভালভাবে পড়ে বুঝে অনুমতি দিবেন কি না সিদ্ধান্ত নিবেন।

৫। আপনি কী সার্চ করছেন, কোন ওয়েবসাইটে যাচ্ছেন এবং আপনার আইপি এড্রেস, ইত্যাদির গোপনীয়তা বজায় রাখতে প্রাইভেট ব্রাউজার ব্যবহার করতে পারেন। সাধারনত আমরা যে ব্রাউজারগুলো ব্যবহার করি সেই ব্রাউজারগুলো কুকিজ থেকে শুরু করে ব্রাউজিং হিস্ট্রি, ওয়েব ফর্ম এন্ট্রি থেকে শুরু করে আরও নানা তথ্য মওজুদ করতে থাকে। তবে গুগল, ফায়ারফক্স এবং সাফারিতে প্রাইভেট বা ‘ইনকগনিটো’ ব্রাউজিং মডের সুযোগ আছে। এই মডে আপনার ব্রাউজিং হিস্ট্রি, কুকিজ, টেম্পোরারি ফাইল এবং ওয়েব এন্ট্রি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডিলিট হয়ে যাবে। ব্রাউজার ওপেন করুন (Firefox, Chrome, Chromium or Safari) তারপর Menu বাটনে ক্লিক করুন (বাউজারে উপরে ডান কোণে)। এখন New Private/Incognito Window অপশনে ক্লিক করুন। তারপর ইচ্ছে মত ব্রাউজ করুন। এখন আপনি ব্রাউজিং শেষে যখনি ব্রাউজার থেকে বের হয়ে যাবেন সঙ্গে সঙ্গে আপনার ব্রাউজিং হিস্ট্রি, কুকিজ, টেম্পোরারি ফাইল এবং ওয়েব এন্ট্রি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ডিলিট হয়ে যাবে।

Loading...