২৩ জুন চাঁদ আসবে পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ পূর্ণিমার চাঁদ ভালোবাসেন না এমন মানুষ পাওয়া বিরল। সেই পূর্ণিমার চাঁদ যদি স্বাভাবিক থেকে আরো বড় এবং উজ্জল হয় তবে তো কথায় নেই। এ রকমটাই ঘটবে এই বছর ২৩ জুন বাংলাদেশের আকাশে। জ্যোর্তিবিজ্ঞানীদের মতে, ঐ দিন অন্যান্য সময়ের তুলনায় চাঁদ পৃথিবীর কাছাকাছি থাকবে। পৃথিবী এবং চাঁদের এই অবস্থানকে পেরিজি বলা হয়ে থাকে। ১৪ মাস পর পর ঘটা পেরেজি খুব সাধারণ মহাজাগতিক ঘটনা। প্রাকৃতিক এই ঘটনাকে সুপারমুনও বলা হয়ে থাকে।


Supermoon1

চাঁদ পরিবর্তনশীল কক্ষপথ দ্বারা পরিভ্রমণশীল। এই পথটি প্রতিনিয়ত বিভিন্ন কারণে পরবির্তন ঘটার মাধ্যমে কখনও কখনও সূর্য-চন্দ্র-পৃথিবীর মধ্যবর্তী দূরত্ব বৃদ্ধি ঘটে আবার কখনও কখনও হ্রাস পায়। পেরেজি ফুল মুন বা সুপার মুন এ চাঁদকে অপেক্ষাকৃত বড় দেখায়। ২৩ জুন চাঁদ এবং পৃথিবীর মধ্যবর্তী দূরত্ব অনেক কম থাকবে। এই সময় চাঁদ পৃথিবী থেকে ২২১,৮২৪ মাইল বা (৩৫৬, ০০০ কিলোমিটার) দূরে অবস্থান করবে। অন্যান সময়ের তুলনায় চাঁদকে প্রায় ৩০ শতাংশ বেশি উজ্জল মনে হবে এবং ১৬ শতাংশ বড় দেখাবে। সন্ধ্যার পর থেকেই সুপার মুন দেখা যাবে এবং পরবর্তী দিন ভোর ৪ টা পর্যন্ত দৃশ্যমান থাকবে।

সুপার মুন খালি চোখেই পর্যবেক্ষণ করা যাবে। যারা টেলিস্কোপ বা বাইনোকুলার দিয়ে পর্যবেক্ষণ করবেন তারা অবশ্যই লুনার ফিল্টার ব্যবহার করবেন। কারণ এ সময় অতিরিক্ত আলোতে চোখের ক্ষতি হতে পারে। যারা ছবি তুলবেন তারা ভালো লেন্স ব্যবহার করতে পারেন। টেলিস্কোপ এর মাথায় ক্যামেরার লেন্স লাগিয়ে অসাধারণ ছবি তোলা যায় চাঁদের।

জ্যোর্তিবিজ্ঞানীরা বলেন, পূর্ণিমার মতই সুপার মুন খুব সাধারণ একটা ঘটনা। নির্দিষ্ট সময় পর পর চাঁদ পৃথিবীর কাছে চলে আসে বলেই এমনটা ঘটে। এটা নিয়ে আতংকের কিছু নেই। অনেক সময় কুসংস্কার ছড়ানো হয় সুপার মুন এর ফলে প্রাকৃতিক দুর্যোগ, ভূমিকম্প কিংবা জলোচ্ছাস সৃষ্টি হতে পারে। মূলত এই ধরণের কুসংস্কারগুলো যুক্তিহীন অবৈজ্ঞানিক ধ্যান ধারনার ফসল। মুপার মুন এর ফলে পৃথিবীতো কোন অস্বাভাবিক পরিবর্তন ঘটবে না। স্বাভাবিক জোয়ার ভাটা একটু বেশি হতে পারে। তবে এটা নিয়ে আতংকিত হওয়ার কিছু নেই। পরবর্তী সুপার মুন দৃশ্যমান হবে ২০১৪ সালের আগস্টে।

তথ্যসূত্র: দি টেক জার্নাল

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...