দুই বউয়ে ঝগড়ার জেরে অশান্তি ব্রিটেনের রাজ পরিবারে

রাজপরিবারের ঘনিষ্ঠ সূত্রে বলা হয়েছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ রাজ পরিবারের দুই বউয়ে ঝগড়ার জেরে অশান্তিতে পরিণত হয়েছে ব্রিটেনের রাজ পরিবার। গত কয়েকদিন ধরেই এমন খবর ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বময়।

রাজ পরিবারের দুই বউয়ে ঝগড়ার জেরে অশান্তিতে পরিণত হয়েছে ব্রিটেনের রাজ পরিবার। গত কয়েকদিন ধরেই এমন খবর ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বময়।

খবরে বলা হয়েছে যে, ব্রিটিশ রাজপরিবারের দুই পুত্রবধুর তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়েছেন তারা। আর এই ঝগড়া এমন এক পর্যায়ে পৌঁছে যে, আসছে বড় দিনে নাকি একসঙ্গে দেখা যাবে না রাজ পরিবারকে।

এ বছরের ১৯ মে রাজপরিবারের পঞ্চম উত্তরসূরি প্রিন্স হ্যারি মার্কিন অভিনেত্রী মেগান মার্কেলকে বিয়ে করেন। বিয়ের মাত্র ৬ মাসের মাথায় বড় ভাই প্রিন্স উইলিয়ামসের স্ত্রী কেট মিডলটনের সঙ্গে ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়েন রাজপরিবারের নতুন এই সদস্য।

রাজপরিবারের ঘনিষ্ঠ সূত্রে বলা হয়েছে, মূলত বিবাদের সূত্রপাত ছোটজনই করেন। তা-ও রাজপরিবারের বউ হয়ে আসার আগে থেকেই। কেটের এক পরিচারিকাকে কড়া কথা শুনিয়েই বড় বউকে ভীষণ চটিয়েছিলেন মেগান। দুই জায়ের কথা কাটাকাটিও হয়েছে ইতিমধ্যেই। স্ত্রীয়ের হয়ে মুখ খুলেছেন হ্যারি। তারপর স্বামী উইলিয়ামকে পাশে পান কেট। এই ঘটনার পর দূরত্ব বাড়ে দুই ভাইয়ের মধ্যেও। রাজপরিবার সূত্রের দাবি হলো, মেগানের বিয়ের প্রস্তুতির সময় তার ব্যবহারে নাকি কেঁদেও ফেলেন কেট।

গত বছর বড়দিনের ঠিক পূর্বেই হ্যারি অভিযোগ করেন যে, ইউলিয়াম ও কেট মেগানকে মোটেও আপন করে নিতে পারছেন না। বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য চার্লস স্যান্ড্রিংহামের প্রাসাদে দুই পক্ষকেই বড় দিন কাটানোর জন্য নিমন্ত্রণও করেন। তাতেও কোনো লাভ হয়নি।

তার আগেই নাকি বেশ বড়সড় ঝগড়া হয়েছিল কেট ও মেগানের মধ্যে। একটি ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড জানিয়েছে, সেই তিক্ততা এড়ানোর জন্যই এবার বড়দিনে মেগান-হ্যারি রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের সঙ্গে স্যান্ড্রিংহামে ছুটি কাটাবেন। ওদিকে কেট যাবেন বাপের বাড়ি বার্কশায়ারে। যদিও রাজপরিবার এই খবরটি একেবারেই উড়িয়ে দিয়েছে। তবে সত্যি নাকি মিথ্যা সেটি জানতে হলে আগামী ২৫ ডিসেম্বর অর্থাৎ বড়দিন পর্যন্ত সকলকে অপেক্ষা করতে হবে। তাহলেই বিষয়টি পরিষ্কার হবে যে, রাজ পরিবারের এমন দুর্গতি আদতেও কাটবে কি কাটবে না সেটিও এখনও বলা যাচ্ছে না। তবে সময়ই সব কিছু বলে দেবে।

Advertisements
Loading...