The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

হেঁচকি থামানোর মজার উপায়

খাওয়ার সময় গুরুত্বপূর্ণ কাজের মধ্যে অথবা কোন একটি বিশেষ সময় যেখানে অবসর সময় কাটানো বা পাশাপাশি কোন কাজের মাঝখানে হেঁচকি হওয়াটা একটি সাধারণ বিষয়

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আমাদের জীবন ব্যবস্থায় নানাবিধ পরিবেশে নানা ধরনের শারীরিক সমস্যা যেকোনো সময়েই দেখা দিতে পারে। বিভিন্ন ধরনের ও প্রতিকুল পরিস্থিতিতে পড়ার মতো বিভিন্ন ধরনের শারীরিক বিড়ম্বনার মধ্যে হেঁচকি অন্যতম।

হেঁচকি থামানোর মজার উপায় 1

খাওয়ার সময় গুরুত্বপূর্ণ কাজের মধ্যে অথবা কোন একটি বিশেষ সময় যেখানে অবসর সময় কাটানো বা পাশাপাশি কোন কাজের মাঝখানে হেঁচকি হওয়াটা একটি সাধারণ বিষয়। পরিপাকতন্ত্রের গোলমালের ফলে পরিপাকতন্ত্রের মধ্যে কোন প্রকার সমস্যা হলে হেঁচকি হতে পারে। এমনকি কোনো কারণ ছাড়াই যখন-তখন মানুষের হেঁচকি শুরু হতে পারে এতে বিস্মিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। যদিও হেঁচকির কারণ সম্পর্কে এখনো সঠিক স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায়নি বিজ্ঞানীরা শত শত বছর ধরে আপাতদৃষ্টিতে শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত এই সমস্যার সুনির্দিষ্ট কারণ খোঁজার চেষ্টা করে চলেছেন।

হেঁচকির কারণঃ

হেঁচকি মূলত শ্বাস নালীতে সামান্য খিঁচুনির মতো সৃষ্টি হওয়া একটি সমস্যা যার ফলে আমাদের শ্বাসযন্ত্রের মধ্যে দ্রুত বাতাস প্রবেশ করতে থাকে। এই অতিরিক্ত বাতাস প্রবেশের ফলে আমাদের ভোকাল কর্ড হঠাৎ বন্ধ হয়ে যায় এবং হিক শব্দের মত একটি শব্দ তৈরি করে। পরবর্তীতে আমাদের ফুসফুসের নিচের পাতলা মাংসপেশীর স্তর যেটিকে ডায়াফ্রাম বলে আখ্যায়িত করা হয় এটি হঠাৎ সংকোচনের ফলে হেঁচকি তৈরি হয়। এই হেচকির ফলে খুবি অল্প সময়ে আমাদের শারীরিক চাপ সৃষ্টি হয়। হেচকির কারণসমূহ সামান্য এবং খুবই সাধারণ কারণ। তবে এপর্যন্ত একশরও বেশি মেডিকেল কারণ ব্যাখ্যা করা হয়েছে তবে সবচেয়ে সাধারণ একটি কারণ হল অতি দ্রুত সময়ে খাবার গ্রহণ করা বা তাড়াহুড়া করে খাবার খাওয়া।

ভ্যাগাস নার্ভ এর কার্যকলাপে যখন বাধাগ্রস্ত হয় তখন হেচকি হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। খুবি দ্রুত খাবার খাওয়া একটি প্রধান কারণ এটির জন্য দ্রুত খাবার খাওয়ার ফলে আমাদের পেটের ভিতর বাতাস প্রবেশ করে থাকে যার ফলে এই সমস্যা দেখা যায়। এছাড়া নানাবিধ রোগ, কেমোথেরাপির বিভিন্ন ধরনের ওষুধ গ্রহণ করা, চেতনানাশক ঔষধ, উত্তেজনা বর্ধক ঔষধ ইত্যাদি ধরনের ঔষধ গ্রহণের ফলে হেঁচকি তৈরি হতে পারে। বিশেষজ্ঞরা তাদের মতবাদ প্রকাশ করেন যে কিডনি ফেইল এর কারণে হেঁচকি হতে পারে এছাড়া স্ট্রোকের ক্ষেত্রে, মাল্টিপল স্ক্লেরোসিস এর ক্ষেত্র অনেকেরই হেঁচকি তৈরি হতে পারে কিন্তু অধিকাংশ সময় হেঁচকি শুরু হওয়ার জন্য এসব কারণের কোন দরকার হয় না সাধারন কারণেই হতে পারে।

হেঁচকি থামানোর উপায়ঃ

হেচকি থামানোর জন্য ঘরোয়া ভাবে কিছু উপায় অবলম্বন করা যেতে পারে যার ফলে খুব সহজেই আমরা আমাদের এই শারীরিক গোলযোগ থেকে পরিত্রান পেতে পারি অল্প সময়ের মধ্যেই। হেঁচকি চলাকালীন অবস্থায় রক্তের কার্বন-ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ বাড়িয়ে দেওয়া যেতে পারে যাতে করে শ্বাসনালীতে খিঁচুনি বন্ধ হয়ে যায় এবং অন্যথায় শ্বাস-প্রশ্বাসও খাদ্য গ্রহণ করার সময় ভ্যাগাস স্নায়ুকে উদ্দীপিত করা যেতে পারে। এছাড়া কিছু কিছু পদ্ধতির মধ্যে রয়েছে দানাদার চিনি গ্রহণ করা চিনি গ্রহণ করলে আমাদের হেচকি খুব অল্প সময় কমে আসতে পারে। হেঁচকি চলাকালীন অবস্থায় ঠাণ্ডা শীতল বা বরফ ঠাণ্ডা পানি গ্রহণ করা যেতে পারে এবং দুই হাঁটুর বুক পর্যন্ত টেনে ধরে সামনের দিকে ঝুঁকে পড়া যেতে পারে এতে করে শারীরিক চাপ এবং হেঁচকি কমে আসবে। কাগজের একটি ব্যাগে অনবরত নিঃশ্বাস ফেলতে হবে লক্ষ্য রাখতে হবে ব্যাগের মধ্যে মাথা দিয়ে যাতে না রাখা হয়। হেচকি থামানোর আরেকটি মজার উপায় হচ্ছে কিছুক্ষনের জন্য দম বন্ধ করে রাখা। অল্প সময়ের জন্য নিঃশ্বাস আটকে রাখে এ সমস্যা কিছুটা কমে আসবে এবং পাশাপাশি লেবুতে কামড় দিয়ে রাখা অথবা সামান্য ভিনেগারের স্বাদ নেয়া যেতে পারে।

চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী হেঁচকি আপনাআপনি ভালো হয়ে যায় তবে যদি এটি দীর্ঘ সময় ধরে চলতে থাকে তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া খুবই জরুরী। বিশেষজ্ঞদের মতে হেঁচকি নিরাময় যদি ঘরোয়া চিকিৎসা কাজে না আসে তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। এছাড়া যদি নিয়মিত দৈনন্দিন হেঁচকি হতে থাকে যার ফলে স্বাভাবিক কার্যক্রমে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয় তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।

Loading...