The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

অপূর্ব-তিশার নতুন নাটক ‘ভালোবাসা তুই’

গ্রামের মানুষদের শহরের পরিবেশে এসে কী ধরনের পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয় এই নাটকটি তারই উদাহরণ

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সময়ের অন্যতম সফল জুটি অপূর্ব-তিশার নতুন নাটক ‘ভালোবাসা তুই’। নাটকটি নির্মাণ করছেন এস আর মজুমদার। ব্রাত্য রায়ের গল্পে নাটকটির চিত্রনাট্য লিখেছেন নির্মাতা নিজেই।

অপূর্ব-তিশার নতুন নাটক ‘ভালোবাসা তুই’ 1

সময়ের অন্যতম সফল জুটি অপূর্ব-তিশার নতুন নাটক ‘ভালোবাসা তুই’। নাটকটি নির্মাণ করছেন এস আর মজুমদার। ব্রাত্য রায়ের গল্পে নাটকটির চিত্রনাট্য লিখেছেন নির্মাতা নিজেই। একটি ব্যতিক্রমি গল্পে নির্মিত হয়েছে ‘ভালোবাসা তুই’ নাটকটি।

বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে এমন একটি নাটক দর্শকদের কাছেও ভালো লাগবে এমনটিই আশা করছেন নাটকটির নির্মাতা। গ্রামের মানুষদের শহরের পরিবেশে এসে কী ধরনের পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয় এই নাটকটি তারই উদাহরণ। নানা ধরনের নানা প্রতিকূল পরিবেশ পাড়ি দিতে হয় শহরে আগত মানুষদের, সেই বিষয়টিই উঠে এসেছে এই নাটকের গল্পে।

নাটকটির গল্প এমন: রাজধানীর অভিজাত একটি শাড়ির দোকানে সেলস গার্ল হিসেবে কাজ করছেন এই সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী তানজিন তিশা! আর সেই দোকানে শাড়ি কিনতে গিয়ে তিশার সঙ্গে দেখা হয়ে যায় অপর জনপ্রিয় অভিনেতা অপূর্বর! এমনই একটি ঘটনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় এই সময়ের অন্যতম সফল জুটি অপূর্ব-তিশার নতুন নাটক ‘ভালোবাসা তুই’-এর চিত্রনাট্যটি।

‘ভালোবাসা তুই’ এই নাটকটির শুটিং শেষ হয়েছে গত সপ্তাহে। নাটকটি নির্মাণ করেছেন এস আর মজুমদার। ব্রাত্য রায়ের গল্পে নাটকটির চিত্রনাট্য লিখেছেন নির্মাতা নিজেই। সিএমভির ব্যানারে ‘ভালোবাসা তুই’ নাটকটি প্রযোজনা করেছেন এসকে সাহেদ আলী পাপ্পু।

‘ভালোবাসা তুই’ নাটকটির নির্মাতা জানিয়েছেন, গল্পটি প্রেমের, তবে নির্যাসটুকু একটি মেয়ের একক লাড়াইয়ের নাটক। আর সেই মেয়েটি হচ্ছেন তানজিন তিশা। যিনি মফস্বল শহর হতে রাজধানীতে পালিয়ে এসে জীবনের দায়ে পড়াশোনার পাশাপাশি বেছে নেন সেলস গার্লের মতো কর্মময় জীবন। এখানেও টিকতে না পেরে আবারও ফিরে যান গ্রামে। যুদ্ধ শেষে বিজয়ের বেশে ফিরে আসেন আবার শহরে, যেখানে অপেক্ষায় থাকেন তারই প্রেমিক অপূর্ব।

‘ভালোবাসা তুই’ নাটকটি সম্পর্কে তানজিন তিশার ভাষ্য হলো, ‘গল্পটি যতোটা প্রেমের, ততোটাই বিদ্রোহের। যেখানে একটা বার্তা রয়েছে। বার্তাটি হলো, নিজের যুদ্ধটা আসলে নিজেকেই করতে হয়। এই নাটকটিতে কাজ করে আমি তৃপ্তি পেয়েছি।’ নাটকটিতে অপূর্ব-তিশা ছাড়াও বিভিন্ন চরিত্রে আরও অভিনয় করেছেন আনন্দ খালেদ, তনুশ্রী তন্নী, সাব্বির চৌধুরীসহ প্রমুখ।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...