The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

করোনা নিয়ন্ত্রণে চীনের পদক্ষেপ: হুবেই প্রদেশ অবরুদ্ধ ঘোষণা

অন্তত ৫ কোটি ৮০ লাখ বাসিন্দা বিশেষ অনুমতি ছাড়া বাইরে যেতে পারবে না

A security guard stands outside the Huanan Seafood Wholesale Market in Wuhan on January 24, 2020 - The death toll in China's viral outbreak has risen to 25, with the number of confirmed cases also leaping to 830, the national health commission said. (Photo by Hector RETAMAL / AFP)

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে এবার অবরুদ্ধ হলো পুরো হুবেই প্রদেশ। গতকাল (রবিবার) করোনা ভাইরাসের উৎস অঞ্চলটিকে অবরুদ্ধ ঘোষণা করে চীন সরকার।

করোনা নিয়ন্ত্রণে চীনের পদক্ষেপ: হুবেই প্রদেশ অবরুদ্ধ ঘোষণা 1

যে কারণে সেখানকার অন্তত ৫ কোটি ৮০ লাখ বাসিন্দা বিশেষ অনুমতি ছাড়া বাইরে যেতে পারবে না, বন্ধ থাকবে সকল ধরনের ব্যবসা-বাণিজ্যও। ‘জরুরি প্রয়োজন‘ ছাড়া রাস্তায় গাড়িও বের করতে দেওয়া হবে না।

কেবলমাত্র নিরাপত্তার খাতিরে পুলিশের গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স, জরুরি পণ্য পরিবহনসহ অনুমোদিত গাড়িগুলো চলাচল করতে পারবে। যেসব দোকানপাট খোলা, সেখানেও ভিড় কমাতে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যারা জ্বর-জাতীয় অসুখের লক্ষণ নিয়ে ফার্মেসিতে ওষুধের জন্য যাচ্ছেন, সেখানে তাদের নাম, ফোন নাম্বার, সর্বশেষ ভ্রমণের তারিখ ও স্থানসহ প্রয়োজনীয় সবধরনের তথ্য লিখে রাখতে বলা হয়েছে।

যেকোনও গ্রাম, সম্প্রদায় বা ভবনে করোনা আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেলেই সেগুলো অন্তত ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন করে রাখা হবে। কল-কারখানা চালু করতে হলে প্রশাসনের বিশেষ অনুমতি লাগবে।

হুবেই স্থানীয় প্রশাসন এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, সেখানকার রোগ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা প্রকৃতপক্ষে একটি কঠিন সময় পার করছে। পরিস্থিতি এখনও মারাত্মক রয়েছে। সে কারণে সংক্রমণের প্রবণতা রোধে যোগাযোগ বন্ধ করে দিতে হয়েছে। এর আগে একাধিক শহরে কড়াকড়ি আরোপ করা হলেও পুরো প্রদেশ হিসেবে হুবেই প্রথম অবরুদ্ধ করা হলো।

চীনের পূর্বাঞ্চলীয় ঝেজিয়াং প্রদেশ কর্তৃপক্ষ সেখানে সবধরনের পাবলিক ভেন্যুও বন্ধ করে দিয়েছে। নিষিদ্ধ করা হয়েছে শেষকৃত্য-বিয়েসহ যেকোনও ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজনের। মানুষ ঘরের বাইরে কতোবার যেতে পারবে, সে সংখ্যাও নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে।

ওয়েনঝৌ, হ্যাংঝৌ, নিংবো এবং তাইঝৌ শহরগুলোতে সব মিলিয়ে অন্ততপক্ষে ৩ কোটি মানুষের বসবাস। সেখানকার বাসিন্দাদের জন্য একধরনের ‘পাসপোর্ট’ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ, যা দেখিয়ে দুইদিনে মাত্র একবার কেনাকাটা করতে ঘরের বাইরে যাওয়া যাবে।

চীনে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। গতকাল (রবিবার) এই মৃত্যুর মিছিলে শামিল হয়েছেন আরও ১০০ জন। যে কারণে দেশটিতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৭৭০ জন। আক্রান্ত অন্ততপক্ষে ৭০ হাজার ৫৪৮ জন।

বিশ্বের অন্তত ২৮টি দেশ এবং অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭১ হাজার ৩২৬ জন। চীনের মূল ভূখণ্ডের বাইরে করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন ৫ জন।

Loading...