The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মালয়েশিয়া করোনার ‘সংক্রমণ ঠেকাতে’ অভিবাসীদের আটক করছে!

দেশটির পুলিশ প্রধান আবদুল হামিদ বাদোর এই বিষয়ে বলেছেন, ওই অবৈধ অভিবাসীরা যাতে বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাঘুরি করে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াতে না পারে, তাই তাদেরকে আটক করা হয়েছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) ‘সংক্রমণ ঠেকাতে’ মালয়েশিয়ায় শত শত অবৈধ অভিবাসীকে গ্রেফতার করা হচ্ছে। গত শুক্রবার অভিযান চালিয়ে অনেক অধিবাসীকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানিয়েছে বিবিসি।

মালয়েশিয়া করোনার ‘সংক্রমণ ঠেকাতে’ অভিবাসীদের আটক করছে! 1

মালয়েশিয়ার সরকারি সংবাদ মাধ্যমে দেশটির পুলিশ প্রধান আবদুল হামিদ বাদোর এই বিষয়ে বলেছেন, ওই অবৈধ অভিবাসীরা যাতে বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাঘুরি করে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াতে না পারে, তাই তাদেরকে আটক করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো জানিয়েছে, রাজধানী কুয়ালালামপুরে অভিবাসীদের ধরতে অভিযানটি পরিচালনা করা হয়। রাজধানীর কেন্দ্রীয় এলাকা হতে আটক করা হয় ৫৮৬ জন অবৈধ অভিবাসীকে। এই অঞ্চলটিতে বহু অভিবাসী বসবাস করে থাকেন।

এদিকে জাতিসংঘ মালয়েশিয়ার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছে যে, আটককৃত শিশু ও অসুস্থ ব্যক্তিদের যাতে ডিটেনশন ক্যাম্পে না নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। তা ছাড়া সরকারের এমন পদক্ষেপে ডিটেনশন ক্যাম্পেও করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করেছে জাতিসংঘ।

মানবাধিকার সংস্থাগুলোও বলছে, আটককৃতদের মধ্যে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর অনেকেই রয়েছেন।

বিশ্লেষকরা বলছেন যে, মালয়েশিয়া সরকারের এই ধরনের কার্যক্রমে সুরক্ষাহীন এসব অভিবাসী আত্মগোপনে যেতে বাধ্য হতে পারেন অনেকেই। তখন দেশটিতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানো আরও কঠিন হয়ে পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।

এদিকে হিউম্যান রাইটস ওয়াচসহ কয়েকটি মানবাধিকার সংস্থা সামাজিক যোগযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও প্রকাশ করে। তাতে দেখা যাচ্ছে যে, গ্রেফতার করে শত শত মানুষকে একটি মাঠের মধ্যে বসিয়ে রাখা হয়েছে। তাদের মধ্যে শারীরিক দূরত্বও নেই বলা যায়। তাদেরকে কঠোরভাবে ঘিরে রেখেছে একদল সশস্ত্র নিরাপত্তা বাহিনী। যদিও বিবিসি অবশ্য ওই ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি।

উল্লেখ্য, প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে মালয়েশিয়ায় আংশিক লকডাউন বিদ্যমান রয়েছে। দেশটিতে ৬ হাজারের বেশি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১০৩ জনের।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...