The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সোলাইমানিকে কোনো কারণ ছাড়াই হত্যা করেছে যুক্তরাষ্ট্র: তদন্ত শেষে জাতিসংঘ

সোলাইমানি হত্যা মূলত আন্তর্জাতিক আইনের লংঘন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ তদন্ত শেষে জাতিসংঘ বলেছে, ইরাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় প্রাণ হারানো ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডের কুদস ফোর্সের কমান্ডার জেনারেল কাশেম সোলাইমানিকে কোনো কারণ ছাড়াই হত্যা করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

সোলাইমানিকে কোনো কারণ ছাড়াই হত্যা করেছে যুক্তরাষ্ট্র: তদন্ত শেষে জাতিসংঘ 1

জানুয়ারিতে সংঘটিত ওই হত্যাকাণ্ডের দীর্ঘ তদন্ত শেষে জাতিসংঘ বলেছে যে, সোলাইমানি হত্যা মূলত আন্তর্জাতিক আইনের লংঘন।

কাশেম সোলাইমানিকে হত্যার কোনো কারণ দেখাতে পারেনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এই হামলার পক্ষে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণও হাজির করতে পারেনি ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন।

কাশেম সোলাইমানিকে হত্যার এই তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করেন জাতিসংঘের বিশেষ প্রতিনিধি অ্যাগনেস ক্যালামার্ড।

বিচারবহির্ভূত এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবেদনের সারাংশে তিনি উল্লেখ করেছেন যে, কাশেম সোলাইমানিকে হত্যার, অর্থাৎ তিনি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের বিমানবন্দর হতে যখন বের হচ্ছিলেন, তার সেই গাড়িবহরে হামলার কোনো কারণ দেখাতেই পারেনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এই হামলার পক্ষে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণও হাজির করতে পারেনি যুক্তরাষ্ট্র।

অ্যাগনেস ক্যালামার্ড ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছেন যে, সোলাইমানিকে পরিকল্পিতভাবেই হত্যা করা হয় অস্ত্রবহনকারী ড্রোনের মাধ্যমে।

এই হামলার জন্য দোষীদের বিচারের আওতায় আনার আহ্বান জানিয়েছেন অ্যাগনেস ক্যালামার্ড। তিনি আরও লিখেছেন, এই হামলা জাতিসংঘ সনদের সুস্পষ্ট লংঘন।

বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের ঘটনা স্বাধীনভাবে তদন্ত করে থাকেন অ্যাগনেস ক্যালামার্ড। ইতিপূর্বে তুরস্কে সৌদি আরবের কনস্যুলেটে সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার তদন্তেও তিনি জড়িত ছিলেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে তিনি বলেন, বিশ্ব বর্তমানে একটি কঠিন সময়ের মধ্যে রয়েছে। বিশেষ করে যখন এমন ধরনের ড্রোন ব্যবহার করা হয়।

উল্লেখ্য, কাশেম সোলাইমানি ছিলেন মধ্যপ্রাচ্যের সবচেয়ে প্রভাবশালী জেনারেল। তাকে বাগদাদ বিমানবন্দরে হত্যা করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এই ঘটনার পর বিশ্বব্যাপী নিন্দার ঝড় ওঠে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...