সম্ভব হলো মস্তিষ্কে কৃত্তিম স্মৃতির সঞ্চারণ

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ আমেরিকা এবং জাপানের বিজ্ঞানীদের একটি দল সম্প্রতি মস্তিষ্কে একটি ভ্রান্ত স্মৃতি সঞ্চারণের পরীক্ষায় সক্ষম হয়েছেন। পরীক্ষাগারের ইঁদুরের গবেষণা চালিয়ে সফলতার মুখ দেখেছেন তারা। বিজ্ঞান বিষয়ক তাত্ত্বিক পত্রিকা ‘সায়েন্স’ এ তাদের এই গবেষণার ফলাফল ছাপা হয়েছে। খুব শীঘ্রই মানুষের ওপরেই এই প্রক্রিয়া প্রয়োগ করা হতে পারে।


lab-mouse

দিন কয়েক আগেও ভ্রান্ত বা অলীক স্মৃতি সঞ্চারণের ব্যাপারটা বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীগুলোর জনপ্রিয় বিষয় ছিলো। এই বিষয়ের ওপর তৈরি করা কিছু চলচিত্র ব্যাপক সফলতার মুখও দেখেছে। কিন্তু মনোবিজ্ঞানের অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রার ধারাবাহিকতায় বিষয়টি সত্যি হলো অবশেষে। ব্যাপারটা এমন যে, যার মস্তিষ্কে অলীক স্মৃতির সঞ্চারণ করা হবে, সে এমন একটি বিষয় স্মরণ করবে যা আগে কখনো ঘটেইনি। ধরা যাক, কোন একজন ব্যক্তির ওপর এমন একটি স্মৃতির সঞ্চারণ করা হলো যে সে ঘণ্টা দুই আগেই পেটপুরে খেয়ে উঠেছে। এতে পেট খালি থাকলেও তার ভ্রান্ত স্মৃতি তাকে কিছুক্ষণ আগে খাওয়ার কথা স্মরণ করিয়ে দেবে। ব্যাপারটা বেশ বিব্রতকর। বিষ্ময়কর তো বটেই।

বিজ্ঞানীরা তার গবেষণাধীন ইঁদুরগুলোর মাথায় এমন একটা স্মৃতির সঞ্চারণ করেছিলেন যে, এর আগে তাদের যখন নীল রঙের একটা চেম্বারে রাখা হয়েছিলো, তাদের পায়ে প্রচণ্ড বৈদ্যুতিক শক দেয়া হয়েছিলো। অথচ এমন কিছুই বাস্তবে ঘটেনি। কিন্তু ভুল স্মৃতিটি সঞ্চারণের কারনে পরবর্তীতে যখনই ইঁদুরগুলোকে নীল রঙের চেম্বারে রাখা হয়, তখনই তাদের প্রচণ্ড ভীত এবং উদভ্রান্তের মতো আচরণ করতে দেখা যায়। এর আগেও বিজ্ঞানীরা অতীত স্মৃতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কিছু ভ্রান্ত স্মৃতির সঞ্চারণে সক্ষম হয়েছিলেন। কিন্তু এম.আই.টির বিজ্ঞানী সুসুমু তোনগাওয়ার নেতৃত্বাধীন এই দলটির বিশেষত্ব এই যে, তারা সম্পূর্ণ নতুন স্মৃতির সঞ্চারণে সক্ষম হয়েছেন। মানুষের ওপর এরকম স্মৃতি সঞ্চারণে আশাবাদী তোনগাওয়া জানান, ‘ভ্রান্ত স্মৃতি সঞ্চারণের যে কলাকৌশল তা ইঁদুর আর মানুষে খুব বেশি তফাৎ হবে না। তাই অচিরেই যদি সেরকম একটা ব্যাপারে আমরা সফল হই, তাহলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।’

তথ্যসূত্র: popsci.com

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...