The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

করোনা মহামারীকালে ডায়াবেটিস [১]

ডায়াবেটিস শুধু শারীরিক রোগ নয়, এটি মনকেও গভীরভাবে আক্রান্ত করে

ডা: আব্দুল্লাহ আল মামুন ॥ ডায়াবেটিস এমন একটি রোগ যার জন্য আমরা এটিতে আক্রান্ত হলে বেশ পর্যুদস্তু হয়ে পড়ি। তবে যদি না ঘাবড়িয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ মতো চলতে পারি, তাহলে আমরা স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারবো।

করোনা মহামারীকালে ডায়াবেটিস [১] 1

ডায়াবেটিস শুধু শারীরিক রোগ নয়, এটি মনকেও গভীরভাবে আক্রান্ত করে। শুরুতেই যখন কাওকে জানানো হয় আপনার ডায়াবেটিস হয়েছে যা আজীবন থাকবে এবং আপনাকে জীবন যাপন পরিবর্তন করাসহ ক্রমেই বেশি সংখ্যক ওষুধ সেবন করতে হতে পারে। এই তথ্যগুলোই ডায়াবেটিস রোগীকে মানষিক চাপে বা মানষিক অবশাদে ফেলতে পারে।

কোভিড-১৯ আক্রান্ত হলে রোগের তীব্রতা ও মৃত্যু হার বেড়ে যায়। তবে যাদের ডায়াবেটিস আছে তাদের ক্ষেত্রে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হলে মৃত্যু হার অন্তত ৫ থেকে ৬ গুণ বেড়ে যায়। যাদের আগের থেকে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে ছিলো না তাদের ক্ষেত্রে ঝুঁকি আরও বেশি।

ডায়াবেটিস রোগী কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হলে রক্তের গ্লুকোজ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই এই সময় ঘন ঘন গ্লুকোজ মেপে ওষুধ সমন্বয় করা দরকার। অনেকের ক্ষেত্রে নতুন করে ইনসুলিন শুরু করতে হতে পারে। আবার কারও কারও ক্ষেত্রে রক্তে গ্লুকোজ কমেও যেতে পারে। তাই ঘন ঘন গ্লুকোজ মেপে ওষুধ ঠিক করে নিতে হবে।

১। ডায়াবেটিসের ওষুধ ঠিক মতো খাবেন এবং কখনোই ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষধ বন্ধ করবেন না।
২। ব্লাড গ্লুকোজ এবং নিজের ওষধ ঠিকমতো ব্যালেন্স করবেন।
৩। সুগার ছাড়া তরণ জুস খাবেন এবং তা নিয়মিত করবেন।
৪। প্রতিদিন শরীরের ওজন দেখবেন এবং ঠিকমতো খাওয়ার পরেও যদি শরীরের ওজন কমে যায় তাহলে তা হাইপার গ্লাইসোমিয়া রোগের লক্ষণ। অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন তাৎক্ষণিকভাবে।
৫। প্রতি সপ্তাহে দুই তিন বার বডির তাপমাত্রা পরীক্ষা করুন। এবং যদি জ্বর থাকে তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিন। কারণ তা কোনো ইনফেকশনের লক্ষণ।
৬। যদি জ্বর থাকে তাহলে ১২০-১৮০ এমএল তরল গ্রহণ করুন।
৭। ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগের লক্ষণ হলে এগুলো অনুসরণ করুন। প্যারাসিটামল নিন ৫০০ এমজি (১+১+১) এন্টিহিস্টারিন ট্যাবলেট যাবেন ফেক্সোফিনাডিন ১২০/১৮০ এমজি (০+১+১) [আগামীকাল ২য় পর্ব]

# ডা: আব্দুল্লাহ আল মামুন
এমবিবিএস, সিসিডি বারডেম
মেডিসিন এবং ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ
সিনিয়র মেডিক্যাল অফিসার
ডিপার্টমেন্ট অফ ইন্টারনাল মেডিসিন
গুলশান ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ঢাকা।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...