The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

অতিরিক্ত ভিটামিন সি গ্রহণেও হতে পারে শারীরিক ক্ষতি

A close up shot of sliced and squeezed oranges a glass of orange juice and a glass full of orange flavored vitamin C Pills. Eat the orange, drink the juice or take a pill.

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ করোনা ভাইরাস মহামারীর কারণে ভিটামিন সি গ্রহণ নিয়ে আগ্রহ বেড়েছে অনেকের। কিন্তু এই ভিটামিন সি অতিরিক্ত গ্রহণেও ক্ষতি হতে পারে, সেটি হয়তো আমাদের অনেকের জানা নেই। আজ জেনে নিন।

অতিরিক্ত ভিটামিন সি গ্রহণেও হতে পারে শারীরিক ক্ষতি 1

করোনা ভাইরাস মহামারীর কারণে ভিটামিন সি গ্রহণ নিয়ে আগ্রহ বেড়েছে অনেকের। কিন্তু এই ভিটামিন সি অতিরিক্ত গ্রহণেও ক্ষতি হতে পারে, সেটি হয়তো আমাদের অনেকের জানা নেই। আজ জেনে নিন।

আমরা সকলেই জানি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ভিটামিন কি ধরণের ভূমিকা পালন করে থাকে। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পাশাপাশি আমরা ভিটামিন সি-এর সাপ্লিমেন্টও খাচ্ছি। তবে আমরা যখন ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার পাশপাশি ভিটামন সি সাপ্লিমেন্ট খাওয়া হচ্ছে, তখন আমাদের শরীরে তৈরি হবে আরও নানা রকম সমস্যা।

অন্যান্য খাবারের মতোই বেশি পরিমাণে ভিটামিন সি খাওয়ার ফলে শরীরের অনেক সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। মানুষ যখন বেশি খায়, অর্থাৎ বেশি খাওয়ার যে একটা খারাপ দিক রয়েছে সেই বিষয়টি মানুষ তখন ভুলে যায়। শরীরের জন্য ভিটামিন সি কতোটা প্রয়োজন সে সম্পর্কে না যেনে খাওয়া মোটেও উচিত নয়। কারণ হলো অতিরিক্ত ভিটামিন সি গ্রহণ আমাদের জন্য হতে পারে ক্ষতির কারণ।

গবেষণা অনুযায়ী দেখা যায়, প্রতিদিনি একজন প্রাপ্ত বয়ষ্ক মানুষকে ৬৫ হতে ৯০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি খাওয়া উচিত। একটি কমলাতে থাকে প্রায় ৫০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি, সুতরাং দিনে দুটি কমলা খেলেই শরীরে চাহিদা পূরণ হয়েও আরও বেশি হয়ে যাচ্ছে।

ভিটামিন সি খাওয়ার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কী হতে পারে?

বেশি পরিমাণে শরীরে ভিটামিন সি গ্রহণ করলে যে ধরণের সমস্যা দেখা দেয় তা হলো:

# ডায়রিয়া
# পেট ব্যথা
# বমি বমি ভাব
# অনিদ্রা

ভিটামিন সি গ্রহণ যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট করাও আপনার জন্য অত্যন্ত জরুরি একটি বিষয়। যেখানে থাকে সব পুষ্টি উপাদান। আপনি ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। আপনাকে মনে রাখতে হবে, পরিপূরকগুলি কেবলমাত্র পুষ্টির জন্যই তৈরি হয়েছে যা আপনি খাবার থেকে কখনও পান না।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...