The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

বইমেলায় পরীমনির ‘মুখোশ’ সিনেমার শুটিং

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ করোনার কারণে ফেব্রুয়ারির পরিবর্তে মার্চে বসেছে বাংলা একাডেমীর বই মেলা। নগরীর বাংলা একাডেমীর মূল চত্বর পেরিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বসেছে অমর একুশে বইমেলা। এবার এই বইমেলায় পরীমনির ‘মুখোশ’ সিনেমার শুটিং করা হবে।

বইমেলায় পরীমনির ‘মুখোশ’ সিনেমার শুটিং 1

অন্যান্যবার বইমেলায় ঘুরতে যান চিত্রনায়িকা পরীমনি। তবে এবারের বইমেলার ভিড়ে শুটিং করবেন এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী। আগামী ৩০ মার্চ সন্ধ্যা হতে বইমেলায় শুটিং করবেন তিনি।

‘মুখোশ’ নামে ওই সিনেমাটি নির্মাণ করছেন পরিচালক ইফতেখার শুভ। বইমেলায় এই সিনেমাটির দৃশ্যধারণের কাজ হবে। বিষয়টি নিশ্চিত করে পরীমনি বলেছেন, ‘নির্মাতা চাইলে এফডিসিতে পাড়া-মহল্লা এমন কি মেলা সবই রাতারাতি বানিয়ে ফেলতে পারেন।তাতে করে ঝামেলা, খরচ, ঝুঁকি সবই সম্ভবত কম হতো। যতোটুকু বুঝলাম, নির্মাতা আসলে সিনেমাটিতে ফেক কিছু দেখাতে চাইছেন না। তাই তিনি যা দেখাবেন তার পুরোটাই বাস্তব করার চেষ্টা করছেন। তার এই চেষ্টাকে আমি সাধুবাদ জানাই। তার ইচ্ছেটাকে এগিয়ে নেওয়ার দায়িত্ব আমাদের। সেজন্য ৩০ মার্চ সন্ধ্যায় দলেবলে আমরা মেলায় থাকবো।’

বইমেলায় পরীমনির সঙ্গে আরও শুটিং এ অংশ নেবেন মোশাররফ করিম, রোশান, তারেক স্বপন এবং প্রাণ রায়। এই তথ্য জানিয়ে নির্মাতা ইফতেখার শুভ বলেছেন, ‘৩০ মার্চ সন্ধ্যা নামতেই পুরো ইউনিট নিয়ে চলে যাবো বইমেলায়।

এই বিষয়ে সকল প্রস্তুতি এবং অনুমতিও নিয়ে রেখেছি। জানি এমন পরিবেশে কাজ করা খুবই কঠিন হবে। মেলায় আগত পাঠক ও প্রকাশকদেরও হয়তো খানিকটা সমস্যা হবে। তবে চলচ্চিত্রের কয়েকটি ভালো দৃশ্যের প্রয়োজনে এটুকু ছাড় আমাদের সবাইকে দিতেই হচ্ছে।’

উল্লেখ্য, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে সরকারি অনুদানের জন্য মনোনীত হয় ‘মুখোশ’। এর মাধ্যমে চলচ্চিত্র নির্মাতা হিসেবে অভিষেক হচ্ছে শুভর। ইতিপূর্বে অসংখ্য টিভি নাটক নির্মাণ করেছেন তিনি। সেই সঙ্গে চলচ্চিত্রের কাহিনী-চিত্রনাট্য, সংলাপ ও রচনা করেছেন। ব্যাচেলর ডটকম প্রোডাকশনের ব্যানারে নির্মিত হচ্ছে ‘মুখোশ’ চলচ্চিত্রটি।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...