The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

অস্কার: সেরা অভিনেতা হপকিনস ও সেরা অভিনেত্রী ফ্রান্সিস

সেরা সিনেমা নোম্যাডল্যান্ড এবং সেরা পরিচালক ক্লোয়ি ঝাও (নোম্যাডল্যান্ড)

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বাংলাদেশ সময় সকাল ৬টায় শুরু হয়ে ৯টা পর্যন্ত চললো এ বছর চলচ্চিত্রের দুনিয়ার সবচেয়ে বড় আসর ৯৩তম অস্কার। এবার সেরা অভিনেতা হপকিনস ও সেরা অভিনেত্রী ফ্রান্সিস।

অস্কার: সেরা অভিনেতা হপকিনস ও সেরা অভিনেত্রী ফ্রান্সিস 1

করোনায় যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থা সবচেয়ে বেশি খারাপ। তারপরও আজ সোমবার (২৬ এপ্রিল) যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেস ছিল উৎসবমুখর। গোল্ডেন গ্লোব, বাফটার পথে হেঁটে অস্কারও এবার আয়োজিত হলো খুব ছোট পরিসরে। মার্কিন মুলুকে এবার দুটি ভেন্যু। ঐতিহাসিক ডলবি থিয়েটার তো রয়েছেই, এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে লস অ্যাঞ্জেলেসের ইউনিয়ন স্টেশন। তাছাড়াও যুক্তরাজ্যের লন্ডন ও ফ্রান্সের প্যারিসেও রাখা হয়েছিল দুটি স্টেশন। সেখান থেকেও যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকতে না পারা মনোনীত শিল্পী ও কলাকুশলীরা যোগ দিয়েছেন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বসেন সবাই। তাই পুরস্কার ঘোষণার পর ছিলনা আপনজনকে জড়িয়ে ধরার সেই চিরায়ত উচ্ছ্বাস।

এবার সেরা ছবি হয়েছে ‘নোম্যাডল্যান্ড’, সেই সূত্রে সেরা পরিচালক হয়ে ইতিহাস গড়েছেন চীনা পরিচালক ক্লোয়ি ঝাও। তিনি দ্বিতীয় নারী পরিচালক হিসেবে অস্কার পেলেন। এর আগে ২০১০ সালে ‘দ্য হার্ট লকার’-এর জন্য অস্কার পান ক্যাথরিন বিগেলো। ক্লোয়ি আবার একইসঙ্গে ‘উইম্যান অব কালার’ তথা অশ্বেতাঙ্গ প্রথম নারী হিসেবেও অস্কার পেয়েছেন।

‘নোম্যাডল্যান্ড’-এর গল্পটা ফার্ন নামের এক নারীকে ঘিরেই। আমেরিকার মহামন্দার সময় সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েন ষাটে পা দেওয়া ফার্ন। তারপর ছুটে যান পশ্চিমে। বেছে নেন এই যুগের যাযাবর জীবন।

ফার্নের চরিত্রটাকে দুর্দান্তভাবে ফুটিয়ে তুলে সেরা অভিনেত্রীর অস্কারটি বাগিয়ে নিয়েছেন ফ্রান্সেস ম্যাকডোরমান্ড। এই নিয়ে ৩টি অস্কার পেলেন এই অভিনেত্রী। ৩টিই পেয়েছেন সেরা অভিনেত্রী হিসেবে (আগের ২টি ছবি হলো- ‘ফারগো’, ‘থ্রি বিলবোর্ড আউটসাইড এবিং মিসৌরি’)।

‘দ্য ফাদার’ ছবিতে ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত বৃদ্ধের চরিত্রে অভিনয় করে এবার সেরা অভিনেতা হিসেবে অস্কার পেয়েছেন অ্যান্থনি হপকিনস। সেইসঙ্গে তিনি আবার একজন অস্কারজয়ী সবচেয়ে বেশি বয়সী অভিনেতা।

অস্কার: সেরা অভিনেতা হপকিনস ও সেরা অভিনেত্রী ফ্রান্সিস 2

পুরস্কার হাতে নিয়ে ক্লোয়ি জানিয়েছেন তার অনুপ্রেরণার কথা- ‘আমি দুনিয়ার যেখানেই যার সঙ্গেই মিশেছি, তাদের ভালো দিকটাই আমি দেখেছি। তাই আমার এই পুরস্কারটা তাদের জন্যই উৎসর্গ করছি, যারা নিজেদের মধ্যে ভালো মানুষটিকে ধরে রাখার মতো সাহস দেখিয়ে চলেছেন, তা যতোই কঠিন হোক না কেনো।’

অপরদিকে সেরা মৌলিক চিত্রনাট্যের ট্রফি হাতে নেওয়ার সময় আবেগঘন গলায় ব্রিটিশ অভিনেত্রী, লেখক এবং পরিচালক এমারেল্ড ফেনেল বলেছেন, ‘ট্রফিটা বড্ড শীতল ও ভারী ঠেকছে। আমি কিন্তু কেঁদে ফেলবো না, কারণ হলো এটা ঠিক ইংরেজদের মতো আচরণ হবে না।’

অপরদিকে সেরা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্রের পুরস্কার হাতে নেওয়ার সময় সকলকে আরেক দফা আবেগে ভাসিয়েছেন ডেনমার্কের পরিচালক থমাস ভিনটারবার্গ। তিনি জানালেন, যে ছবির জন্য অস্কার পেলেন, সেটির শুটিং শুরুর চারদিনের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনায় তার কিশোরী কন্যাসন্তান মারা যান। প্রচণ্ড কষ্ট বুকে চেপে ঠিক করেন মেয়ের স্মৃতি ধরে রাখতেই এই সিনেমাতে কাজ শেষ করবেন। জীবনের জয়গানের থিম নিয়ে বানানো সিনেমাটির শেষে তিনি তাই মেয়ের নাম ‘আইডা’ জুড়ে দেন।

সেরা আন্তর্জাতিক কাহিনীচিত্র ‘অ্যানাদার রাউন্ড’। আর পোশাক পরিকল্পনার জন্য অস্কার জিতে ইতিহাস গড়লেন ৮৯ বছর বয়সী অ্যান রথ। তিনিই বর্তমানে সবচেয়ে বেশি বয়সী অস্কারজয়ী নারী।

একনজরে দেখে নিন কারা হাসলেন শেষ হাসি:

সেরা সিনেমা : নোম্যাডল্যান্ড
সেরা পরিচালক : ক্লোয়ি ঝাও (নোম্যাডল্যান্ড)
সেরা অভিনেতা : অ্যান্থনি হপকিন্স (দ্য ফাদার)
সেরা অভিনেত্রী : ফ্রান্সিস ম্যাকডোম্যান্ড (নোম্যাডল্যান্ড)
সেরা সহ-অভিনেতা : ড্যানিয়েল কালুইয়া
সেরা সহ-অভিনেত্রী : ইয়া-জাং উন (মিনারি)
সেরা মৌলিক গান : ফাইট ফর ইউ (জুডাস অ্যান্ড দ্য ব্ল্যাক মেসিয়াহ)
সেরা এনিমেটেড সিনেমা : সোল
সেরা মেকআপ ও কেশসজ্জা : মা রেইনি’স ব্ল্যাক বটম
ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট : টেনেট
সিনেমাটোগ্রাফি : মাঙ্ক
সম্পাদনা : সাউন্ড অব মেটাল
প্রোডাকশন ডিজাইন : মাঙ্ক
শব্দ : সাউন্ড অব মেটাল
সেরা আন্তর্জাতিক সিনেমা : এনাদার রাউন্ড (ডেনমার্ক)
সেরা প্রামাণ্যচিত্র : কোলেট
প্রামাণ্যচিত্র ফিচার : মাই অক্টোপাস টিচার
লাইভ অ্যাকশন স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র : টু ডিসট্যান্ট স্ট্রেঞ্জার্স
অ্যানিমেটেড স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র : ইফ এনিথিং হ্যাপেনস, আই লাভ ইউ
সেরা মৌলিক চিত্রনাট্য : প্রমিসিং ইয়ং উম্যান
সেরা এডাপ্টেড চিত্রনাট্য : দ্য ট্রায়াল অব শিকাগো সেভেন
অরিজিনাল স্কোর : সোল
কস্টিউম ডিজাইন : মা রেইনি’স ব্ল্যাক বটম

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...